করোনায় আক্রান্ত হলেন দর্শনা পৌর কাউন্সিলর অপু

দর্শনা অফিস: করোনা ভাইরাস দিনদিন মহামারী আকার ধারণ করছে। প্রাণঘাতী এ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিন যেন লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। এ ভাইরাস প্রতিরোধে এরই মধ্যে দর্শনার তিনটি ওয়ার্ডের বেশ কয়েকটি মহল্লাকে রেড জোন চিহ্নিত করে লকডাউন ঘোষণা দেয়া হয়েছে। এবার করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলেন দর্শনা পৌরসভার ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাহিকুল আলম অপু। অপরদিকে করোনা জয়ী হয়ে হাসপাতাল থেকে ফিরেছেন দর্শনা থানার ওসি তদন্ত শেখ মাহাবুবুর রহমানসহ আরও দুজন।

গত বৃহস্পতিবার করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হয় দর্শনা পৌর এলাকার বাসস্ট্যান্ড গোরস্থানপাড়ার খোরশেদ আলমের ছেলে ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাহিকুল আলম অপুর। গত শনিবার জানা গেছে, নমুনা পরীক্ষায় অপুর দেহে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি রয়েছে। গতকাল রোববার সকালে অপুর বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে। এছাড়া বাসস্ট্যান্ডে সোলায়মান হক করোনা উপস্বর্গ নিয়ে মারা যাওয়ার পর তার পরিবারের আরও ৩ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। যে কারণে বাসস্ট্যান্ডপাড়াকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করে লকডাউনের আওতায় আনা হয়। এছাড়া দর্শনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাসহ ১৫ পুলিশ সদস্য করোনা আক্রান্ত হলেও বর্তমানে ১৩ জনই সুস্থ। ইতোমধ্যে অফিসার ইনচার্জ মাহব্বুর রহমান কাজল কর্মস্থলে যোগদান করেছেন। পরে আরও ১০ পুলিশ সদস্য চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হয়েছে। গতকাল রোববার থানার ওসি তদন্ত শেখ মাহবুবুর রহমান ও কনস্টেবল সোলায়মান হক সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে ফিরেছেন। বিকেলে শেখ মাহবুবুর রহমান ও সোলাইমান হককে ফুলেল শুভেচ্ছাসহ অভিনন্দন জানিয়েছেন থানার ওসি মাহব্বুর রহমান কাজলসহ সকল পুলিশ সদস্য। অন্যদিকে দর্শনা পৌরসভার ২, ৫ ও ৭নং ওয়ার্ডের কয়েকটি মহল্লা রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করে লকডাউনের আওতায় আনা হয়। লকডাউন ঘোষনার পর ২-৩ দিন পুলিশি কঠোর অবস্থান দেখা গেলেও বর্তমানে ঝিমিয়ে গেছে বলেও অভিযোগ করেছে এলাকাবাসী।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More