অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশে কোনো সাম্প্রদায়িক বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির সুযোগ নেই

দর্শনায় সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় ও উপহার বিতরণকালে এমপি টগর

দর্শনা অফিস: সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের প্রয়াত সদস্যদের আত্মার শান্তি কামনা এবং তার সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিনের শুভেচ্ছা ও দীর্ঘায়ু কামনা করে চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আ.লীগের সহ-সভাপতি হাজি আলী আজগার টগর বলেছেন, অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশে কোনো সাম্প্রদায়িক বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি বা দাঙ্গা করার সুযোগ নেই। সাম্প্রদায়িক অপশক্তির বিষদাত ভেঙে দিয়েছে আওয়ামী লীগ সরকার। এখন দেশে সাম্প্রদায়িক কোনো দাঙ্গা নেই। সকল ধর্মের মানুষের মিলনে আমরা বাঙালী আজ এক বাংলাদেশ। চুয়াডাঙ্গার দর্শনা ডাকবাংলো অডিটোরিয়ামে গতকাল বুধবার বিকেলে আয়োজিত শারদীয় দুর্গাপূজা উৎসব উপলক্ষে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় ও উপহার বিতরণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সাথে শারদীয় দুর্গাপূজার শুভেচ্ছা বিনিময়কালে তিনি আরও বলেন, ধর্ম যার যার উৎসব সবার। অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশে সব মানুষের সমান অধিকার। কোনো অপশক্তি যেনো কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটাতে না পারে সেদিকে আমাদের লক্ষ্য রাখতে হবে। আমার নির্বাচনী এলাকার সব মন্দিরে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে ও নিরাপত্তা জোরদার করতে সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে জীবননগর উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে পূজাম-পে সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপনের জন্য আর্থিক সহায়তা দেয়া হয়েছে। প্রত্যেকটি পূজাম-পে নিরাপত্তা নিশ্চিতে আমিও সার্বিক সহযোগিতা করবো। এক সময় এ অঞ্চলে পূজাম-পের সংখ্যা অনেক কম ছিলো। হিন্দু ধর্মালম্বীরা পূজা উৎযাপন করতে ভয় পেতো, এখন আর সেই ভয় নেই। তাই ম-পের সংখ্যাও অনেক বেড়েছে। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর আমার নির্বাচনী এলাকার পূজা মন্দিরগুলোর অবকাঠামোগত উন্নয়ন হয়েছে। সংসদ সদস্য বলেন, ধর্ম যার যার উৎসব সবার। তাই শুধু দুর্গাপূজা নয়, আগামীতে পবিত্র ঈদেও সনাতন ধর্মাবলম্বীদের উপহার দেয়া হবে। তাহলে মানুষের সাথে মানুষের সামাজিক সম্প্রীতি বাড়বে। সম্পর্ক মজবুত হবে। তবে, সব ধর্মের প্রতি আমাদের প্রত্যেকের শ্রদ্ধাশীল হওয়া উচিত।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি হাজি আলী আজগার টগর। দর্শনা পৌর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও দর্শনা নাগরিক কমিটির সদস্য সচিব গোলাম ফারুক আরিফের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি পুলিশ সুপার আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য তার নির্বাচনী এলাকায় মন্দিরগুলোর অবকাঠামোগত উন্নয়ন করেছেন। শুধু তাই নয়, মন্দিরের নিরাপত্তা নিশ্চিতে সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করে দেয়ার যে প্রতিশ্রুতি তিনি দিয়েছেন তা প্রশংসার দাবিদার। প্রতি বছরের মতো এবারও জেলার মন্দিরগুলোতে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেছে চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশ। কোনো গুজবে কান না দিয়ে সরাসরি পুলিশের সাথে কথা বলতে হবে। তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করতে সকলকে আহ্বান জানান পুলিশ সুপার।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সাজিয়া আফরিন, জীবননগর উপজেলা চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান, জীবননগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম, দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সানজিদা বেগম, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মাজহারুল ইসলাম, দামুড়হুদা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক জেলা পরিষদের প্রশাসক মাহফুজুর রহমান মনজু, দামুড়হুদা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সভাপতি ও দৈনিক মাথাভাঙ্গার সম্পাদক-প্রকাশক সরদার আল আমিন, বাংলাদেশ পূজা উৎযাপন পরিষদ চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক কিশোর কুমার কু-ু, জীবননগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আবু মোহাম্মদ আব্দুল লতিফ অমল ও জীবননগর উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আয়েশা সুলতানা লাকী।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন জীবননগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম, জীবনগর পৌর মেয়র রফিকুল ইসলাম, দামুড়হুদা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফেরদৌস ওয়াহিদ, দর্শনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এএইচএম লুৎফুল কবীর, জীবননগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল খালেক, দামুড়হুদা সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হযরত আলী, কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল করিম বিশ্বাস, গড়াইটুপি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান রাজু, নতিপোতা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইয়ামিন আলী, দামুড়হুদা সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিউল কবীর ইউসুফ, জুড়ানপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট রেজাউল হক রেজা, সাধারণ সম্পাদক আবু তালেব, নতিপোতা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোমিনুল হক, নাটুদহ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম, রায়পুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মির্জা তাহাজ্জত হোসেন, দামুড়হুদা উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আব্দুল হান্নান ছোট, দামুড়হুদা উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাজু আহমেদ রিংকু, বাংলাদেশ পূজা উৎযাপন পরিষদ জীবননগর উপজেলা শাখার আহ্বায়ক জীবন সেন, সদস্য সচিব প্রশান্ত কুমার, বাংলাদেশ পূজা উৎযাপন পরিষদ দামুড়হুদা উপজেলা শাখার আহ্বায়ক আনন্দ কুমার ঘোষ, সদস্য সচিব সনজয় হালদার, হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রীস্ট্রান ঐক্য পরিষদ দামুড়হুদা উপজেলা শাখার সভাপতি উত্তম রঞ্জন দেবনাথ, বাংলাদেশ দলিত পরিষদ চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার সভাপতি শোভন দাসসহ সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকবৃন্দ।

পরে চুয়াডাঙ্গা-২ নির্বাচনী এলাকার জীবননগর, দামুড়হুদা ও চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার গড়াইটুপি, বেগমপুর, নেহালপুর ইউনিয়নের ৫৮টি পূজা ম-পের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের হাতে নিজস্ব তহবিল থেকে আর্থিক সহায়তা, বস্ত্র ও উপহার সামগ্রী তুলে দেন এমপি টগর।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More