দামুড়হুদায় নৌকা প্রার্থীর সমর্থকদের বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিতের অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী জামায়াত নেতা শরিফুল ইসলামকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিতের অভিযোগ পাওয়া গেছে। নৌকা প্রতীকের সমর্থকরা ওই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে দাবি করেছেন তিনি। ওই ঘটনায় গতকাল রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী শরিফুল ইসলাম। তিনি জেলা জামায়াতের রুকন সদস্য ও দামুড়হুদা ইউনিয়ন জামায়াতের সাবেক সভাপতি।
দামুড়হুদা ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান ও স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী শরিফুল ইসলাম মিল্টন জানান, আমি মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি। গতকাল সকালে আমার নির্বাচনী এলাকা দেউলী গ্রামের মোড়ে গণসংযোগ করছিলাম। এসময় মাসুদ রানা ভুট্টো ও শাহীনসহ ওই গ্রামের বেশ কয়েকজন আমাকে গণসংযোগ করতে নিষেধ করে। প্রচার প্রচারণা বন্ধ করতে প্রকাশ্যে হুমকি ধামকি দেয় তারা। পরে আমাকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে তারা। ওই ঘটনার পর দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাচন কমিশনের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি।
তিনি আরও জানান, আমি পরপর দুইবার দামুড়হুদা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছি। এবারও আমার জনপ্রিয়তা ভালো। আমার জনপ্রিয়তা দেখে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াতে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে নৌকা প্রার্থীর সমর্থকরা।
এ বিষয়ে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হযরত আলীর সাথে তার মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হয়। তবে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।
দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ ইসহাক বলেন, ওই ঘটনায় একটি অভিযোগ দিয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী শরিফুল ইসলাম। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এ বিষয়ে দামুড়হুদা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফেরদৌস ওয়াহিদ জানান, ওই ঘটনায় এখনও কেউ থানায় অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এদিকে, শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে দামুড়হুদার বদনপুর গ্রামে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল কাদিরের নির্বাচনী কার্যালয়ে হামলা চালান নৌকা প্রার্থীর সমর্থক আবু কাইজার পন্ডিতসহ অজ্ঞাত আরও ১০-১২জন। ওই ঘটনায় পরদিন শনিবার সকালে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দেন আব্দুল কাদির।
উল্লেখ্য, আগামী ১১ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে চুয়াডাঙ্গা দামুড়হুদা উপজেলার চারটি ও জীবননগর উপজেলার একটি ইউনিয়ন পরিষদের সাধারণ নির্বাচন।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More