কবরে ফুল দিতে আসা কথিক প্রেমিককে ধরে উত্তম মধ্যম

স্টাফ রিপোর্টার: আলমডাঙ্গার ভাংবাড়িয়ায় প্রবাসীর স্ত্রীর নোট লিখে আত্মহত্যার ঘটনার মূল রহস্য উন্মোচন হয়েছে। আলমডাঙ্গা উপজেলার ভাংবাড়িয়া গ্রামের পাগলাপাড়ার কুয়েত প্রবাসী আব্দুল আলীমের স্ত্রী এক সন্তানের জননী সালমা খাতুন গলায় ওড়না পেঁচিয়ে গত বুধবার আত্মহত্যা করেন।

এলাকাসূত্রে জানা গেছে, সালমা খাতুন একই পাড়ার শহিদুল ইসলামের ছেলে সজল আহমেদের (২৮) সাথে পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে পড়ে। সালমা খাতুন গত বুধবার দিনগত রাতে সুইসাইড নোট লিখে আত্মহত্যা করেন এবং গত বৃহস্পতিবার তার মরদেহ পিতার বাড়ি গাংনী ইউনিয়নের বন্দরভিটা গ্রামে দাফন করা হয়। গতকাল শনিবার বেলা ২টার দিকে পরকীয়া প্রেমিক ভাংবাড়িয়া গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে সজল আহমেদ সালমার কবরে ফুলের মালা ও কবরস্থানের পাশে আগরবাতি জ্বালাচ্ছিলেন। এ ঘটনা স্থানীয় কয়েকজনের চোখে পড়ে। এলাকার লোকজন সজলকে ধাওয়া করলে মোটরসাইকেলযোগে তিনি সেখান থেকে সটকে পড়েন। এরপর আসমানখালী থেকে সালমার মেয়ের জন্য বিস্কুট কিনে শালিকা গ্রামে সালমার পিতা আব্দুস সালামের বাড়িতে ওঠেন। এ সময় সালমার মেয়ের হাতে বিস্কুট দিয়ে ওই বাড়িতে অবস্থান করছিলেন কথিত প্রেমিক সজল। এ সময় গ্রামবাসী তাকে ধরে উত্তম মধ্যম দেয়। পরে সজলের পিতা-মাতাকে বিষয়টি জানানোর পর তারা ভাংবাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারসহ এলাকার সুধীজনদের নিয়ে শালিকা গ্রামে এসে তাকে উদ্ধার করে নিয়ে যান।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More