Download Free FREE High-quality Joomla! Designs • Premium Joomla 3 Templates BIGtheme.net

হরিণাক-ুু সাব-রেজিষ্ট্র্রি অফিস থেকে ৬ মাসেও উদ্ধার হয়নি গায়েব হওয়া ৪ দলিল

 

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: ঝিনাইদহের হরিণাক-ুু সাবরেজিষ্টার অফিস থেকে চারটি দলিল গায়েব হয়ে গেছে। ৬ মাসেও ৪টি দলিল উদ্ধার করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। দলিল না পাওয়ায় দলিল গ্রহিতারা ক্ষুব্ধ হয়েছেন। এমনকি তারা সাব-রেজিষ্টারসহ সংশ্লিষ্টদের নামে মামলা করবেন বলে জানিয়েছেন। এদিকে নৈশ প্রহরী আশরাফের বিরুদ্ধে ঘুষ-দুর্ণীতির বিস্তর অভিযোগ তুলেছেন দলিল লেখকরা। এ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে অফিসের কাজকর্ম স্থবির হয়ে পড়েছে। দলিল ডেলিভারি ও বালাম লেখাও বন্ধ রয়েছে সাব-রেজিষ্টার অফিসে। এ নিয়ে হরিণাকু-ুতে তোলপাড় শুরু হয়েছে। এর আগে ঝিনাইদহ রেজিষ্টারের মাহাফেজখানা থেকে বালাম বইয়ের পাতা গায়েব হলেও কোনো সুরাহা হয়নি। এক মহিলা কর্মচারীকে এক বছর সাময়িক বরখাস্ত রেখে আবার পুনর্বহাল করা হয়েছে।

অভিযোগ উঠেছে প্রতিনিয়ত অনিয়ম ও দুর্নীতির মধ্যে ডুবে যাচ্ছে হরিণাকু-ু সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের সাবরেষ্টিারসহ অফিস সহকারীরা। তাদের ইন্ধনে একদিকে যেমন ঘুষ বানিজ্য চলছে, অন্যদিকে প্রতিপক্ষের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা নিয়ে দলিল ও বালাম বই গায়েব করে দেয়া হচ্ছে। এছাড়া হরিণাক-ুু সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে মোটা অঙ্কের টাকা ঘুষ দিতে হচ্ছে। ঘুষ ছাড়া সহসা কোনো কাজই হচ্ছে না এ দফতরটিতে। সাব রেজিষ্ট্রার হাসানুজ্জামান যোগদান করেই ঘুষের রামরাজত্ব কায়েম করে চলেছেন। তার এই অপকর্মে সহায়ত করছেন নৈশ প্রহরী আশরাফ। ভুক্তভোগী অনেকেই নৈশ প্রহরী আশরাফের খুটোর জোর নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। এ নিয়ে দলিল লেখকদের মধ্যে ক্ষোভ ও অসন্তোষ বিরাজ করছে। আশরাফ নামের এ নৈশ প্রহরীর দাপটে চলছে এ অফিসের সকল কার্যক্রম। দলিলসহ রেজিষ্টি অফিসের সব কাজকর্ম করতে আশরাফের সাথে চুক্তি করতে হয়।

দলিল লেখকদের একটি সূত্র জানিয়েছে, দলিল হারানোর সাথে নৈশ প্রহরী আশরাফ জড়িত। সাব-রেজিষ্টার হাসানুজ্জামানের আস্থাভাজন হওয়ায় নৈশপ্রহরী ঘুষ লেনদেনে ব্যাস্ত থাকেন সব সময়। সূত্র আরো জানায়, অনিয়ম দুর্নীতির মাধ্যমে নৈশ প্রহরী আশরাফ লাখ লাখ টাকার মালিক বনে গেছেন। তাকে দিয়েই অফিসের সব কাজকর্ম করিয়ে থাকেন সাব-রেজিষ্টার। জেলা রেজিষ্ট্রার অফিস সূত্রে জানা গেছে, ২০১৭ সালের জানুয়ারি মাসে হরিণাক-ুু সাব রেজিষ্ট্রি অফিস থেকে চারটি দলিল রেজিষ্ট্রি হয়, যার দলিল নং ছিলো ১০৪, ১০৫, ১০৬ ও ১০৭। প্রতিপক্ষের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা খেয়ে অফিস সহকারী আমিরুল ইসলাম, নৈশপ্রহরী আশরাফ, পিয়ন জাহিদুল ইসলাম ও মহরার লেলিন আজাদ ৪টি দলিল গায়েব করে দেন। প্রাপ্ত তথ্যমতে গত ২৮ মার্চ সাবেক ঝিনাইদহ জেলা রেজিষ্টার বীর জ্যোতি চাকমা হরিণাকু-ু সাবরেজিষ্ট্রার অফিস পরিদর্শনকালে বিষয়টি ধরা পড়ে। এ নিয়ে তিনি কারণ দর্শানের নোটিশ দেন।

বিষয়টি নিয়ে হরিণাক-ুর সাব রেজিষ্টার হাসানুজ্জামান সত্যতা স্বীকার করে জানান, দলিল চারটি এখনো পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে হরিণাকু-ুু থানায় একটি জিডি করা হয়েছে বলে তিনি জানান। তিনি আরও বলেন আমি ঢাকায় দুই মাসের ট্রেনিংয়ে ছিলাম। তার মধ্যে দলিল চারটি হারানোর খবর জানতে পারি। উপজেলা আইনশৃঙ্খলা সভায় হারানো দলিলের বিষয়ে কথা উঠলেও কোনো সদুত্তর না দিয়ে সাবরেজিষ্টার কৌশলে তা এড়িয়ে যান। এছাড়া জেলা রেজিষ্টার আব্দুল মালেকের বিরুদ্ধে মোটা অঙ্কের টাকা ঘুষ লেনদেনের মাধ্যমে সিনিয়রদের প্রমোশন না দিয়ে জুনিয়র নকল নবিশ আসাদুর রহমানকে প্রমোশন দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছেন শরিফুল নামের এক নকল নবিশ। এদিকে ২০১২ সালে জেলা রেজিষ্টারের নিয়ন্ত্রণে থাকা মহাফেজখানার সেভ কাস্টডিতে রক্ষিত ৪৬ নং- বালাম বইয়ের সুচিপত্রসহ ২২৫ থেকে ২২৭ নং পাতা গয়েব করে দেয়া হয়। এ ব্যাপারে এক সদস্য বির্শিষ্ট তদন্ত কমিটি হলেও বড় ধরণের জালিয়াতি করে কারো সাজা হয়নি।


আরো দেখুন

ছাদ থেকে পড়ে শিশু আহত

  স্টাফ রিপোর্টার: বিদ্যুতের লোডশেডিঙে গরম লাগছিলো, তাই বাড়ির নারীদের প্রায় সকলেই ছদে ওঠে। বড়দের …

Loading Facebook Comments ...