প্রেমের টানে কাটাতারের বেড়া পেরিয়ে ভারতীয় তরুনীর সীমান্ত পাড়ি

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি: বাংলাদেশের কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর এলাকার যুবক লাবু মিয়ার সাথে ভারতের পশ্চিমবাংলার নদীয়া জেলার হোগলবাড়িয়া থানার সঞ্জনা বিশ্বাসের মোবাইলে গড়ে ওঠে প্রেমের সম্পর্ক। যে সম্পর্ক ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তও আটকাতে পারেনি। সীমান্তরক্ষীদের চোখ ফাঁকি দিয়ে প্রেমের টানে ভারত ছেড়ে বাংলাদেশে পাড়ি দিয়েছেন সঞ্জনা। এ নিয়ে গতকাল শনিবার বেলা ১১টায় দৌলতপুর উপজেলার জামালপুর সীমান্তে ১৫২/৬ (এস) সীমান্ত পিলার সংলগ্ন নোম্যান্সল্যান্ডে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ ও বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ বিজিবির মধ্যে পতাকা বৈঠকও হয়েছে।
৪৭ বিজিবি ব্যাটালিয়ন অধীনস্থ প্রাগপুর ক্যাম্পের অধিনায়ক নায়েক সুবেদার সুবোধ পাল জানান, গত বৃহস্পতিবার সীমান্তরক্ষীদের চোখ ফাঁকি দিয়ে ভারত থেকে সঞ্জনা বিশ্বাস বাংলাদেশে চলে আসেন। তিনি সীমান্তবর্তী এলাকার লাবু মিয়া নামের এক যুবকের বাড়িতে ওঠে। মেয়েটিকে ফেরত চেয়ে বিএসএফ আমাদের কাছে পত্র দেয়। পত্র পেয়ে বিজিবি সদস্যরা জামালপুর গ্রামের যুবক লাবুর মিয়ার বাড়ি গিয়ে ভারতীয় মেয়ের সন্ধান চাইলে পরিবারের লোকজন জানায় তারা বাড়ির কাউকে না জানিয়ে ঢাকায় চলে গেছে এবং দুজন বিয়ে করে নিয়েছে।
তিনি আরও জানান, এ নিয়ে গতকাল শনিবার বিজিবি ও বিএসএফ’র মধ্যে পতাকা বৈঠক হয়। বৈঠকে বিএসএফের পক্ষে নেতৃত্ব দেন ভারতের চরমেঘনা ক্যাম্পের অধিনায়ক ইন্সপেক্টর বান কে সিং। আমরা ওই তরুনীর সন্ধান পেলে বিএসএফ’র কাছে ফেরত পাঠাবো।
পালিয়ে আসা সঞ্জনা বিশ্বাস ভারতের পশ্চিমবাংলার নদীয়া জেলার হোগলবাড়িয়া থানার চরমেঘনা গ্রামের বিশ্বজিত বিশ্বাসের মেয়ে। আর বাংলাদেশী যুবক লাবু মিয়া কুষ্টিয়া দৌলতপুর উপজেলার প্রাগপুর ইউনিয়নের সীমান্ত সংলগ্ন জামালপুর গ্রামের ইদ্রিস আলীর ছেলে।


আরো দেখুন

আলমডাঙ্গার জামজামি বাজারে কর্মীসমাবেশে আসাদুল হক বিশ্বাস

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ ডিজিটাল বাংলায় পরিণত হয়েছে স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গা জেলা আ.লীগের সিনিয়র সহসভাপতি …

Loading Facebook Comments ...