মঙ্গলবার , সেপ্টেম্বর ২৫ , ২০১৮

চুয়াডাঙ্গায় জাতীয় ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত

এবারের লক্ষ্যমাত্রা ১ লাখ ৩৩ হাজার শিশু
স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গায় জাতীয় ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন উপলক্ষে আগামীকাল ১৪ জুলাই শনিবার ১ লাখ ৩৩ হাজার ৫৬৫ শিশুকে ভিটামিন এ প্লাস খাওয়ানো হবে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় সদর হাসপাতাল সম্মেলনকক্ষে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান জেলার সিভিল সার্জন ডা. খায়রুল আলম। সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত এ কর্মসূচি চলবে।
সংবাদ সম্মেলনে মেডিকেল অফিসার ডিজিষ্ট কন্ট্রোল ডা. আওলিয়ার রহমান, জেলা ইপিআই সুপার আব্দুল ওহাব ও পরিসংখ্যান সহকারী আকতার হোসেন উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া সংবাদ সম্মেলনে চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রাজীব হাসান কচি, সাংবাদিক সমিতির সভাপতি অ্যাড. রফিকুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম সনি, চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ও দৈনিক পশ্চিমাঞ্চল সম্পাদক ও প্রকাশক আজাদ মালিতা, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ফাইজার চৌধুরী, বেতার প্রতিনিধি ও দৈনিক আকাশ খবর সম্পাদক ও প্রকাশক অ্যাড. তছিরুল আলম মালিক ডিউকসহ জেলায় কর্মরত জাতীয় পত্রিকা, ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়া প্রতিনিধিবৃন্দ এবং স্থানীয় পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশনবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, জাতীয় ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পইনে ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী ১৫ হাজার ৭২৫ জন শিশুকে নীল রঙের এবং ১ থেকে ৫ বছর বয়সী ১ লাখ ১৭ হাজার ৮৪০ জন শিশুকে লাল রঙের ক্যাপসুল খাওয়ানোর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।
সংবাদ সম্মেলনে আরও জানানো হয়, জেলায় মোট ৯৩৪টি কেন্দ্রে ১ হাজার ৮৬৮ জন স্বেচ্ছাসেবক ও ৩১০জন স্বাস্থ্য সহকারী ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো কার্যক্রম পরিচালনা করবে। ১১৩ জন প্রথম সারির তত্ত্বাবধায়ক এ কার্যক্রম মনিটরিং করবে। জাতীয় ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন সফল করার লক্ষ্যে ইতোমধ্যে জেলা, উপজেলা ও পৌরসভা সমূহে অ্যাডভোকেসি ও পরিকল্পনাসভা, স্টাফ, স্বেচ্ছাসেবক ওরিয়েন্টেশন, আন্তব্যক্তিক যোগাযোগ ও মাইকিংয়ের মাধ্যমে প্রচারণা চালানো হচ্ছে।
সংবাদ সম্মেলনে জেলার সিভিল সার্জন ডা. খায়রুল আলম বলেন, জাতীয় ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন ১৪ জুলাই প্রথম রাউন্ড শুরু হচ্ছে। পুষ্টির অভাবে মিশুরা অন্ধ হয়ে যায়। অন্ধত্ব দূর করার লক্ষ্যে সরকার এ কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। গণমাধ্যমকর্মীরা এ কর্মসূচি দেখবেন এবং ঝুঁকিপূর্ণ হলে স্বাস্থ্য বিভাগকে জানাবেন। কোনো শিশু যেন বাদ না পড়ে। কেউ যদি ভিটামিন এ প্লাস খেতে বাদ পরে কেন্দ্রে এসে খেয়ে যাবেন।


আরো দেখুন

আমঝুপিতে অভিযাত্রা প্রকল্পের ফলাফল নিয়ে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়

আমঝুপি প্রতিনিধি: প্রাথমিক শিক্ষার মানোন্নয়ন, ঝরে পড়ারোধ, শিশুদের মধ্যে মূল্যবোধ ও নৈতিকতার উন্নয়ন, কর্মকেন্দ্রিক ও …

Loading Facebook Comments ...