দামুড়হুদার কুঁনিয়ায় বৃষ্টির পানি নিয়ে বিরোধ : মারামারিতে উভয় পক্ষের রক্তাক্ত জখম ৩জন

দামুড়হুদা অফিস: দামুড়হুদা উপজেলার কুঁনিয়াগ্রামে বৃষ্টির পানি বাড়ির উপর দিয়ে গড়িয়ে যাওয়ায় মারামারির ঘটনায় উভয় পক্ষের ৩জন রক্তাক্ত জখম হয়েছে। রক্তাক্ত জখমকৃতরা হলো দামুড়হুদা উপজেলার কুঁনিয়াগ্রামের ইসমাইল হোসেন (৬৫),তার ছেলে ছানোয়ার হোসেন (৩৫) ও একই গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে শাহিন (৩৫)। শুক্রবার বেলা ১২টার দিকে দামুড়হুদার কুঁনিয়াগ্রামে এ মারামারির ঘটনা ঘটে।

জানাযায়,দামুড়হুদার কুঁনিয়াগ্রামের ইসমাইল হোসেনের পরিবারের সাথে দীর্ঘ দিন যাবত সিরাজুল ইসলামের পরিবারের বিরোধ চলে আসছিলো। এরই ধারাবাহিকতায় শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১ দিকে বৃষ্টি শুরু হলে ইসমাইলের বাড়ির বৃষ্টির পানি সিরাজুলের বাড়ির উপর দিয়ে গড়িয়ে যায়। বৃষ্টির পাড়ি সিরাজুলের বাড়ির উপর দিয়ে গড়িয়ে যাওয়ায় তাদের উভয় পরিবারের মধ্যে এক প্রকার তর্ক-বিতর্ক ও কথা কাটাকাটি হয়। তর্ক-বিতর্কের এক পর্যায়ে সিরাজুল ইসলামের ছেলে শাহিন একটি বাঁশের লাঠি দিয়ে ইসমাইলের মাথায় আঘাত করে। এসময় ইসমাইল রক্তাক্ত জখম হয়ে মাটিতে পড়ে যায়। তখন ইসমাইলের ছেলে ছানোয়ার দৈড়ে এসে শাহিন কে লাঠি দিয়ে আঘাত করে মারপিট করে রক্তাক্ত জখম করে । পরে শাহিনও ছানোয়ার কে আঘাত করে রক্তাক্ত জখম করে। শাহিনের আঘাতে ছানোয়ারের হাতের আঙ্গুল ফেটে যায়। ছানোয়ারের ডাক চিৎকারে স্থানীয়রা ছুটে আসলে সিরাজুল ও তার ছেলে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় ইসমাইল ও তার ছেলে ছানোয়ার কে দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করা হয়। ইসমাইলের মাথায় ৮টা সেলাই ও ছানোয়ারের হাতের আঙ্গুলে ৩টা সেলাই দেওয়া হয়। বর্তমানে তাঁরা উভয়ে দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। তবে এ ঘটনায় গতকাল শনিবার ছানোয়ার হোসেন বাদি হয়ে দামুড়হুদা মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। অপরদিকে শাহিনের পরিবারও থানায় পাল্টা অভিযোগ করবেন বলে জানা গেছে। উল্লেখ্য,মারামারির ঘটনায় রক্তাক্ত জখমকৃতরা পারিবারিক সূত্রে একে অপরের আত্মিয়স্বজন।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More