লাইলাতুল কদর : হাজার মাসের সেরা রাত

 

পবিত্র কুরআনে ‘কদর’ নামে স্বতন্ত্র একটি সূরা নাজিল করে আল্লাহতায়ালা শবে কদর বা লাইলাতুল কদরের গুরুত্ব অল্প কথায় বুঝিয়ে দিয়েছেন। এতে আল্লাহতায়ালা ইরশাদ করেন, ‘আমি একে (আল-কুরআন) নাজিল করেছি লাইলাতুল কদরে। লাইলাতুল কদর সম্বন্ধে আপনি কি জানেন? লাইলাতুল কদর হলো হাজার মাস অপেক্ষা শ্রেষ্ঠ’। সাধারণত ২৬ রমজান দিবাগত রাতকে পবিত্র লাইলাতুল কদর বা মর্যাদাবান রজনী বলে বিবেচনা করা হয়। কদরের শাব্দিক অর্থই হলো মর্যাদা ও মাহাত্ম্য।

বিখ্যাত ইসলামিক মনীষী আবু বকর ওরবাক (রা) বলেন, এ রাতের ইবাদত-বন্দেগীর কল্যাণে একজন নগণ্য মানুষও আল্লাহর দৃষ্টিতে মর্যাদাসম্পন্ন ব্যক্তি হতে পারে’। কদরের আরেক অর্থ হলো তকদির ও হুকুম। হযরত ইবনে আব্বাস (রা)-এর বর্ণনামতে, শবে-বরাতে আল্লাহ এক বছরের জন্য বান্দার রুজি-রিজিক, হায়াত-মউত ও অন্যান্য তকদীরী ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন, আর শবে কদরে সে সকল সিদ্ধান্তের প্রয়োগ ও রুটি-রিজিক প্রভৃতি সরবাহের দায়িত্ব আল্লাহ ফেরেশতাদের দিয়ে দেন (কুরতুবী)। মুহাদ্দিস ইবনে আবি হাতেম (রহ) ইমাম মুজাহিদ (রহ) হতে বর্ণনা করেন যে, রাসূলল্লাহ (স) একদিন সাহাবায়ে কিরামদের বৈঠকে বনি ইসরাইলের এক মুজাদ্দিদের কথা উল্লেখ করেন। তিনি এক হাজার মাস নিরবচ্ছিন্নভাবে আল্লাহর সাধনায় লিপ্ত ছিলেন। এ কথা শুনে সাহাবায়ে কিরামের আফসোস হয় যে, এক হাজার মাস অর্থাত্ তিরাশি বছর চার মাস তো-এ যুগের অনেকে জীবনও পায় না। তাই হযরত মূসা (আ)-এর উম্মত বনি ইসরাইলের মতো এতো অধিক সাওয়াব লাভের অবকাশও উম্মতে মুহাম্মদীর (স) নেই। সাহাবায়ে কিরামের এ আফসোস-অনুশোচনাকালে হযরত জিবরাইল (আ) আল্লাহর পক্ষ হতে কুরআন মজিদের সূরা কদর নিয়ে হুজুর (স)-এর কাছে আগমন করেন।

হাদিসের বর্ণনা অনুযায়ী পবিত্র রমজান মাসের শেষ দশকের বিজোড় রজনীতে শবে-কদর নিহিত। তাহলে আমরা রমজানের ২৬তম দিবাগত রাত কেন শবে-কদর উদ্যাপনে এতো ব্যস্ত হয়ে পড়ি? এ প্রশ্নের জবাবের আগে শবে-কদর এমন উহ্য রাখার হেতু সম্পর্কে আলোকপাত করা প্রয়োজন। শবে-কদরকে গোপন রাখার মধ্যে রয়েছে আল্লাহতায়ালার বিরাট হিকমত ও রহস্য। প্রত্যেক মূল্যবান বস্তু হাসিল করা যেমন কষ্টসাধ্য ব্যাপার, তেমনি আল্লাহর উদ্দেশ্য হলো এ মহামূল্যবান রাতের অনুসন্ধানে বান্দাগণ সাধনা করুক, এক রাতের জন্য ৩০টি রাত জাগ্রত থাকুক। ওলামায়ে কিরামগণ শবে-কদরের গোপনীয়তার আরেকটি রহস্য এভাবে ব্যক্ত করেন যে, শবে-কদর যদি নির্দিষ্ট রাতে অনুষ্ঠিত হতো এবং তা’ মানুষের জানা থাকতো, তবে অনেক অলস ও গাফেল হতভাগ্য ব্যক্তি এমন একটি মহান রাতের মর্যাদা না দিয়ে আল্লাহর গজবে পতিত হতো। এ জন্য উচিত হলো শেষ দশকের প্রতি বিজোড় রাতে জাগ্রত থেকে কিছু জিকির-আজকার, তসবীহ-তাহলীল, তেলাওয়াত, নফল নামাজ প্রভৃতির মাধ্যমে শবে-কদরের ফজিলত অর্জনের চেষ্টা করা।

বুখারী ও মুসলিম শরীফের হাদিসে বর্ণিত আছে- যে ব্যক্তি শবে-কদরে দণ্ডায়মান থাকে অর্থাত ইবাদত করে রাত্রি জাগরণ করে তার অতীত গুনাহ মাফ হয়ে যায়। তাই শবে-কদরের ইবাদত মানবজীবনের পাপমুক্তি  ও আল্লাহতায়ালার সন্তুষ্টির জন্য অপরিসীম কল্যাণকর। শবে-কদরের ইবাদতের মধ্যে রয়েছে- নফল নামাজ আদায় করা, কুরআন তেলাওয়াত করা, জিকির-আজকার করা, তাসবীহ-তাহলীল পাঠ করা, দরুদ শরীফ বেশি পরিমাণে পড়া, দান-সদকা করা ইত্যাদি। এছাড়া রাসূল করিম (স) বলেছেন, যখন তোমরা লাইলাতুল কদরের সন্ধান পাবে, তখন এ দোয়াটি পাঠ করবে, ‘আল্লাহুম্মা ইন্নাকা আফুউন তুহিব্বুল আফওয়া ফা’ফু আন্নি-হে আল্লাহ তুমি অবশ্যই ক্ষমাশীল। তুমি ক্ষমা করাকে পছন্দ কর, কাজেই তুমি আমাকে ক্ষমা কর’ (তিরমিযি)।


আরো দেখুন

ডিজিটাল নিরাপত্তা বিল ২০১৮ এবং ৩২ ধারা

উন্নত গণতান্ত্রিক দেশে সংবাদপত্রকে বিকল্প সংসদ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। সংসদে রাষ্ট্রেীয় কাজকর্মের জবাবদিহি নিশ্চিত …

Loading Facebook Comments ...