ঝিনাইদহের গুচ্ছ সংবাদ

ঝিনাইদহে “আনসার আল ইসলাম’র দুই সদস্য গ্রেফতার
ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: ঝিনাইদহে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন “আনসার আল ইসলাম’র দুই সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের এন্টিটেররিজম ইউনিট (এটিইউ)। গত রোববার রাতে সদর উপজেলার সাগান্না গ্রাম থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলেন সাগান্না মঙ্গলপাড়া এলাকার মৃত আব্দুর রহমানের ছেলে ইনামুল হক (২৪) ও মসজিদপাড়া এলাকার মৃত আহম্মেদ আলীর ছেলে সিরাজুল ইসলাম (২৩)। গতকাল সোমবার দুপুরে পুলিশ সুপারের সম্মেলনকক্ষে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাতে সাগান্না গ্রামে অভিযান চালানো হয়। এসময় দুটি মোবাইল ফোন, ২৪টি সিমকার্ড, ৫টি মেমোরি কার্ড, জিহাদি বই এবং বিপুল পরিমাণ বৈদ্যুতিক তারসহ বোমা তৈরির বিভিন্ন উপাদান উদ্ধার করা হয়। গ্রেফতার করা হয় ইনামুল হক ও সিরাজুল ইসলাম নামের দুজনকে। গ্রেফতারকৃতরা পুরাতন মোবাইল ফোনের ব্যাটারী বৈদ্যুতিক তার ও বোমা তৈরির অন্য উপাদান দিয়ে শক্তিশালী বিস্ফোরক তৈরির বিষয়ে দীর্ঘদিন ধরে গবেষণা করে আসছিলো বলে জানিয়েছে এন্টি টেররিজম ইউনিট (এটিইউ)। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে তারা একে অন্যের সাথে যোগাযোগ করে আসছে। গ্রেফতারকৃতরা ইসলামী খিলাফাহ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে জিহাদী কার্যক্রমে তাদের সংশ্লিষ্টতার কথা স্বীকার করেছে।

হরিণাকু-ুতে লাটাহাম্বা ও মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে গৃহবধু নিহত
ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: ঝিনাইদহের হরিণাকু-ুতে লাটাহাম্বা (স্থানীয় ইঞ্জিনচালিত বালু ও মাটি টানা গাড়ি) ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে শিল্পী খাতুন (৪০) নামে এক নারী নিহত হয়েছেন। গতকাল সোমবার দুপুর ১২টার দিকে শহরতলীর ফলসি গ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত শিল্পী খাতুন উপজেলার ফতেপুর গ্রামের মৃত বজলুর রহমানের মেয়ে। নিহতের ভাই স্কুল শিক্ষক আব্দুল মান্নান জানান, তার বোন সোমবার সকালে আমাদের বাড়ি থেকে ছেলে শিশিরের সাথে মোটরসাইকেলযোগে নিজ বাড়ি একই উপজেলার বিন্নি গ্রামে ফিরছিলেন। তারা ফলসি গ্রামে পৌঁছুলে ইঞ্জিনচালিত লাটাহাম্বারের সাথে মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে শিল্পী খাতুন রাস্তার উপর ছিটকে পড়ে আহত হন। স্থানীয়রা শিল্পীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসার পথে মারা যান তিনি। হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. মো. আশরাফুল ইসলাম জানান, নিহতের মাথায় প্রচ- আঘাতের ফলে প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে। এতে পথেই তার মৃত্যু হয়। হরিণাকু-ু থানার ওসি মো. আব্দুর রহিম মোল্লা জানান, এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন আছে।

শৈলকুপায় শ্বশুর বাড়ি বেড়াতে এসে পানিতে ডুবে জামাইয়ের মৃত্যু
ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: জামাই এসেছেন বলে বাড়িতে সাজ সাজ রব। স্ত্রী ও শ্বাশুড়ি রান্নাবান্নায় ব্যস্ত। ছোট ছোট শ্যালক ও শ্যালিকারাও আনন্দ ফুর্তিতে মশগুল। সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসতে না আসতে আনন্দঘন পরিবেশে ছেদ পড়ে। গত রোববার বিকেলে পুকুরে গোসলে নামেন জামাই শাহ আলী (২২)। এরপর গভীর পুকুরে তার সলিল সমাধি ঘটে। এ ঘটনা ঘটেছে ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার খুলুমবাড়িয়া গ্রামে। শাহ আলী শৈলকুপা পৌর এলাকার আউশিয়া গ্রামের চাঁদ মিয়ার ছেলে।
পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, বিকালে ছোট শালিকাকে সাথে করে বাড়ির পাশে পুকুরে গোসল করতে নামেন জামাই শাহ আলী। পুকুর অনেক বড় ও গভীরতা হওয়ায় শখ করে সাঁতার দিতে গিয়ে ডুবে যান তিনি। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে গ্রাম্য চিকিৎসকের কাছে নিলে মৃত ঘোষণা করেন। শৈলকুপা থানার ওসি জাহাঙ্গীর আলম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

