আলমডাঙ্গায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার পরিচয়ে জরিমানার ভয় দেখিয়ে দুই বেকারি মালিকের কাছে টাকা দাবি

আলমডাঙ্গা ব্যুরো: উপজেলা নির্বাহী অফিসার পরিচয়ে আলমডাঙ্গার দুই বেকারি মালিকের কাছে টাকা দাবির ঘটনা ঘটেছে। ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা না করার আশ্বাস দিয়ে তাদের কাছে টাকা দাবি করা হয়। গত মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে মোবাইল ফোনে এ টাকা দাবির ঘটনা ঘটে। এর আগে ইউএনও পরিচয়ে দুই ওয়ার্ডের সাবেক দুই কাউন্সিলরের কাছ থেকে তাদের মোবাইল নাম্বার নিয়ে নেয়া হয়।
জানা গেছে, রাত ৯ টার দিকে প্রথমে আলমডাঙ্গা পৌরসভার তিন নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর দিনেশ কুমারের কাছে ইউএনও পরিচয়দানকারী তার ওয়ার্ডে মোট কয়টা বেকারি রয়েছে জানতে চায়। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে বলে বেকারি মালিকের মোবাইল নাম্বার জানতে চান। দিনেশ কুমার মডার্ণ বেকারি মালিক মিলনের নাম্বার দিয়ে দেন এবং তিনি নিজেও ইউএনও’র ভ্রাম্যমাণ পরিচালনার বিষয়টি মিলনকে অবহিত করেন।
এর কিছুক্ষণ পরই ইউএনও পরিচায়দানকারী ০১৬৬০-১৫১৩১১ নাম্বারে মিলনকে কল করে বলেন, আমি আলমডাঙ্গা থানার ইউএনও। ঢাকা থেকে ম্যাসেজ এসেছে, আলমডাঙ্গার সব বেকারিতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে জরিমানা করতে বলা হয়েছে। আমরা ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা করছি। এ সময় ইউএনও পরিচায়দানকারী বেকারি মালিক মিলনকে একটু সুযোগ দেয়ার কথা বলে জানান, আপনি চাইলে কিছু কম টাকা দিয়ে আপনার নাম কাটিয়ে নিতে পারেন। তার নাম্বারে ৮ হাজার ২শ টাকা বিকাশ করে দিতে বলেন। এ সময় বেকারী মালিক মিলন পরদিন সকালের দিকে অফিসে গিয়ে টাকা দিয়ে আসার প্রস্তাব দিলে ইউএনও পরিচয়দানকারী তা নাকচ করে দিয়ে বলেন, এসব অফিসে আলোচনা করা যাবে না। এক্ষনই বিকাশে টাকা পাঠিয়ে দিতে আদেশ দেন। এরপর ০১৭৬৫-৪৫৪১৪৮ নাম্বার থেকে পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর ইলিয়াছ হোসেনের কাছে একইরকমভাবে তার ওয়ার্ডের বেকারি মালিকের নাম্বার চান ইউএনও পরিচয়দানকারী। ইলিয়াস হোসেন নাম্বার দেন ক্যানেলপাড়ার মনিফুডের মালিক মনিরুজ্জামান মনি’র। তাকেও ভ্রাম্যমাণ আদালতে অতিরিক্ত জরিমানার ভয় দেখিয়ে টাকা দাবি করা হয়। টাকা না দিলে তক্ষনই ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হবে বলেও হুমকি দেয় ইউএনও পরিচয়দানকারী। মনিরুজ্জামান মনি সকাল পর্যন্ত সময় চাইলে ইউএনও পরিচয়দানকারী এখনই অভিযান চালানো হবে বলে জানান। হুমকি পেয়ে সন্দেহ হলে দুই বেকারি মালিক মিলন ও মনি থানায় অভিযোগ করেন। পুলিশ জানতে পারে ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানার হুমকি প্রদানকারী ভুয়া ইউএনও।
এ ব্যাপারে সাবেক কাউন্সিলর দিনেশ কুমার বলেন, আমার কাছে আলমডাঙ্গার ইউএনও পরিচয় দিয়ে বেকারি মালিকের নাম্বার চান। আমি সরল বিশ^াসে মডার্ণ বেকারির মালিক মিলনের নাম্বার দিয়েছি।
আলমডাঙ্গা থানার ওসি আলমগীর কবীর বলেন, ভুয়া ইউএনওকে পাকড়াও করতে পুলিশ মাঠে নেমেছে।
এ বিষয়ে আলমডাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার পুলক কুমার ম-ল বলেন, বিষয়টি আমি জানতে পেরে থানার অফিসার ইনচার্জকে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছি।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More