ভালো ও মানবিক কাজের মধ্যদিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে এক্সসিএমজি-আর্থমুভিং

দামুড়হুদার গোপালপুরে শিক্ষার্থীদের উপহার সামগ্রী বিতরণকালে এনামুল হক লোটাস

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার গোপালপুর গ্রামের দুটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের শিক্ষা উপকরণ উপহার দেয়া হয়েছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর ২টা থেকে ৫টা পর্যন্ত ডি.জি.এম শান্তিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এক্সসিএমজি ও আর্থমুভিং সলিউশন লিমিটেডের আয়োজনে ওই কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় ডি.জি.এম শান্তিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও গোপালপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণির মোট ২১০ জন শিক্ষার্থীদের এক্সসিএমজি-আর্থমুভিংয়ের সৌজন্যে প্রত্যেককে একটি করে পেন্সিল বক্স, একটি করে জ্যামিতি বক্স এবং সেই সাথে এক সেট মোম রঙ পেন্সিল উপহার দেয়া হয়। এছাড়া আয়োজন করা হয় চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার। সেখানে বাচ্চাদের প্রাণ চঞ্চল অংশগ্রহণের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠানটি শেষ করা হয়।

ডি.জি.এম শান্তিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলাউদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন আর্থমুভিং গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ মুজিবুল হকের বড় ভাই বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এনামুল হক লোটাস। আর্থমুভিং সলিউশন লিমিটেডের সহকারী ব্যবস্থাপক (ব্র্যান্ডিং এন্ড প্রোমোশন) সম্পদ শাহীন কবির সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন আর্থমুভিং গ্রুপের এজিএম হুমায়ুন কবীর, রয়েল এক্সপ্রেসের স্বত্বাধিকারী মোহাম্মদ সালাউদ্দিন, দামুড়হুদা উপজেলা প্রাথমিক সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা শাহরিয়ার কবীর, বিশিষ্ট সমাজসেবক টিপু মল্লিক, গোপালপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি সোলায়মান হক, প্রধান শিক্ষক সাদিকুর রহমান ও ডি.জি.এম শান্তিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি মজিবুল হক। এছাড়া দুটি বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এনামুল হক লোটাস বলেন, আর্থমুভিং গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ মুজিবুল হক এলাকার মানুষের জন্য একজন নিবেদিতপ্রাণ। নিজ এলাকার মানুষের জন্য তার মন কাঁদে। গ্রামের উন্নয়নে তিনি কাজ করে যাচ্ছেন। প্রতি বছর চুয়াডাঙ্গাসহ সারাদেশের মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন তিনি। বিশেষ কাজে ঢাকায় ব্যস্ত থাকায় তিনি এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে পারেননি। তবে অনলাইনের মাধ্যমে বাচ্চাদের শুভেচ্ছা জানিয়ে উৎসাহিত করেছেন। সর্বোপরি এক্সসিএমজি-আর্থমুভিংয়ের যৌথ প্রযোজনায় বছরের বিভিন্ন সময়ে চুয়াডাঙ্গাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় দাতব্য কর্মসূচি করে থাকে। ভালো, মানবিক ও সামাজিক কাজের মধ্যদিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে আর্থমুভিং।

অনুষ্ঠানে দামুড়হুদা উপজেলা প্রাথমিক সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা শাহরিয়ার কবীর বলেন, এক্সসিএমজি-আর্থমুভিং একটি দৃঢ় বন্ধন। প্রতিষ্ঠানটি সামাজিক ও মানবিক কাজের পাশাপাশি শিক্ষাক্ষেত্রেও অনেক কাজ করে যাচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় আজকের এই আয়োজন। এক্সসিএমজি-আর্থমুভিংয়ের কর্মকা- অব্যাহত থাকুক। বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ুক।

আর্থমুভিং গ্রুপের এজিএম হুমায়ুন কবীর বলেন, এক্সসিএমজি (সুঝু কনস্ট্রাকশন মেশিনারি গ্রুপ) চীনের ১নম্বর নির্মাণ সরঞ্জাম প্রস্তুতকারক। তারা সব ধরনের নির্মাণ যন্ত্রপাতি তৈরি করে এবং বিশ্বের প্রায় সব দেশে সরবরাহ করে থাকে। আর্থমুভিং সলিউশন লিমিটেড বাংলাদেশে এক্সসিএমজি’র একমাত্র পরিবেশক। এটি বাংলাদেশের বাজারে এক্সসিএমজি ব্র্যান্ডের সকল নির্মাণ সরঞ্জাম সরবরাহ করে। বিগত বছরগুলোতে ডেঙ্গু প্রাদুর্ভাবের সময় দেশব্যাপী বিভিন্ন হাসপাতালে অত্যাধুনিক চিকিৎসা সরঞ্জাম, ওষুধ এবং শত শত মশারি সরবরাহ, কোভিড-১৯ মহামারী চলাকালীন দেশের বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহে মাস্ক সরবরাহ এবং সারাদেশে অসহায় ও দুস্থ মানুষের জন্য কয়েক লক্ষ হাজার টাকা মূল্যের অনুদান প্রদান করেছে প্রতিষ্ঠানটি। এছাড়া প্রতি বছর শীতের সময় অসহায় মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করে প্রতিষ্ঠানটি।

রয়েল এক্সপ্রেসের স্বত্বাধিকারী মোহাম্মদ সালাউদ্দিন বলেন, আর্থমুভিং গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ মুজিবুল হক খুব ছোট বেলা থেকেই পরোপকারী। আজ তিনি গরিব দুঃখী মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছেন। তিনি গোপালপুর গ্রামের একজন কৃতিসন্তান। তিনি শুধু গোপালপুর গ্রামের নামই নয়, উজ্জ্বল করেছেন চুয়াডাঙ্গা জেলা তথা বাংলাদেশের নাম। তার নেতৃত্বে আর্থমুভিং এগিয়ে যাবে এটাই প্রত্যাশা।

পরে শিক্ষার্থীদের মাঝে এক্সসিএমজিু-আর্থমুভিংয়ের সৌজন্যে প্রত্যেককে একটি করে পেন্সিল বক্স, একটি করে জ্যামিতি বক্স এবং সেই সাথে এক সেট মোম রঙ পেন্সিল উপহার দেয়া হয়।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More