চাকরি বাঁচাতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ঢাকামুখী জনস্রোত

ফেরিগুলো যানবাহন পারাপারের পাশাপাশি যাত্রী পারাপারে খাচ্ছে হিমশিম

স্টাফ রিপোর্টার: চাকরি হারানোর ভয়ে নিন্ম আয়ের মানুষরা করোনাঝুঁকির মধ্যেই কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া ও দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ দিন দিন বেড়েই চলছে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মানুষ যেমনি যাচ্ছে ঢাকায়, তেমনি ঢাকা থেকে ঈদ সামনে রেখে ফিরতে শুরু করেছে শ্রমজীবী পরিবারের অপর সদস্যরা। লঞ্চ-স্পিডবোট বন্ধ থাকায় বাড়তি চাপ বেড়েছে ফেরিতে। ফেরিগুলো যানবাহন পারাপারের পাশাপাশি যাত্রী পারাপারে হিমশিম খাচ্ছে। এদিকে ঘাটের মানুষের যাতায়াত দেখলে মনে হয় না যে, করোনাভাইরাসের কারণে মানুষের চলাচলে আছে কোনো বাধানিষেধ। ঘাট এলাকার যাত্রীরা জানান, রোববার (আজ) থেকে ঢাকার দোকানগুলো খুলবে। আবার কিছু বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও গার্মেন্ট খোলা। চাকরি বাঁচাতেই জীবনের ঝুঁকি নিয়েই ঢাকার উদ্দেশে যাচ্ছেন তারা। গণপরিবহন না চললেও ব্যাটারিচালিত রিকশা বা অন্য কোনোভাবে অনেক বেশি ভাড়া দিয়ে তাদের যেতে হচ্ছে। পথে পথে পোহাতে হচ্ছে নানা দুর্ভোগ।
সরেজমিন শনিবার দুপুরে দৌলতদিয়া ফেরিঘাটে গিয়ে দেখা যায়, মানিকগঞ্জ জেলার পাটুরিয়া ফেরিঘাট থেকে ছেড়ে আসা ফেরিতে উঠার জন্য দৌলতদিয়া ৫নং ফেরিঘাটের পল্টুনের উপর তিন শতাধিক যাত্রী অপেক্ষায় রয়েছে। ঘাটে ফেরি ভেড়ার সঙ্গে সঙ্গে সামাজিক দূরত্ব না মেনে গাদাগাদি করে ফেরিতে উঠছেন যাত্রীরা।
কুষ্টিয়া থেকে আসা যাত্রী আবেদ হোসেন বলেন, পোশাক কারখানা খোলায় অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে ব্যাটারিচালিত অটোতে করে দৌলতদিয়া ফেরিঘাটে এসেছি। তাছাড়া কয়েকবার পথে আটকে থাকায় আমাদের ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে।
বিআইডব্লিউটিসির দৌলতদিয়া ৫নং ঘাট শাখার দায়িত্বপ্রাপ্ত টিএস নজিবুল বাসার বলেন, করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে অর্থনীতির কথা চিন্তা করে দেশ এখন অনেকটা স্বাভাবিকের পথে যাচ্ছে। দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে সীমিত আকারে বড় ২টি ও ছোট ৪টি ফেরি চলাচল করছে।
বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্পোরেশন (বিআইডব্লিউটিসির) দৌলতদিয়া ফেরিঘাটের ব্যবস্থাপক আবু আব্দুল্লাহ রনি বলেন, ইতোমধ্যে দৌলতদিয়া ঘাটে যাত্রীদের পাশাপাশি যানবাহনেরও চাপ বৃদ্ধি পেয়েছে। যে কারণে একটু ভিড় বেশি হচ্ছে।
এদিকে মাওয়া নৌ-ফাঁড়ির ইনচার্জ সিরাজুল কবীর জানান, সকালের দিকে রো-রো ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীর, ফেরি ক্যামেলিয়া, কিশোরী ও ফেরি রায়পুরায় কাঁঠালবাড়িঘাট থেকে যাত্রীবোঝাই করে ছেড়ে আসে শিমুলিয়াঘাটে। ফেরিগুলোতে অসংখ্য যাত্রী ছিলো।
ফেরি ছাড়াও ট্রলারে করে যাত্রী পারাপার হচ্ছে। তবে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় এসব যাত্রীরা যে যার মতো করে কর্মস্থলে ফিরতে শিমুলিয়া ঘাট থেকে বিকল্প ব্যবস্থায় ঢাকা ফিরছেন।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More