বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অবস্থান

আলমডাঙ্গা ব্যুরো: আলমডাঙ্গা প্রাগপুর গ্রামের কলেজপড়–য়া প্রেমিক যুবকের বাড়িতে বিয়ের দাবিতে অনার্স পড়–য়া ১ সন্তানের জননীর অবস্থান। প্রেমিকা আসার সংবাদ শুনে বাড়ি থেকে উধাও প্রেমিক যুবক। পরে প্রেমিক যুবকের অভিভাবকরা প্রেমিকাকে বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছে । ২ আগস্ট প্রাগপুর গ্রামের মসজিদপাড়ায় এ ঘটনাটি ঘটে।
জানা গেছে, উপজেলার ভাংবাড়িয়া ইউনিয়নের বড়বোয়ালিয়া গ্রামের লিয়াকত আলীর মেয়ে ১ সন্তানের জননী আদুরী খাতুন(২৬)“র প্রায় ১০ বছর আগে মিরপুর আসাননগর গ্রামে বিয়ে হয়। বিয়ের কয়েক বছর পর আদুরী খাতুনের স্বামী রুহুল আমীন ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মারা যায়। তারপর থেকেই আদুরী তার বাবার বাড়ি বড়বোয়ালিয়া গ্রামেই বসবাস করে। সে চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজে অনার্স ভর্তি হয়। আদুরী খাতুন মাঝে মাঝেই প্রাগপুর নানা বাড়িতে যাওয়া আসা করতো। বেশ কয়েক মাস আগে তার নানা বিল্লাল গাইন ওরফে পচা গাইন মারা যায়। নানা মারা যাওয়ার পর আদুরী নানা বাড়িতে কয়েক দিন থাকাকালীন প্রাগপুর গ্রামের ইয়াসিন আলীর ছেলে এইচএসসি ২য় বর্ষের ছাত্র আব্দুস সালাম (১৮) এর সাথে পরিচয় হয়। একপর্যায়ে তাদের দুজনের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এরপর থেকে তারা দুজন প্রায়ই হাটবোয়ালিয়া বাজারে দেখা করতো। বেশ কয়েকবার তারা আদুরীর নানা বাড়িতে ও নগরবোয়ালিয়া গ্রামের আব্দুস সালামের এক বন্ধুর বাড়িতে দৈহিক সম্পর্ক করেছে বলে আদুরী দাবি করেছে। কিন্তু বেশ কিছুদিন ধরে প্রেমিক আব্দুস সালামকে বিয়ের কথা বললে সে তাতে অস্বীকৃতি জানায়। এরপর আব্দুস সালাম প্রেমিকা আদুরীর সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। কোন উপায় না পেয়ে ২ আগস্ট সোমবার সকালে সালামের বাড়িতে বিয়ের দাবিতে অবস্থান নেয় আদুরী। সংবাদ পেয়ে প্রেমিক যুবক আব্দুস সালাম বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। আব্দুস সালামের পরিবারের লোক প্রেমিকা আদুরীকে মারধর করে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। পরে সে বাড়ির সামনে একটি মাচায় অবস্থান নেয়। এ সংবাদ গ্রামে ছড়িয়ে পড়লে উৎসুক জনতা আব্দুস সালামের বাড়ির সামনে ভীড় জমায়। এ ব্যাপারে আব্দুস সালাম ও তার পরিবারের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও কেউ কথা বলতে রাজি হয়নি। এ সময় আদুরী বলেন আমাকে স্বীকৃতি না দিলে এখান থেকে আমার লাশ যাবে। এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত আদুরী খাতুন প্রেমিক আব্দুস সালামের বাড়ির সামনে মাচায় অবস্থানরত ছিল।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More