দুর্নীতির দায়ে সাত বছর নিষিদ্ধ অস্ট্রেলিয়ান টেনিস খেলোয়াড়

 

মাথাভাঙ্গা মনিটর: দুর্নীতির দায়ে অস্ট্রেলিয়ার টেনিস খেলোয়াড় নিক লিনডাল সাত বছরের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছেন। সাথে তাকে ৩৫ হাজার মার্কিন ডলার জরিমানা করা হয়েছে। বছরের প্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যাম অস্ট্রেলিয়ান ওপেনকে সামনে রেখে দেশটির সর্বোচ্চ টেনিস সংস্থা ম্যাচ পাতানোর বিরুদ্ধে বেশ জোড় তৎপরতা শুরু করেছে। তারই অংশ হিসেবে নিককে শাস্তি দেয়া হলো। টেনিস ইনটিগ্রিটি ইউনিটের (টিআউইউ) তদন্তের সাথে সহযোগিতা না করা ও একটি ইভেন্টে বিতর্কিত বিষয়ে জড়িয়ে পড়ার দায়ে লিন্ডালকে অভিযুক্ত করা হয়। ২০১৩ সালে অস্ট্রেলিয়ার ফিউচার টুর্নামেন্টে ম্যাচ ছেড়ে দেবার যে অভিযোগ করা হয় তাতে অস্বীকৃতি জানিয়েছির লিন্ডাল। কিন্তু টিআউইউর তদন্তে অভিযোগের সত্যতা ধরা পড়ে। যদিও ঐ বছরই ২৮ বছর বয়সী লিন্ডাল টেনিস থেকে অবসরের ঘোষণা দেন। তারপরেও পেশাদার টেনিস থেকে সাত বছরের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে বিশ্বের ১৮৭তম র‌্যাংকধারী এই খেলোয়াড়কে। গত বছর অস্ট্রেলিয়ান আদালত লিন্ডালকে দোষী সাব্যস্ত করে।

ওই একই টুর্নামেন্টে দুর্নীতির দায়ে আরো দুই খেলোয়াড় ব্রেন্ড ওয়াকিন ও ইসাক ফ্রস্টকেও শাস্তি দেয়া হয়েছে। ১০৬৬ র‌্যাঙ্কধারী ওয়াকিনকে ছয় মাসের জন্য নিষিদ্ধ ও ১৫১৫ র‌্যাঙ্কধারী ফ্রস্টকে ইতোমধ্যেই এক মাসের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে।


আরো দেখুন

হ্যারি কেনের জোড়া গোলে জিতলো ইংল্যান্ড

স্পোর্টস ডেস্ক: সেই ১৯৬৬ সালে শিরোপা ছুঁয়ে দেখেছে ইংল্যান্ড। এরপর অতিক্রান্ত হয়েছে অর্ধশতকেরও বেশি সময়। …

Loading Facebook Comments ...