অপহরণ ও চাঁদাবাজি মামলার ৩ আসামি জেলহাজতে

দামুড়হুদার দুলালনগর গ্রামে মেহেরপুর গোয়েন্দা পুলিশের অভিযান

স্টাফ রিপোর্টার: অপহরণ ও চাঁদাবাজি মামলার আসামি আব্দুল কুদ্দুস কুদু, শহিদুল ইসলাম এবং খায়রুল ইসলামকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। গতকাল রোববার তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। আটক আব্দুল কুদ্দুস সোনাপুর মালিথাপাড়ার হায়ার আলীর ছেলে, শহিদুল একই গ্রামের ইসমাইলের ছেলে এবং খায়রুল ইসলাম চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলার দুলালনগর গ্রামের জামাল উদ্দিনের ছেলে।
মামলার বিবরণে জানা গেছে, গত ১ এপ্রিল রাতে মুজিবনগর উপজেলার গোপালনগর গ্রামের শাহাবুদ্দিন শেখের ছেলে আব্দুল মালেক ও তার ভাই রফিকুল ইসলাম তাদের জমিতে সেচ দিচ্ছিলেন। ওই সময় ১০/১৫ জনের একদল অপহরণকারী তাদের অপহরণ করে এবং পরে মুক্তিপণের বিনিময়ে তাদেরকে ছেড়ে দেয়া হয়। ওই ঘটনার পর আব্দুল মালেক বাদী হয়ে মুজিবনগর থানায় ধারা-৩৬৫/৩৮৫/৩৮৬ পেনাল কোড-এ একটি মামলা দায়ের করেন। পরে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মুজিবনগর থানা পুলিশ পরিদর্শক শরিফুল ইসলাম, জেলা গোয়েন্দা শাখা মেহেরপুর এবং সাইবার ক্রাইম ইউনিট মেহেরপুরের সমন্বয়ে গঠিত টিম বিভিন্ন তথ্য প্রমাণ সংগ্রহ করে এবং ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে আব্দুল কুদ্দুস কুদু, শহিদুল ইসলাম এবং খায়রুল ইসলামকে গ্রেফতার করে।
পরে আটক ব্যক্তিদের আদালতে নেয়া হলে তারা ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে বলেন পুলিশ জানায়। এদিকে এ ঘটনার পর রোববার বিকেলের দিকে মুজিবনগর থানা পুলিশের উদ্যোগে ব্রিফিং করা হয়। ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, ঘটনার সাথে জড়িত থাকার বিষয়টি অকপটে স্বীকার করে এবং তারা স্বেচ্ছায় বিজ্ঞ আদালতে ফৌ.কা.বি. ১৬৪ ধারা মোতাবেক স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন। আসামিরা ঘটনার সাথে জড়িত অপরাপর সহযোগী আসামিদের সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্যাদি প্রদান করে। আসামিদের প্রদত্ত তথ্যাদি সতর্কভাবে যাচাই বাছাই সহ ঘটনার সাথে জড়িত অন্যান্য পলাতক সহযোগী আসামিদের গ্রেফতারের জন্য জোর প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখা হয়েছে বলে প্রেস ব্রিফিংয়ে জানানো হয়।

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More