নেপালকে হারিয়ে সাফ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশের মেয়েরা

স্টাফ রিপোর্টার: সৌন্দর্যে ছাওয়া ভুটানের চাংলিমিথাং স্টেডিয়ামের আশপাশ। কিন্তু এখানেও বাংলাদেশের সামনে ছিলো দুঃখের ছোপ। এখনও ৫০ দিন হয়নি ভারতের বিপক্ষে ফাইনালে হেরেছে বাংলাদেশের অনূর্ধ্ব-১৫ দলের মেয়েরা। সেই ব্যথায় প্রলেপ দিলেন স্বপ্না-মাছুরারা। নেপালকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো জিতলো অনূর্ধ্ব-১৮ নারী সাফ ফুটবলের শিরোপা। গতকাল রোববার ভুটানের চাংলিমিথাং স্টেডিয়ামে অনূর্ধ্ব-১৮ নারী দল সাফের ফাইনালে নেপালকে হারানোর প্রত্যয় নিয়ে নামে।শিরোপা জয়ই লক্ষ্য বলে ম্যাচের আগে জানান নারী দলের কোচ গোলাম রাব্বানী ছোটন। তবে প্রথমার্ধে গোল করতে পারেনি কোনো দল। এরপর দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে গোল দিয়ে এগিয়ে যায় বাংলাদেশের মেয়েরা। প্রথমার্ধে গোলাম রাব্বানী ছোটনের শিষ্যরা কিছুটা এলোমেলো ছিলো। তবে দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই বাংলাদেশের মেয়েরা কাঙ্ক্ষিত গোল পেয়ে যায়। এগিয়ে যায় ১-০ গোলে। ওই গোলে নিশ্চিত হয় মেয়েদের সাফের শিরোপা। এর আগে ঢাকায় গত বছরের ডিসেম্বরে অনূর্ধ্ব-১৫ নারী সাফের চ্যাম্পিয়ন ছিলো বাংলাদেশ। সেই পদচিহ্ন অনুসরণের সুযোগ ছিলো এবার অনূর্ধ্ব-১৮ নারী দলের সামনে। সুযোগ ছিলো গত আগস্টে ভুটানের এই চাংলিমিথাং স্টেডিয়ামে অনূর্ধ্ব-১৫ মেয়েদের ভারতের কাছে হারের দুঃখ ভোলার। এমননি ২০১৬ সালে এই চাংলিমিথায় স্টেডিয়ামে হেরে একপ্রকার নির্বাসনে গিয়েছিলো মামুনুল ইসলামরা। মেয়েদের সামনে সুযোগ ছিলো সেই দুঃখের স্মৃতিতে নতুন পদচিহ্ন আঁকার। সেই সুযোগ দারুণ কাজে লাগিয়েছে অনূর্ধ্ব-১৮ দলের মেয়েরা। ফাইনালে ভারত নেই বলে স্বস্তির হাওয়া ছিলো স্বপ্নানের মনে। ফাইনালে ছোট বলে কোনো প্রতিপক্ষে নেই সেটাও ভোলেননি মেয়েদের কোচ গোলাম রাব্বানী ছোটন কিংবা তার শিষ্যরা। বয়সভিত্তিক আসরে কখনোই নেপাল বাংলাদেশের মেয়েদের হারাতে পারেনি। এটাও ছিলো আত্মবিশ্বাসের খোরাক। ঠিক সেভাবেই খেলা শুরু করে মেয়েরা। বেশ কিছু আক্রমণও করে। কিন্তু প্রথমার্ধে গোল হওয়ার মতো বড় কোনো সুযোগ বের করতে পারেনি তারা। তবে দ্বিতীয়ার্ধের ৪৯ মিনিটে মাছুরা পারভীন গোল করে দলকে লিড এনে দেন। পরে আর গোল করতে না পারলেও নিজেদের জাল অক্ষত রাখে মেয়েরা। দ্বিতীয়ার্ধের ওই একমাত্র গোলে নিশ্চিত করে ফাইনালের শিরোপা। বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৮ দলের এ ম্যাচে আলাদা স্বস্তি ছিলো দ্রুত গতির স্বপ্না ইনজুরি কাটিয়ে ফেরায়। কেবল স্বপ্না নন, ভুটানের বিপক্ষে গোল করা সানজিদা, শামসুন্নাহাররাও ছিলেন দলে। তবে ফাইনালে গোল করে শিরোপা জয়ে অবদান রাখলেন মাছুরা।

 


আরো দেখুন

সহজ জয়ে টি-টোয়েন্টি সিরিজ দক্ষিণ আফ্রিকার

মাথাভাঙ্গা মনিটর: আশা জাগালেও বড় ইনিংস খেলতে পারলেন না ব্রেন্ডন টেইলর, শন উইলিয়ামসরা। অনুজ্জ্বল ব্যাটিংয়ের …

Loading Facebook Comments ...