চুয়াডাঙ্গার বলদিয়া মাদরাসায় দু’ছাত্রের মারামারি ঘটনায় ১২ জনের নামে থানায় অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গা সদরের বলদিয়া সিদ্দিকিয়া নুরানী হাফেজিয়া মাদরাসায় দু’ছাত্রের মারামারির হামলার ঘটনায় প্রতিষ্ঠানের সভাপতি ১২ জনের বিরুদ্ধে চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় করেছেন অভিযোগ। ঘটনার ৩ দিন অতিবাহিত হলেও খোলেনি মাদরাসা। নিরাপত্তা জনিত কারণে ফেরেনি শিক্ষার্থীরা। ঘটনার পর থেকে বিষয়টি নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে বিরাজ করছে চাপা উত্তেজনা। উভয়পক্ষকে বসে বিষয়টি নিরসনের দাবি জানিয়েছেন অভিভাবক মহল।
অভিযোগের বিবরণীতে জানা যায়, গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে মাদরাসার দু’ছাত্র শাহীন এবং জামিল শেখের মধ্যে ওয়াটার হিটারে পানি গরম করাকে কেন্দ্র করে ঘটে মারামারি। রাতেই বিষয়টি মাদরাসা সুপার কমিটিকে অবহিত করলে কমিটির লোকজন মাদরাসায় আসে। মাদরাসা কর্তৃপক্ষ দু’ছাত্রের অভিভাবকদের বিষয়টি নিয়ে পরের দিন বিকেলে বসার কথা বলে। এরইমধ্যে শাহিনের পক্ষের লোকজন লাঠিসোটা নিয়ে চাড়াও হয়ে মাদরাসায় হামলা চালায়। একপর্যায় কমিটির লোকজন এবং সুপার প্রায় দু’ঘণ্টা মাদরাসার একটি কক্ষে অবরুদ্ধ থাকে। খবর পেয়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন এবং অবরুদ্ধদের মুক্ত করে বাড়ি ফেরার ব্যবস্থা করেন। এ ঘটনায় মাদরাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি রবিউল ইসলাম গতকাল বৃহস্পতিবার বাদী হয়ে নিরাপত্তাজনিত কারণ দেখিয়ে ১২জনের বিরুদ্ধে চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।
থানাসূত্রে জানা গেছে, যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে তারা হলেন, হাশেম আলী, নাজমুল, লালু মিয়া, আরজান, নাজিম, আতিয়ার রহমান, জমির, সাকিব, রায়হান, জিয়ার, শাহীন ও সুজাত আলী। ঘটনার ৩ দিন অতিবাহিত হলেও এখন পর্যন্ত খোলেনি মাদরাসা আসেনি কোনো শিক্ষার্থী। তবে বিষয়টি নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে বিরাজ করছে চাঁপা উত্তেজনা। সাধারণ অভিভাবকদের দাবি বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়ভাবে বসে নিরসন হওয়া দরকার। তা না হলে ছেলেদের লেখাপড়া চরম বিঘœত হচ্ছে। এমনকি অনেকেই লেখাপড়া বন্ধ হয়ে গেলে এর দায়ভার কে নেবে?
উল্লেখ্য, শিক্ষানুরাগীদের প্রচেষ্টায় ১৯৬৯ সালে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার তিতুদহ ইউনিয়নের বলদিয়া গ্রামে গড়ে ওঠে মসজিদ ও মাদরাসা। যেখানে ৩৩ শতক জমি দান করেন হাজারি ম-ল। পরবর্তীতে বলদিয়া সিদ্দিকিয়া নুরানী হাফেজিয়া মাদরাসা যুক্ত হয় এর সাথে। বর্তমানে এ মাদরাসায় আবাসিক ছাত্র আছে ৩০জন এবং অনাবাসিক ছাত্র আছে ৭০জন। একটি সূত্র বলেছে, এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মাদরাসার পরিবেশ না ফিরলে বড়সলুয়া গড়ে ওঠতে পারে এরূপ একটি প্রতিষ্ঠান।


আরো দেখুন

চুয়াডাঙ্গায় সুধীজনদের সাথে মতবিনিময়সভায় নবাগত জেলা প্রশাসক গোপাল চন্দ্র দাস

  রাষ্ট্রের সেবক হিসেবে ভালো কাজের দ্বারা জনগণের মনে থাকতে চাই স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গা জেলা …

Loading Facebook Comments ...