চালের মূল্যবৃদ্ধি রোধে দ্রুত বাস্তবমুখি পদক্ষেপ দরকার

 

চালের দাম তরতর করে বাড়ছে। কেন? গতকাল এ সংক্রান্ত প্রকাশিত প্রতিবেদনে কয়েকটি কারণ দেখানো হলেও খাদ্য দ্রব্যের মূল্যের ঊর্ধ্বগতির দায় কোনোভাবেই সরকার এড়াতে পারে না। কেননা, কৃত্রিম বা প্রকৃত সঙ্কট দূর করে চাল-আটার দাম স্বাভাবিক রাখার জন্য সরকারের দায়িত্বশীলদের কর্তব্যরই অংশ।

মিলমালিক বা মজুদদারদের মুজদের কারণেই সঙ্কট দেখা দিলে দ্রুত আইন প্রয়োগের মাধ্যমে তা রুখতে বাধা কোথায়? ঘুরে ফিরে বার বারই বলা হয়, দেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছে। এরপরও পড়শি দেশ থেকে চাল আমদানি করা হয়। চালের বাজার স্বাভাবিক রাখার জন্য আমদানি করা দোষের নয়, যদি কৃষকরা ধানের আবাদ করে ন্যায্য দাম পায়। যদিও কৃষকদের উৎপাদিত ফসলের ন্যায্যমূল্য পাওয়া নিয়ে সব সময় সংশয় থেকেই যায়।

চাল আমাদের প্রধান খাদ্য। চাহিদামতো বাজারে সরবরাহ নিশ্চিত করতে না পারলে মূল্যবৃদ্ধি অনিবার্য হয়ে ওঠে। ফলে অজুহাতের চেয়ে চাহিদা পূরণে দূরদর্শিতার সাথে সময়োপযোগী পদক্ষেপ নিতে হবে। কালবিলম্ব মানেই অস্থির বাজারকে আরও অস্থিরতার দিকে ঠেলে দেয়া। যার যাঁতাকলে পিষ্ট হয় স্বল্প আয়ের অসংখ্য পরিবার।


আরো দেখুন

লাইলাতুল কদর : হাজার মাসের সেরা রাত

  পবিত্র কুরআনে ‘কদর’ নামে স্বতন্ত্র একটি সূরা নাজিল করে আল্লাহতায়ালা শবে কদর বা লাইলাতুল …

Loading Facebook Comments ...