আলমডাঙ্গায় আন্তঃজেলা বৈদ্যুতিক সেচযন্ত্রের দুইজন মোটর চোর ধরে পুলিশের হাতে তুলে দিলো কৃষকরা

আলমডাঙ্গা ব্যুরো: আলমডাঙ্গার হারদী ইউনিয়ন থেকে দুজন আন্তঃজেলা সেচযন্ত্রের মটর চোর আটক করে পুলিশের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে। ভাংবাড়িয়া ও হারদী ইউনিয়নের বিভিন্ন মাঠে প্রতিনিয়ত বৈদ্যুতিক সেচযন্ত্র চুরির ঘটনায় অতিষ্ঠ হয়ে কৃষকরা রাতে পাহারা দিয়ে ওই দুই চোরকে আটক করে পিটিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে।
জানা গেছে, আলমডাঙ্গা উপজেলার হারদী ও ভাংবাড়িয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন মাঠ থেকে প্রায় ২ সপ্তাহ ধরে বৈদ্যুতিক সেচযন্ত্রের মটর চুরির ঘটনা ঘটে চলেছে। অব্যাহত চুরির ঘটনায় অতিষ্ঠ হয়ে কৃষকরা গত কয়েক রাত ধরে পাহারা দিয়ে আসছিলেন। এরই মধ্যে ৩০ জুন ভোররাতে আলমসাধু (স্থানীয় প্রযুক্তিতে তৈরি যান্ত্রিক যানবাহন) নিয়ে দুজন প্রাগপুর মাঠের ভেতর যায়। সেখান থেকে প্রাগপুরের মৃত শাহাদত গাইনের ছেলে জালাল উদ্দীন গাইনের বৈদ্যুতিক সেচযন্ত্রের মটর খুলে গাড়িতে তোলার সময় পাহারারত অবস্থায় তাদের আটক করা হয়। আটককৃতরা হলেন কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর উপজেলার তাজপুরের হায়াত মন্ডলের ছেলে সেলিম মন্ডল (২৫) ও কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী উপজেলার খোকশার আব্দুল মান্নানের ছেলে ইমরুল হক (২৮)। সেলিম বর্তমানে কুষ্টিয়া কোর্ট এলাকায় বসবাস করেন। তাদেরকে আটকের পর গণধোলায় দিয়ে গ্রামবাসি পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছেন।
এলাকাসূত্রে জানা গেছে, গত প্রায় দুই সপ্তা ব্যবধানে ভাংবাড়িয়া ও ভাংবাড়িয়া ইউনিয়নের কয়েকটি মাঠ থেকে মোটরগুলি চুরি করা হয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রাগপুরের মৃত শাহাদত গাইনের ছেলে জালাল উদ্দীন গাইনের ১টি মোটর, হারদী গ্রাামের মৃত ইসমাইল হোসেনের ছেলে তানজিল হোসেন, একই গ্রামের আকমান আলীর ছেলে ইদের আলীর ১টি, মোড়ভাঙ্গা গ্রামের মৃত জুলমত ফকিরের ছেলে আব্দুল কাদের ফকিরের ১টি, মৃত একই গ্রামের মৃত জলিল মন্ডলের ছেলে শরিফ উদ্দীন, একই গ্রামের মৃত লুতফর ফকিরের ছেলে নাজির ফকিরের ১টি, বড়বোয়ালিয়া গ্রামের মৃত সিদ্দিক বিশ্বাসের ছেলে মিন্টু বিশ্বাসের ১টি ও একই গ্রামের সুলতান বিশ্বাসের ছেলে শফি উদ্দীন বিশ্বাসের ১টি মটরসহ এলাকার আরও কয়েক জন কৃষকের বৈদ্যূতিক সেচযন্ত্রের মটর চুরি হয়েছে।
ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক জালাল গাইন বলেন, এখন আউশ আবাদের ভরা মৌসুম। তাছাড়া আমন আবাদের তোড়জোড় শুরু হয়ে গেছে। প্রতিদিন আউশ ধানখেত, কলাখেত, পাটখেতে পানি দিতে হচ্ছে। তাছাড়া আমনের ক্ষেত তৈরি, বীজতলা তৈরিতে সেচ দিতে হচ্ছে। এমন সময় সেচযন্ত্রের মটর চুরি হওয়া কত ক্ষতিকর তা শুধু কৃষকরাই জানেন। একেকটি বৈদ্যুতিক সেচযন্ত্রের অধীনে অনেক কৃষকের জমি রয়েছে।
আলমডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ আলমগীর কবীর জানান, আটক ২ আন্তঃজেলা চোরচক্রের সদস্য। মোট ৪ দফায় তারা হারদী অঞ্চল থেকে অনেকগুলি সেচযন্ত্রের মটর চুরি করেছে বলে জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More