বৃহস্পতিবার , এপ্রিল ২৬ , ২০১৮

চুয়াডাঙ্গায় ট্রেনের নারীযাত্রীর ভ্যানিটি ব্যাগ নিয়ে ভোদৌঁড়

তাড়িয়ে ধরে ছিনতাইকারীকে গণপিটুনি শেষে রেলওয়ে পুলিশে হস্তান্তর
আহসান আলম: চুয়াডাঙ্গা স্টেশনে কপোতাক্ষ এক্সপ্রেসের এক নারীযাত্রীর ভ্যানিটি ব্যাগ ছিনিয়ে পালানোর সময় স্থানীয়রা তাড়িয়ে ধরে ছিনতাইকারীকে রেল পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। পরে নারী যাত্রীকে সাথে নিয়ে ছিনতাইকারী সাইদুলকে পোড়দহস্থ রেলওয়ে থানায় নেয়া হয়। সাইদুল চুয়াডাঙ্গা জেলা শহরের গোরস্থানপাড়ার খোকনের ছেলে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেছেন, নি¤œগামী তথা খুলনাগামী কপোতাক্ষ এক্সপ্রেস ট্রেনটি ৫টা ৪০ মিনিটে চুয়াডাঙ্গা স্টেশনে থামে। প্লাটফর্মেই দাঁড়িয়ে ছিলো সাইদুল (২৭)। ট্রেনটি চুয়াডাঙ্গা থেকে ছাড়তেই ট্রেনের এক মহিলা যাত্রীর নিকিট থেকে ভ্যানিটিব্যাগ ছিনিয়ে নিয়ে স্টেডিয়ামের দিকে পাঁচিল টপকে দৌঁড় দেয়। প্লাটফর্মের লোকজন পিছু ধাওয়া করে। স্টেডিয়ামের নিকট সাইদুলকে ধরে পিটুনি শুরু করে। গণপিটুনি শেষে তাকে চুয়াডাঙ্গা স্টেশনের জিআরপির নিকট হসান্তর করা হয়। ছিনিয়ে নেয়া ভ্যানিটি ব্যাগ ও ব্যাগে থাকা দুটি মোবাইলফোনও জিআরপির নিকimg_20170110_185924ট দেয়া হয়।
অপরদিকে ছিনতাইয়ের শিকার কপোতাক্ষের নারী যাত্রী তার মোবাইলফোনে রিং করেন। রেলপুলিশ জানিয়ে দেয়, ছিনতাই হওয়া ভ্যানিটি ব্যাগ ও মোবাইলফোন উদ্ধার হয়েছে। ছিনতাইকারীকেও জনগণ ধরে পুলিশে দিয়েছে। এ খবর পেয়ে তিনি দর্শনা হল্টে নামেন। ঊর্ধ্বমুখি সাগরদাড়ি ধরে তিনি চুয়াডাঙ্গা স্টেশনে ফেরেন। ব্যাগ ও মোবাইলফোন গ্রহণের সাথে সাথে তিনি মামলা করতে রাজি হন। ফলে তাকে সাথে করেই সাইদুলকে নেয়া হয় পোড়াদহের জিআরপি থানায়।
ছিনতাইয়ের শিকার নারী তার পরিচয় দিতে গিয়ে বলেছেন, নাম খাদিজা। খুলনার টুটপাড়ায় বাড়ি। জানালার পশে বসেছিলাম। বুঝতেই পারিননি ভ্যানিটি ব্যাগটি ওইভাবে ছিনিয়ে নিয়ে চোখের সামনে দিয়ে দৌঁড়ে পালাবে ছিনতাইকারী।


আরো দেখুন

গাংনীর কষবা গ্রামের সেই নারীর পিছু ছাড়েনি মুদি দোকানী রাফিউল : মামলা হলেও গ্রাম্য মাতবরদের দৌরাত্ম

গাংনী প্রতিনিধি: মেহেরপুর গাংনী উপজেলা কষবা গ্রামের সেই নারীর পিছু ছাড়েনি মুদি দোকানী রাফিউল ইসলাম। …

Loading Facebook Comments ...