করোনা চিকিৎসায় ঝুঁকিতে চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা : আক্রান্ত দেড়শ

যথাযথ নিরাপত্তা সরঞ্জাম ছাড়া সেবা দিতে বাধ্য হচ্ছেন : তথ্য গোপন করে সংক্রমণ ছড়াচ্ছেন রোগীরা

স্টাফ রিপোর্টার: জীবন বাজি রেখে করোনাযুদ্ধে সামনের সারিতে থেকে কাজ করে যাচ্ছেন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা। কিন্তু যুদ্ধের মাঠে তাদের প্রয়োজনমতো সুরক্ষা সরঞ্জাম দেয়া হচ্ছে না। যথাযথ নিরাপত্তা সরঞ্জাম ছাড়াই তাদের চিকিৎসা ও সেবা দিতে বাধ্য করা হচ্ছে।
এ পরিস্থিতিতে কাজ করতে গিয়ে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালের প্রায় ৬৭ চিকিৎসক ও ৫২জন নার্সসহ দেড় শতাধিক স্বাস্থ্যকর্মী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়া অনেক রোগী কোভিড-১৯ বাহক হলেও শনাক্ত না হওয়ায় তারা চিকিৎসা নিতে গিয়ে সেবাকর্মীদের সংক্রমিত করছেন। হাসপাতালগুলোতে এখনও হয়নি ট্রায়জ (বিশেষ ব্যবস্থা যেখানে সব রোগীকে পৃথক করে চিকিৎসা দেয়া হয়) ব্যবস্থা। অনেক রোগী তথ্য গোপন করে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এসব কারণে ভয়াবহ রোগটি চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ছে।
এভাবে চলতে থাকলে স্বল্প সময়ে দেশের স্বাস্থ্যকর্মীদের একটি বড় অংশ কোভিড আক্রান্ত হয়ে পড়তে পারেন। সেটি হলে অন্য রোগীরাও প্রয়োজনীয় চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত হবেন-এমন আশঙ্কা বিশেষজ্ঞদের।
তারা বলেন, কোভিড-১৯ আক্রান্ত একজন রোগীকে চিকিৎসা দিতে গিয়েই সিলেটের এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক ডা. মঈনউদ্দিন করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন। উন্নত চিকিৎসায় ঢাকা আনার জন্য এয়ার অ্যাম্বুলেন্স চেয়েও তার জন্য পাওয়া যায়নি। এখনও হাসপাতালগুলোতে যারা সরাসরি চিকিৎসাসেবায় যুক্ত তাদের উপযুক্ত নিরাপত্তা সরঞ্জাম দেয়া হচ্ছে না।
হাসপাতালগুলোতে করা হয়নি ট্রায়জের ব্যবস্থা। অবৈজ্ঞানিকভাবে সেবা দিতে বাধ্য করা হচ্ছে চিকিৎসকদের। করোনা ওয়ার্ডের বাইরে কর্মরত নার্সদের সুরক্ষা পোশাক দেয়া হয় না। পিপিই অপ্রতুল, মাস্ক, গøাভস কম। চিকিৎসকরা বলেন আমরা নিরাপত্তাসহ সেবা দিতে চাই।
জানা গেছে, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসকদের সপ্তাহে একটি করে সার্জিক্যাল মাস্ক দেয়া হচ্ছে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের গাইনি ও অবস্ বিভাগের একজন চিকিৎসক কোভিড পজেটিভ ধরা পড়ার পরও তার সঙ্গে কাজ করেছেন অন্য ডাক্তারকে কোয়ারেন্টিনে নেয়া হয়নি। অনেক বেসরকারি হাসপাতালে একাধিক চিকিৎসক আক্রান্ত হলেও হাসপাতালগুলো লকডাউন করা হচ্ছে না।
এভাবেই চিকিৎসক ও রোগীর মাঝে রোগ ছড়িয়ে পড়েছে। দায়িত্বপালনের সময় ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মীদের রোগটিতে আক্রান্ত হওয়ার শঙ্কা থাকে। সেক্ষেত্রে সবার আগে তাদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা চিকিৎসা নিশ্চিত করতে হবে।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More