মঙ্গলবার , সেপ্টেম্বর ২৫ , ২০১৮

চলচ্চিত্রের উন্নয়নে সবই করবো

স্টাফ রিপোর্টার: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, চলচ্চিত্র মানুষের জীবনের প্রতিচ্ছবি। এর মাধ্যমে সমাজে অনেক বার্তা পৌঁছুনো যায়। দেশের ও সমাজের ভালোর জন্য অনেক ভূমিকা রাখতে পারে এই চলচ্চিত্র। তিনি বলেন, একটা সময় সিনেমা দেখা বন্ধই হয়ে গিয়েছিলো। এখন মানুষ আবারও সিনেমা দেখছে। এটা আনন্দের খবর। তাই আমরা যেন বিশ্বমানের চলচ্চিত্র বেশি বেশি বানাতে পারি তার জন্য যা যা করা দরকার আমার পক্ষ থেকে সবই করবো। গতকাল সন্ধ্যায় রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের ৪১তম আসরে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। চলচ্চিত্র শিল্পের উন্নয়ন প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করে এমন বিষয় সিনেমায় তুলে ধরা একান্ত প্রয়োজন। এই এফডিসি আর চলচ্চিত্র শিল্প আমার বাবার হাতে তৈরি করা। তিনি বলেন, আমাদের দেশে এখন অনেক ভালো সিনেমা হয়। সব সময় দেখতে পারি না, তবে বিমানে যাতায়াতের সময় সিনেমা দেখি। ওই একটাই সুযোগ, নিরিবিলি দেখি। এর বাইরে তো সময় পাই না। সারাদিন মিটিং আর ফাইল নিয়ে ব্যস্ত থাকতে হয়। সন্ধ্যা ৬টা ২২ মিনিটে অনুষ্ঠানস্থলে উপস্থিত হন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসেই ২৫টি বিভাগে মোট ৩১ জন বিজয়ীর হাতে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৬ এর ক্রেস্ট, মেডেল ও চেক তুলে দেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর পাশে ছিলেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু ও তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। এবারের আসরে যৌথভাবে আজীবন সম্মাননা পান আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন অভিনেত্রী ববিতা ও ‘মিয়া ভাই’ খ্যাত অভিনেতা ফারুক। পুরস্কার প্রাপ্তির অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে চিত্রনায়ক ফারুক চলচ্চিত্রের উন্নয়নে জাতিরপিতা শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অবদানের কথা তুলে ধরেন। একই সঙ্গে আবার শেখ হাসিনাকে প্রধানমন্ত্রী করতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান তিনি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, চলচ্চিত্রে অনেক কথা বলা যায়। সমাজ সংস্কারে ভূমিকা রাখা যায়। একটা সময় একটা কারণে এই চলচ্চিত্র দেখা বন্ধ হয়ে গিয়েছিলো। এখন চলচ্চিত্রের জগত্টা ফিরে আসছে। আমি আশাকরি, আমাদের চলচ্চিত্র আধুনিক হবে। চলচ্চিত্রের শিল্পীরা আরও আধুনিক হবেন। কারণ বাংলাদেশ এখন ডিজিটাল। আমরা মহাকাশে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট উেক্ষপণ করেছি। সুতরাং আমি আশাকরি চলচ্চিত্র উন্নত হোক, গ্রাম পর্যায় পর্যন্ত পৌঁছে যাক। নারীর ক্ষমতায়নের বিষয়ে শেখ হাসিনা বলেন, আজকে পার্লামেন্টে একটি বিশেষ বিষয় নিয়ে কাজ হয়েছে। আমাদের জাতীয় সংসদে যে নারীদের জন্য সংরক্ষিত আসন রয়েছে তার সময়সীমা আরও ২৫ বছর বৃদ্ধি করা হয়েছে। এটা নারীর ক্ষমতায়নের জন্য অত্যন্ত জরুরি ছিলো। তিনি বলেন, আমাদের মেয়েরা অনেক এগিয়ে গেছে। আমাদের তৃণমূল পর্যায় থেকেও নারীরা নির্বাচিত হওয়ার একটা সুযোগ তৈরি করে দিয়েছিলাম।


আরো দেখুন

অঞ্জু ঘোষ বললেন কলকাতা চলে যাওয়ার কারণ

বিনোদন ডেস্ক: একসময় রূপালী পর্দা কাঁপাতেন তিনি। একের পর এক ছবি সুপার ডুপার হিট হতো। …

Loading Facebook Comments ...