নুসরাতের ‘ত্রিকোণ সম্পর্ক’ নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য তসলিমার

মাথাভাঙ্গা ডেস্ক: পশ্চিমবঙ্গের সাংসদ-অভিনেত্রী নুসরাত জাহানের ব্যক্তিগত জীবনের টানাপোড়েন নিয়ে চলছে আলোচনা-সমালোচনা। বিশেষ করে তার মা হওয়ার গুঞ্জনে সন্তানের বাবা কে, তা নিয়ে সরগরম স্যোসাল মিডিয়া। তবে এরই মধ্যে খবর ছড়িয়েছে ছয় মাস ধরে নুসরাতের ফ্ল্যাটেই বেশিরভাগ থাকছেন অভিনেতা যশ দাশগুপ্ত। এদিকে স্বামী নিখিলের সঙ্গে তার আইনি বিচ্ছেদ হয়নি, যদিও দীর্ঘদিন তারা আলাদা থাকছেন। নিখিল দাবি করেছেন, নুসরাতের গর্ভের সন্তান তার নয়। যশ-নুসরাত-নিখিলের এই ত্রিকোণ সম্পর্ক নিয়ে এবার বিস্ফোরক মন্তব্য করেছেন নির্বাসিত লেখিকা তসলিমা নাসরিন।
ফেসবুকে এক পোস্টে তিনি লিখেছেন, ‘নুসরাতের খবর বেশ চোখে পড়ছে। তিনি অন্তঃসত্ত্বা। তার স্বামী নিখিল এই ব্যাপারে কিছুই জানেন না। দুজন আলাদা থাকছেন ছয় মাস হলো। তবে যশ নামে এক অভিনেতার সঙ্গে অভিনেত্রী নুসরাত প্রেম করছেন। সন্তানের পিতা বলে অনুমান করা হচ্ছে, যশকে। নিখিল নন। খবরটি আদৌ সত্যি না গুজব জানি না। তবে, এই যদি পরিস্থিতি হয়, তাহলে নিখিল আর নুসরাতের ডিভোর্স হয়ে যাওয়াই কি ভালো নয়? অচল কোনো সম্পর্ক বাদুড়ের মতো ঝুঁলিয়ে রাখার কোনো মানে হয় না। এতে দুপক্ষেরই অস্বস্তি।’
তসলিমা লিখেছেন, ‘যখন নুসরাত আর নিখিল বিয়ে করলেন, বেশ আনন্দ পেয়েছিলাম। ঠিক যেমন আনন্দ পেয়েছিলাম সৃজিত আর মিথিলার যখন বিয়ে হলো। অসাম্প্রদায়িকতায় বিশ্বাস করি বলেই দুই ধর্মের মানুষের মধ্যে বিয়ে হলে খুব স্বাভাবিক কারণেই পুলকিত হই। জাত-ধর্ম ইত্যাদি দূর করতে হলে ভিন্ন জাত আর ভিন্ন ধর্মের মানুষকে আত্মীয়তার বন্ধনে আবদ্ধ হতে হবে। এতেই হিংসে আর হানাহানিকে হটানো যাবে। কিন্তু এত চোখ জুড়োনো জুটি যে বেশিদিন সুখে থাকবে না কে জানতো!’
তিনি বলেন, ‘সেদিন ব্রাত্যর একটি ছবিতে নুসরাতকে দেখলাম। ওটিই নুসরাতের প্রথম কোনও ছবি আমার দেখা। মেয়েটি অনেকটা অ্যানজেলিনা জোলির মতো দেখতে, অভিনয়ও করে বেশ চমৎকার। নিশ্চয়ই মেয়েটি স্বনির্ভর। আসলে স্বনির্ভর এবং সচেতন হলে, আত্মবিশ্বাস এবং আত্মসম্মান যথেষ্ট থাকলে নিজের সন্তানের অভিভাবক নিজেই হওয়া যায়। নিজের সন্তানকে নিজের পরিচয়েই বড় করা যায়। পুরুষের মুখাপেক্ষী হতে হয় না। আসলে নিখিল এবং যশের মধ্যে কী এমন আর পার্থক্য! পুরুষ তো শেষ পর্যন্ত পুরুষই। একজনকে ত্যাগ করে আরেকজনকে বিয়ে করলে খুব যে সুখময় হয়ে ওঠে জীবন তা তো নয়। দ্বিতীয় বিষময় জীবন থেকে বাঁচতে তাহলে কি আবার আরেকটি বিয়ে করতে হবে? তাহলে এ রেসের শেষ হবে না, কাক্সিক্ষত পুরুষের দেখাও মিলবে না। স্বাধীনচেতা নারীর কাক্সিক্ষত পুরুষ কল্পনায় থাকে, বাস্তবে নয়।’

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More