গাংনীতে ফুটপাথের কারিগরদের দুর্দিন

গাংনী প্রতিনিধি: গাংনীর রেজাউল চত্বরে বটগাছের ছায়ায় মাথায় হাত দিয়ে বসে আছেন চর্মকার সমর দাস। আগে যেখানে চারশ’ টাকা থেকে পাঁচশ’ টাকা আয় রোজগার হতো সেখানে এখন সারাদিনে আয় হয়েছে তার মাত্র ৬০ টাকা। সংসারে রয়েছে স্ত্রী পুত্রসহ ৬ জন। এ টাকা দিয়ে কীভাবে তাদের মুখে আহারের ব্যবস্থা করবেন তিনি? এ চিন্তায় মগ্ন সমর দাস। লকডাউন আর করোনার কারণে লোকজন বাজারে না আসায় আয়ের পথটি তার বন্ধ। সরকারি কোনো সহযোগিতাও পাননি তিনি। শুধু সমর দাস নয় তার মতো ফুটপাথের সব কারিগরদের অবস্থা একই।
গাংনী উপজেলা শহর, বামন্দী বাজার, রাইপুর, হেমায়েতপুরসহ বিভিন্ন স্থানে অন্ততঃ পাঁচ শতাধিক ছোট ছোট কারিগর ফুটপাথে ব্যবসা করতেন। জীবন জীবিকার তাগিদে কেউ চর্মকার, তালা, ছাতা, হারিকেনসহ ছোট ছোট মেরামতের কাজ করতেন। লকডাউনের কারণে আজ তাদের জীবন জীবিকার পথটিও বন্ধ হয়ে গেছে। কয়েকজন ফুটপাথে বসলেও প্রশাসনের তৎপরতায় অধিকাংশ কারিগর শহরে বসতে না পেরে গ্রামে গ্রামে ঘুরছেন।
গাংনীর হাটবোয়ালিয়া রোডের তালার কারিগর আব্দুর রশীদ জানান, প্রতিদিন তালা মেরামত ও চাবি তৈরীসহ টুকিটাকি কাজ করে তিন চারশ টাকার কাজ হতো। লকডাউনের কারণে মানুষের চলাচল না থাকায় আয়ের পথটি প্রায় বন্ধ। দিনে এখন একশ টাকা আয় করা দায় হয়েছে। একই কথা জানালেন কারিগর আলাউদ্দীন।
ছাতার কারিগর আল আমিন জানান, রোদ কিংবা বৃষ্টি সবসময় ছাতার ব্যবহার হয়। আগে লোকজনের সমাগম ছিলো তখন প্রতিদিন পাঁচশ থেকে ছয়শ টাকা রোজগার হতো। এখন আয় নেই। গ্রামে গ্রামে ঘুরে একশ দেড়শ টাকা হয়। তা দিয়ে সন্তানদের আহার যোগানো ও পড়ালেখার খরচ মেটানো দায়। লকডাউনে রুটি রুজি কেড়ে নিয়েছে। সরকারি কোনো সহযোগিতাও পাননি ।
কারিগরদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, তাদের স্বল্প পুঁজিতে ফুটপাথে থেকে কোনোরকম দিনাতিপাত চলছিলো। এ পথটি বন্ধ অথচ সরকার তাদের জীবিকার কোনো ব্যবস্থা করছেন না। সামান্য সহযোগিতা পেলে তারা বেঁচে যেতে পারতো।
এ ব্যাপারে গাংনী উপজেলা নির্বাহী অফিসার আর এম সেলিম শাহনেওয়াজ জানান, লকডাউনের কারণে ফুটপাথের ব্যবসায়ীদের কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। তবে সরকারি সুবিধা এলে তাদেরকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে প্রদান করা হবে।

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More