আলমডাঙ্গায় নারীসহ ৩ চিকিৎসকের ওপর হামলার ঘটনায় প্রেসকনফারেন্স

আসামি গ্রেফতার ও চিকিৎসকদের নিরাপত্তার দাবিতে প্রতিবাদসভা
আলমডাঙ্গা ব্যুরো: আলমডাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দায়িত্বরত চিকিৎসকদের ওপর ন্যাক্কারজনক হামলার আসামিকে দ্রুত গ্রেফতার ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসকদের শতভাগ নিরাপত্তার দাবিতে প্রতিবাদসভা ও প্রেসকনফারেন্স অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৮ জুলাই হারদীস্থ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ওই প্রতিবাদ ও প্রেসকনফারেন্স অনুষ্ঠিত হয়।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডাক্তার হাদী জিয়াউদ্দীন আহমেদের সভাপতিত্বে ওই প্রেসকনফারেন্সে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গা জেলা বিএমএ’র সভাপতি ডাক্তার মার্টিন হিরক চৌধুরী। প্রধান অতিথি বলেন, বর্তমানে করোনাকালীন পরিস্থিতিতে দেশের সকল ডাক্তার, পুলিশ, সাংবাদিকসহ প্রশাসনের সকল পর্যায়ের মানুষ ফ্রন্ট লাইনের যোদ্ধা । তাদেরই একজন আলমডাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ডাক্তার আশরাফুন নাহার লীনা ও আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাক্তার মোর্তুজা আরেফিন। তাদেরকে যে যুবক লাঞ্ছিত করেছে তাকে গ্রেফতারের জন্য প্রশাসনের নিকট জোর দাবি জানাচ্ছি। কেউ যদি মনে করেন ডাক্তাররা দুর্বল তাহলে ভুল করবেন। গ্রামে দায়িত্ব পালনের মতো কঠিন ও দুরূহ দায়িত্ব আমরা পালন করে থাকি। সে জন্য আমাদের চিকিৎসকদের সর্বাগ্রে নিরাপত্তা দিতে হবে। এই হাসপাতালে যেসব ডাক্তাররা দায়িত্ব পালন করছেন তাদের শতভাগ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে যদি আসামি গ্রেফতার না হয় তাহলে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের সাথে আলোচনা করে বৃহত্তর আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন বিএমএ’র কেন্দ্রীয় সদস্য ডাক্তার আওলিয়ার রহমান। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাক্তার মোর্তোজা আরেফিন, ডাক্তার শারমিন আক্তার, ডাক্তার রাগিব শাহরিয়ার, ডাক্তার মাশুক রহমান, ডাক্তার আব্দুল্লাহ আল মামুন, ডাক্তার নাজমুল হুসাইন, ডাক্তার সিলভিয়া পারভীন, ডাক্তার আনিকা বুশরা হাসান, উপ-সহকারী মেডিকেল অফিসার ওবাইদুল হক, কাজল মাহমুদ, এসআই আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।
প্রসঙ্গত, ১৬ জুলাই যাদবপুর গ্রামের আব্দুর রহিম নামে এক য্বুক তার অসুস্থ পিতাকে হাসপাতালে না নিয়ে নিজে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাক্তার আশরাফুন নাহার লীনাকে ব্যবস্থাপত্র লিখে দিতে বলেন। ডাক্তার লীনা রোগী না দেখে ব্যবস্থাপত্র লিখে দিতে অস্বীকার করায় আব্দুর রহিম তাকে লাঞ্ছিত করে। এ সময় ওই যুবকেরর হাতে হাসপাতালের আরএমওসহ আরও এক নারী চিকিৎসক লাঞ্ছিত হন। এ ঘটনায় রাতে আলমডাঙ্গা থানায় মামলা দায়ের করা হয়। তবে এখনও পর্যন্ত আসামি গ্রেফতার হয়নি ।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More