এশিয়া কাপে বাংলাদেশের দাপুটে শুরু

মাথাভাঙ্গা মনিটর: ম্যাথুজদের ১২৪ রানে বেঁধে লঙ্কা জয় করে নিলো টাইগার বাহিনী। গত এশিয়া কাপের ফাইনালে হারলেও এবারে টুনার্মেন্টের প্রথম ম্যাচে তার পুনরাবৃত্তি হতে দিলো না মাশরাফিরা। ১৩৭ রানের বিশাল ব্যাবধানে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে অনেকটা এগিয়ে রইলো মাশরাফির দল। এর আগে ম্যাচের প্রথম ইনিংসে শুরুতেই দুই উইকেট হারানোর পর তামিমের অনাকাঙ্ক্ষিত ইনজুরিতে ব্যাকফুটে চলে যায় টিম টাইগার। খেলার শুরুতেই মালিঙ্গার ওভারের চতুর্থ বলে স্লিপে ক্যাচ দিয়ে শূন্য রানে বিদায় নেন লিটন দাশ। এর রেশ কাটতে না কাটতেই মালিঙ্গার পরের বলেই বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফিরেছেন বাংলাদেশের ভরসা সাকিব আল হাসান। সাকিবের পর মুশফিককে নিয়ে দলকে সামাল দেয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিলেন টাইগার ওপেনার তামিম ইকবাল। কিন্তু সুরাঙ্গা লাকমলের করা দ্বিতীয় ওভারের শেষ বলে হাতের পুরোনো ইনজুরিতে আঘাত পান তামিম ইকবাল। তাতেই মাঠ ছাড়তে হয় তাকে। সেখান থেকেই গেলেন হাসপাতালে। হাসপাতালে দ্রুত স্ক্যান করে দেখা হয় তামিমের কব্জিতে ছিড় ধরা পড়েছে। ছিটকে পড়েছেন এশিয়া কাপ থেকে।

তামিমের মাঠ ছাড়ার পর ক্রিজে মুশফিককে সঙ্গ দিতে নেমেছিলেন মোহাম্মদ মিঠুন। সেখান থেকেই বিধ্বস্ত দলকে টেনে তুলেছেন মুশফিক-মিঠুন। মিঠুনের বিস্ফোরক ব্যাটিং ও মুশফিকের সাবধানী ব্যাটিংয়ে ভালোই সামাল দিচ্ছিলো বাংলাদেশ। চতুর্থ উইকেট জুটিতে ১৩১ রান তুলেছেন এই দুই ব্যাটসম্যান। দুজনেই করেছেন অর্ধশতক। দলীয় ১৩৪ রানে সেই মালিঙ্গার বলেই কুশাল পেরেরার ক্যাচ হয়ে ফিরেছেন মিঠুন। সাজঘরে ফেরার আগে ৬৮ বলে মিঠুনের সংগ্রহ ৬৩ রান। মিঠুনের বিদায়ের পর দলীয় স্কোরে ২ রান যোগ হতেই আপোনসোর বলে ডি সিলভার ক্যাচ হয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরেছেন মাহমুদউল্লাহ।

এরপর আবার মালিঙ্গার আক্রমণ। তার বোলিং তোপে দিশেহারা বাংলাদেশ শিবির। দলীয় ১৩৬ রানে মাহমুদউল্লাহর বিদায়ের পর ২৮তম ওভারের শেষ বলে নিজের চতুর্থ উইকেটটি তুলে নেন মালিঙ্গা। উইকেটরক্ষক কুশল পেরেরার হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। এরপর ৩৪তম ওভারে সুরাঙ্গা লাকমলের বলে তার হাতে ক্যাচ দিয়ে ব্যক্তিগত ১৫ রানে ফেরেন মেহেদি হাসান মিরাজ। দলীয় ১৯৫ রানে থারাঙ্গার বলে ধনাঞ্জয়ের হাতে ক্যাচ তুলে মাঠ ছাড়েন কাপ্তান মাশরাফি।

এরপর ৪৩তম ওভারের চতুর্থ বলে ডি সিলভার বলে এলবি ডব্লিউ’র শিকার হয়ে আউট হন রুবেল হোসেন। এর মধ্যেই ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ষষ্ঠ সেঞ্চুরির দেখা পেলেন মুশফিকুর রহিম। ৬৭ বলে ফিফটি করার পর ১২৩ বলে তিন অঙ্কের ম্যাজিক ফিগারে পৌঁছান মুশি। এরপর মুশফিকের সঙ্গে ২৬ রানের জুটি গড়ে ব্যক্তিগত ১০ রানে আউট হন মোস্তাফিজ। বাংলাদেশের ইনিংস শেষ হত তখনই। কিন্তু চমক দেখালেন ওপেনার তামিম ইকবাল। মুশফিককে সঙ্গ দিতে বাঁহাতে ইনজুরি নিয়েও ব্যাট হাতে মাঠে নেমে পড়েন বাংলাদেশ সেরা ওপেনার। তামিম নামাতেই ব্যাট হাতে লড়তে হয়েছে মুশফিককে। শেষ পর্যন্ত তামিমের জন্যই মুশফিক শেষদিকে তুলেছেন ৩২ রান। ইনিংসের শেষ ওভারে পেরেরার বলে মেন্ডিসকে ক্যাচ দিয়ে মুশফিক তুলেন তার ক্যারিয়ারসেরা ১৪৪ রান। এশিয়া কাপে বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান হিসেবে এটিই সর্বোচ্চ রানের ইনিংস। ওয়ানডেতে বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানদের মধ্যে মুশফিকুর রহিমের এই ইনিংসটি দ্বিতীয় সেরা। ১৫৪ রান করে সবার ওপরে আছেন তামিম ইকবাল।

শ্রীলঙ্কার বোলারদের মধ্যে লাসিথ মালিঙ্গা ২৩ রান দিয়ে চারটি উইকেট শিকার করেন। অন্যদের মধ্যে সুরঙ্গা লাকমল একটি, আমিলা আপোনসো একটি, থিসারা পেরেরা একটি ও ধনঞ্জয়া ডি সিলভা দুইটি করে উইকেট শিকার করেন। বিদেশের মাটিতে এশিয়া কাপের উদ্বোধনী ম্যাচ দিয়েই শুরু বাংলাদেশের খেলা। তারপর আরও ৫ দিন পরে দ্বিতীয় ম্যাচে আফগানিস্তানের বিপক্ষে। যেটি বাংলাদেশ দলের জন্য একটি চ্যালেঞ্জই। এছাড়া আছে আরব আমিরাতের গরম।


আরো দেখুন

অবৈধ দখলদারদের কবলে চুয়াডাঙ্গা জেলা শহর

স্টাফ রিপোর্টার: অবৈধ দখলদারদের কবলে পড়েছে চুয়াডাঙ্গা জেলা শহর। চলাচলের সুবিধার্থে সড়ক সম্প্রসারণ করা হলেও …

Loading Facebook Comments ...