ঝিনাইদহের মহেশপুর সীমান্তে ২১ বোতল ডিয়ালাক্স উদ্ধার
ভারত থেকে আসছে নতুন মাদক ডিয়ালাক্স
ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: এবার ভারত থেকে আসছে নতুন মাদক ডিয়ালাক্স। এটি ফেনসিডিলের মতো উপকরণে তৈরি। ফলে সাধারণ মানুষের কাছে নতুন হলেও মাদক ব্যবসায়ী ও মাকদকাসক্তদের কাছে পরিচিত। গত ২১ আগস্ট রাত নয়টার দিকে ভারতীয় সীমান্তের ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার মাধবখালী থেকে ২১ বোতল এ ডিয়ালাক্স উদ্ধার করে মহেশপুর ৫৮ বিজিবি। এর এক মাস আগেও বিজিবি ৪৩ বোতল ডিয়ালাক্স উদ্ধার করেছিলো।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ভারতের ‘রেড্ডিস ল্যাবরেটরিজ লিমিটেড’-এর তৈরি এ সিরাপটি কফ ও ঠা-াজনিত সমস্যার জন্য তৈরি। এতে কোডিন মরফিনের মতো মাদকের উপাদান রয়েছে। ভারতে ঠা-াজনিত সমস্যার জন্য ব্যবহৃত হলেও বাংলাদেশে এটি মাদক হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। একইভাবে ঠা-া-কাশির সিরাপ ভারতীয় ফেনসিডিল মাদক হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে দীর্ঘদিন। যে কারণে বাংলাদেশে ফেনসিডিল বহন ও সেবন নিষিদ্ধ। তারপরও পুলিশ, র‌্যাব ও সীমান্তরক্ষী বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিয়ে হাজার হাজার ফেনসিডিল আসে এদেশে। এর উল্লেখযোগ্য অংশ আটকও হয়। এরইমধ্যে এক মাসের ব্যবধানে দুইবার নতুন মাদকদ্রব্য ডিয়ালাক্স আটক হওয়ায় ভাবিয়ে তুলেছে সংশ্লিষ্টদের। গত ১৯ আগস্ট ভারত সীমান্তের মহেশপুর থেকে ৪৭৫ বোতল ফেনসিডিলসহ একজনকে আটক করে জেলার গোয়েন্দা পুলিশ। এর আগে ৮ আগস্ট মহেশপুর ব্যাটালিয়ন (৫৮ বিজিবি) ৮৬ বোতল ভারতীয় মদ ও ৭ আগস্ট মহেশপুর থেকে ১৯৮ বোতল ফেনসিডিলসহ দুই মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করে। এভাবে শুধুমাত্র চলতি আগস্ট মাসের ২৩ দিনে মহেশপুর ৫৮ বিজিবি ২৫টি ছোট-বড় মাদকের চালান আটক করেছে। যার মধ্যে নতুন মাদকদ্রব্য ডিয়ালাক্স পাওয়া যায়। মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনাকারী বিজিবি ও র‌্যাবসূত্রে জানা গেছে, গত বছরের ৩ ডিসেম্বর ঝিনাইদহের ৫৮ বিজিবি ২৫ হাজার ৯১৬ বোতল ফেনসিডিল, দুই হাজার ৫০২ বোতল ভারতীয় মদ, সাড়ে তিন লিটার বাংলা মদ, ৫০ কেজি গাঁজা ও ইয়াবা ধ্বংস করে। ধ্বংস করা এসব মাদকদ্রব্য ওই বছরের এপ্রিল থেকে অক্টোবর মাস পর্যন্ত সীমান্তবর্তীসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে উদ্ধার করা হয়। ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার প্রায় ৫৭ কিলোমিটার ভারতীয় সীমান্ত রয়েছে। এরমধ্যে প্রায় ১১ কিলোমিটার রয়েছে কাঁটাতারবিহীন। ওই এলাকাজুড়ে রয়েছে কোদলা নদী। ঝিনাইদহ সীমান্তে মাটিলা, লেবুতলা, মোকদ্দাসপুর, সামান্তা, বাদ্দেরআঁটি, কচুরপোতা, বাঘাডাঙ্গা, খোসালপুর, আন্দুলিয়া, বর্নিশাহপুর, শ্রীনাথপুর, জলুলী ও যাদবপুর সীমান্ত এলাকা দিয়ে মূলত রাতের অন্ধকারে এসব মাদকদ্রব্য বাংলাদেশে ঢুকানো হয়। স্থানীয়দের মতে, প্রতিদিন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে যা আটক হচ্ছে তার থেকে ঢের বেশি মাদক সংশ্লিষ্টদের চোখ ফাঁকি দিয়ে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পৌঁছে দিচ্ছে চোরাকারবারিরা। ঝিনাইদহ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের উপপরিদর্শক আমিরুল ইসলাম জানান, ‘ডিয়ালাক্স মাদকটি আমাদের দেশে একেবারেই নতুন। যে কারণে এ সম্পর্কে না জেনে কিছু বলা যাচ্ছে না। বিস্তারিত জেনে পরে জানাবেন বলে তিনি বলেন। তবে, মহেশপুর ৫৮ বিজিবি ব্যাটালিয়নের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম খান বলছেন, ফেনসিডিলের মতো উপাদানে তৈরি হয় ডিয়ালাক্স।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More