আলমডাঙ্গা পৌরসভা নির্বাচনে ৩ মেয়র প্রার্থী হলফনামা

সবেদ আলী ৮ কোটি মীর মহি ৫০ লাখ এবং গনু’র ১৫ লাখ টাকা ব্যাংক ঋণ

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা পৌরসভা নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মো. সবেদ আলী ব্যাংক ঋণে শীর্ষে ৮ কোটি টাকা, বিএনপি প্রার্থী ৫০ লাখ টাকা এবং আওয়ামী লীগ প্রার্থী ১৫ লাখ টাকা ব্যাংকে দায়দেনা রয়েছে। নির্বাচন কমিশনে জমা দেয়া প্রদত্ত হলফনামায় মেয়র প্রার্থীরা এসব তথ্য দিয়েছেন। আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি রোববার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

আলমডাঙ্গা পৌরসভা নির্বাচনে ভোটার সংখ্যা ২৮ হাজার ৬৮। এর মধ্যে পুরুষ ১২ হাজার ৭৫৪ জন এবং মহিলা ১৩ হাজার ৫৫৮ জন। পুরুষের চেয়ে মহিলা ভোটারের সংখ্যা ৯০৪ জন বেশি। মেয়র নির্বাচনে মোট তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন বর্তমান মেয়র আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হাসান কাদির গনু (নৌকা), বিএনপি মনোনীত প্রার্থী সাবেক মেয়র মীর মহিউদ্দিন (ধানের শীষ) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক মেয়র মো. সবেদ আলী ।

নির্বাচনী হলফনামা মেয়র প্রার্থী হাসান কাদির গনু এইচএসসি পাস। তার নামে কোনো মামলা নেই। তার বাড়ি/দোকান ভাড়া থেকে আয় ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা, পৌরসভার মেয়র হিসেবে সম্মানী ৪ লাখ ৮০ হাজার টাকা, নগদ আছে ৭ হাজার ৭৮১ টাকা, ব্যাংকে আছে ৭৫ হাজার ২১৯ টাকা, স্বর্ণ ১০ ভরি, ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী ৫০ হাজার টাকা, আসবাবপত্র ২০ হাজার টাকা, অন্যান্য ব্যাবসায় ২২ লাখ ২০ হাজার টাকা, কৃষি জমি ৬০ শতক, অকৃষি জমি ১ দশমিক ৭৩০ একর জমি, পৈত্রিক ২টি বাড়ি, ২টি পুকুর, কৃষি ব্যাংকে দেনা ১৫ লাখ টাকা এবং নির্বাচনী ব্যয় ১ লাখ ৭০ হাজার টাকা।

হলফনামায় মেয়র প্রার্থী মীর মহি উদ্দিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স পাস (এম.এ)। তার নামে ২টি মামলা আছে। এর মধ্যে ১টি মামলা স্থগিত আছে। বাড়ি ভাড়া থেকে আয় ৫৪ হাজার টাকা, ব্যবসা থেকে আয় ৩ লাখ ৪৬ হাজার টাকা, নগদ আছে ১৫ লাখ এবং স্ত্রীর নামে ১০ লাখ টাকা, ব্যাংকে আছে ১২ লাখ টাকা, মোটরসাইকেল ১টি এবং জীপ গাড়ি ১টি, স্বর্র্ণ ৫ ভরি স্ত্রীর নামে, ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী ও আসবাবপত্র আছে, কৃষি জমি ৫বিঘা ও স্ত্রীর নামে ২ বিঘা, অকৃষি জমি ২বিঘা, বাণিজ্যিক গোডাউন ১টি, বাড়ি ৩টি ও ফ্লাট ১টি, পূবালী ব্যাংকে ঋণের পরিমাণ ৫০ লাখ টাকা এবং নির্বাচনী ব্যয় ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা।

হলফনামায় মেয়র প্রার্থী মো. সবেদ আলী এইচএসসি পাস। তার নামে কোনো মামলা নেই। কৃষি থেকে আয় ২০ হাজার টাকা, বাড়ি ভাড়া ১ লাখ ৩২ হাজার টাকা, মজুদ মাল ২ লাখ ৫৮ হাজার টাকা, চাকরি থেকে অবসরভাতা ১ লাখ ৩২ হাজার টাকা, নগদ আছে ৫ লাখ ৪১ হাজার টাকা এবং স্ত্রীর নামে ৪৩ লাখ ৮৪ হাজার টাকা, ব্যাংকে আছে ১ হাজার ৫০০ টাকা, মোটর সাইকেল ১টি, স্বর্ণ ১০ ভরি এবং স্ত্রীর নামে ৩০ ভরি, ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী ৬৫ হাজার টাকা এবং স্ত্রীর নামে ৮৫ হাজার টাকা, আসবাবপত্র ৪০ হাজার টাকা এবং স্ত্রীর নামে ৫৫ হাজার টাকা, কৃষি জমি ১ একর ১৭ শতক, অকৃষি জমি ৪৬ শতক, রুপালী ব্যাংকে দেনা ৮ কোটি টাকা (যৌথ) এবং নির্বাচনী ব্যয় ১ লাখ ৯০ হাজার টাকা।

চুয়াডাঙ্গা জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও আলমডাঙ্গা পৌরসভা নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা তারেক আহমেমদ বলেন, নির্বাচনী হলফনামায় কেউ যদি অসত্য তথ্য প্রদান করেন, নির্বাচনের পরও নির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে নির্বাচন কমিশন আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করতে পারবে।

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More