মান্নার সঙ্গে মাহী বি. চৌধুরীর ফোনালাপ ফাঁস

স্টাফ রিপোর্টার: জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতা মাহমুদুর রহমান মান্না ও ফ্রন্টে না থাকা মাহী বি. চৌধুরীর একটি ফোনালাপ ফাঁস হয়েছে। ফোনালাপে নবগঠিত ফ্রন্টের পেছনে ‘রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্র’ কাজ করছে বলে দাবি করেন বিকল্পধারার নেতা মাহী বি. চৌধুরী। ফ্রন্টের বাইরে থাকতে পারায় নিজে বেঁচে গেছেন মন্তব্য করে মাহী ষড়যন্ত্রের বিষয়ে মান্নাকে সতর্ক করেন। তবে ঘটনাচক্রকে ষড়যন্ত্র মানতে নারাজ ছিলেন মান্না। গত শনিবার সন্ধ্যায় ফ্রন্টের ঘোষণাপত্র প্রকাশের পরপরই তাদের মধ্যে এ ফোনালাপ হয়। দুই নেতার কথোপকথনের এক ঘণ্টার মধ্যেই আলোচনার অডিও চলে আসে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

ফাঁস হওয়া ফোনালাপে শোনা যায়, শুরুতেই মাহী বি. চৌধুরী বলেন, ‘আপনি আব্বার (বদরুদ্দোজা চৌধুরী) সঙ্গে কথা বলে কি ঘোষণাপত্র পাঠ করলেন মান্না ভাই?’। মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘না বাবা, না এই ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে, আমারও হয়তো ভালো করে ভাবা দরকার ছিলো। কারণ হলো যে, রব ভাই কথা বলেছিলেন স্যারের সঙ্গে এবং স্যার বলেছেন, হ্যাঁ আমি এটা চিন্তা করছি। আধা ঘণ্টার মধ্যেই জানাচ্ছি, আমি ভাবছি তিনি আসবেন।’ মাহী বি. চৌধুরী: ‘না, না। আব্বা আমার পাশে বসেই রব চাচার সঙ্গে কথা বলেছিলেন। তিনি যদি এ কথা বলে থাকেন তাহলে কথাটি সত্য নয়। আর আব্বা তো আপনার সঙ্গে নিজে কথা বলেছেন মান্না ভাই…’। মাহমুদুর রহমান মান্না : ‘না, না আমার সঙ্গে কথা বলেছেন কী, কথা তো সব ঠিকই আছে এবং যেগুলো যেগুলো বলবার ব্যাপার সেগুলো আলাপ হয়েছে। কারণ, আমি অনেককেই বলি, আজকে সামগ্রিক বিষয় নিয়ে অনেক কথা হয়েছে, সেগুলো সামনাসামনি বলবো। ফোনে সব বলতে পারবো না। কিন্তু একটা সিচুয়েশন হয়েছে যা আমি এড়িয়ে করতে পারিনি। আমি করতে পারতাম যদি এ ঘটনা না হতো। রব ভাই যদি স্যারের সঙ্গে কথা না বলতো বা ওই রিপ্লাইটা যদি না পেতাম। কারণ, অল ট্রু আই সেইড নো অ্যান্ড ইট ওয়াজ ট্রল… তারপর এটা শোনার পরে সব মিডিয়ায় কথাবার্তা হচ্ছে, তখন আমি রাজি হয়েছি, কিন্তু তখন ঘোষণা পড়ার কথা হয় নাই। সেটা হয়েছে পরে। কিন্তু প্রথমে আমি বলেছি, যাবই না।’ মাহী বি. চৌধুরী : ‘না, কিন্তু সকাল থেকে মইনুল হোসেন সাহেব, কামাল হোসেন সাহেবকে সরিয়ে নিয়ে গেলেন ওনার বাসা থেকে এবং চিন্তাটা আগেই ছিলো মওদুদ সাহেবের যে বি. চৌধুরী এবং কামাল হোসেনকে একা বসতে দেয়া যাবে না এবং বি. চৌধুরীকে সম্পূর্ণভাবে একটু অপমান করে দেয়ার এই যে একটা পরিকল্পনা, এই একটা চক্রের মধ্যে তো আপনারা পড়ে গেলেন মান্না ভাই…’। মাহমুদুর রহমান মান্না: ‘না, না এই চক্রের মধ্যে পড়বো না। এর বাইরেই থাকবো। এটা নিয়ে চিন্তা করবেন না। এর বাইরে থাকব এবং আনাও যাবে। কিন্তু আপনার বা আপনাদের ব্যাপারটাও বোঝা দরকার। আচ্ছা, আপনি আমাকে কেন দোষারোপ করলেন মিছিমিছি, আমি কী বেইমানি করলাম?’ মাহী বি. চৌধুরী: ‘না, না আমি এই শব্দটাই উচ্চারণ করি নাই। কিন্তু আমি বলছি আব্বা যখন নিজে আপনার সঙ্গে কথা বলেছেন, আপনি বলেছিলেন ঠিক আছে আপনি আমাদের প্রেস কনফারেন্সে থাকবেন না, ওখানেও থাকবেন না। আমরা সেটাই আশা করেছিলাম। কিন্তু আপনি যখন ওখানে ঘোষণাপত্র পাঠ করলেন, তখন আব্বা ওয়াজ এ লিটল শক! তিনি বলেছেন, আমি তো মান্নার জন্য বরং কামাল হোসেনের সঙ্গে ফাইট করেছি।’ মাহমুদুর রহমান মান্না: ‘এরকম পলিটিকসে এরকম অজস্র হয়।’ মাহী বি. চৌধুরী : ‘না, আমরা তো এমন পলিটিকস করি না।’ মাহমুদুর রহমান মান্না: ‘আচ্ছা, এখন ঐক্য যদি চায় যে আপনারা আসেন, তাহলে কী করবেন?’ মাহী বি. চৌধুরী : ‘না, আমরা বেরিয়ে যাইনি। আমাদের বের করে দিলেন আপনারা। আপনারা মিটিং করলেন, আমাদের ডাকলেন না। আপনারা তো আমাদের ডাকেনই নাই। আজকে আপনারা ঘোষণা  দেবেন, আমাদের বলছেন? বি. চৌধুরীর সঙ্গে আলোচনা করছেন? ঐক্য কে চায় না জাতির সামনে পরিষ্কার হয়ে গেছে। এখানে আসলে ঐক্য প্রক্রিয়ার নামে একটা চক্রান্ত, ষড়যন্ত্র হচ্ছে। এখানে কোনো রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্র হচ্ছে। আপনাকে দিয়ে ঘোষণা পাঠ করাচ্ছে। আমাকেও ঢুকানোর চেষ্টা করছিলো। আজকের এই কথাটা শুধু মনে রাখেন। আর কিছু বলবো না।’ মাহমুদুর রহমান মান্না: ‘না, আপনি যেমন মনে করছেন, আমার আবার তেমন…’। মাহী বি. চৌধুরী: আপনার কি মনে হচ্ছে, আজকের এই ঘটনা এমনি এমনি ভুলে ভুলে হয়ে গেছে? এর পেছনে কোনো জাতীয়, আন্তর্জাতিক চক্রান্ত নাই?

এদিকে মান্না-মাহীর ফোনালাপ মাহী বি. চৌধরী নিজেই ফাঁস করেছেন বলে মনে করছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সংশ্লিষ্ট এক নেতা। শুধু ফ্রন্টের নেতারা নন, মাহীর নিজ দল বিকল্পধারার এক নেতাও বলেছেন, ‘জাতীয় ঐক্যে ফাটল ধরাতেই বদরুদ্দোজা চৌধুরীর সমর্থনে মান্নারও প্রেসক্লাবের সংবাদ সম্মেলনে অনুপস্থিত থাকার পরিকল্পনা ছিলো। কিন্তু সেটা হয়নি। এমন পরিস্থিতিতে ব্যক্তিস্বার্থের জন্য মাহী উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে ফোনালাপ রেকর্ড করে গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করে থাকতে পারেন।


আরো দেখুন

চুয়াডাঙ্গা জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিকসভায় জেলা প্রশাসক গোপাল চন্দ্র দাস

  আইনশৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখতে সম্মিলিত প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখার আহ্বান স্টাফ রিপোর্টার: ‘আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি উন্নতির ধারা …

Loading Facebook Comments ...