পরকীয়া : কুষ্টিয়ার প্রবাসীর স্ত্রীকে চুয়াডাঙ্গায় আটকে রাখার অভিযোগ

 

স্টাফ রিপোর্টার: সৌদি আরব প্রবাসী মুকুল হোসেনের স্ত্রী এক সন্তানের জননী সেহেনা খাতুন। স্বামী প্রবাসে থাকার কারণে পরকীয়া সম্পর্ক করেন মনিরুল ইসলাম নামের এক এনজিও কর্মীর সাথে। এরই সূত্র ধরে তাকে ফুঁসলিয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার গড়াইটুপি ইউনিয়নের গবরগাড়া গ্রামের তার দূর সম্পর্কের আত্মীয়ের বাড়িতে ৬দিন ধরে আটকে রাখে। পরে গতকাল জরুরী সেবা ৯৯৯ কল দিয়ে ভুক্তভোগী সাহায্য চাইলে তিতুদহ ক্যাম্পের এএসআই ইদ্রিস আলী সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে তাকে উদ্ধার করে। পরে তাকে এক আত্মীয়ের জিম্মায় তুলে দেয়া হয়।

জানাগেছে, কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার মালিহাদ বাজার পাড়ার  মৃত খুদিবক্সের ছেলে এনজিও কর্মী ও ১ সন্তানের জনক মনিরুল ইসলাম কুষ্টিয়া মিরপুর উপজেলার পাগলা গোপীনাথপুর গ্রামের সৌদিআরব প্রবাসী মুকুল হোসেনের স্ত্রী সেহেনা খাতুনের সাথে পরকীয়া সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। তার একটি ৮ বছরের ছেলে সন্তান রয়েছে। এরই সূত্রধরে গত বৃহস্পতিবার ওই প্রেমিকাকে ফুঁসলিয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার গড়াইটুপি ইউনিয়নের গবরগাড়া গ্রামের মৃত জামিরুল ইসলামের স্ত্রী মমতাজ খাতুনের বাড়িতে ৬ দিন ধরে আটকে রাখে। পরে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে ভুক্তভোগী সেহেনা খাতুন জরুরী সেবা ৯৯৯ ফোন দিয়ে সাহায্য চাইলে দ্রুত তিতুদহ ক্যাম্পের এএসআই ইদ্রিস আলী সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে। পরে তাকে তার দূর সম্পর্কের জামাই ছোটশলুয়া গ্রামের মৃত ইসমাইল হোসেনের ছেলে ওহাবের জিম্মায় তুলে দেয়া হয়। সেহেনা খাতুন জানান, তার সাথে আমার ৮ মাসের প্রেমের সম্পর্ক হয়। পরে আমাকে ফুঁসলিয়ে এখানে নিয়ে এসে ৬ দিন ধরে আটকে রাখে। পরে উপায়ন্তর না পেয়ে আমি ৯৯৯ ফোন করলে পুলিশ এসে আমাকে উদ্ধার করে।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More