কবির কবিতা ও গানের জনপ্রিয়তা বাংলাভাষী পাঠকের মধ্যে তুঙ্গস্পর্শী

কার্পাসডাঙ্গায় কবি নজরুলের জন্মবার্ষিকীর আলোচনাসভায় সাবেক সচিব আব্দুস সামাদ

রতন বিশ্বাস: জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৩ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ২য় দিনে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টার দিকে কার্পাসডাঙ্গা হাইস্কুল মাঠে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে ও সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সার্বিক সহযোগিতায় আলোচনাসভায় জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আমিনুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সাবেক সিনিয়র সচিব মো. আব্দুস সামাদ। প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে আরো বলেন, নজরুল কিভাবে পরাধীনতার শৃঙ্খল থেকে মুক্তি আনতে হবে তা তিনি দেখে দিয়ে গেছেন। জ্ঞান বিকাশের ক্ষেত্রে নজরুল রচনাবলী এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। শিক্ষার্থীরা নজরুল বই পড়ে মানবতা সম্বন্ধে ধারণা লাভ করে। স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামকে কলকাতা থেকে সপরিবারে বাংলাদেশে নিয়ে আসেন। রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বাংলাদেশে তার বসবাসের ব্যবস্থা করেন। ১৯৭৬ সালে তাকে বাংলাদেশের জাতীয়তা প্রদান করা হয়। ধানমন্ডিতে কবির জন্য একটি বাড়ি প্রদান করেন। এখানেই তিনি মৃত্যুবরণ করেন। কার্পাসডাঙ্গা এলাকা কবি নজরুল ইসলামের নামে সকলে চিনবে। কবি নজরুল একজন আন্তর্জাতিক কবি। তিনি ছিলেন বহু গুণের অধিকারী।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের আলি মুনছুর বাবু, উপজেলা নির্বাহী অফিসার সানজিদা বেগম, চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজের বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মুন্সি আবু সাইফ, কার্পাসডাঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল করিম বিশ্বাস, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. শফিক উর রহমান। প্রধান আলোচক ছিলেন অগ্নিবীণার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি কবি ও সাংবাদিক এইচ. এম সিরাজ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন নজরুল স্মৃতি সংসদের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম। অনুষ্ঠানটির সঞ্চালনায় ছিলেন জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সহকারী কমিশনার মো. হাবিবুর রহমান। এসময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সাজিয়া আফরিন, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আরাফাত রহমান, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুদীপ্ত কুমার সিংহ, জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার বিএম তারিকুজ্জামান, সহকারী কমিশনার হাবিবুর রহমান, সহকারী কমিশনার জাকির হোসেন, সহকারী কমিশনার মো. সাদাত হোসেন, সহকারী কমিশনার নজরুল ইসলাম, উপজেলা শিক্ষা অফিসার সাকি সালাম, কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নজির আহম্মেদ, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সালাম বিশ্বাস, সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদুর রহমান মুকুল, আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল হালিম, কার্পাসডাঙ্গা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ মো. হামিদুল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা নূর ইসলাম, হেয়ার প্রসেসিং সভাপতি শহিদ বিশ্বাস, কবি আকলিমা খাতুন, শিল্পী নিশাত শারমিন সোনিয়া, শিল্পী রঘুনাথ পাল, সাংস্কৃতিক ব্যক্তি আপেল হোসেন, জালাল উদ্দিন, সকল ইউপি সদস্য, যুবলীগ নেতা মোস্তাফিজ কচি, বখতিয়ার খলজি বকুল, ছাত্রলীগ নেতা কামরুজ্জামান রানা বিশ্বাস, সানাউল কবির শিরিন, তুহিন আক্তার, সুলতান মাহমুদ, ফয়সাল, পিকে সেলিম, প্রিন্স সাজ্জাদ, মানিক, শিবলু, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকবৃন্দ, শিল্পীবৃন্দ প্রমুখ। আলোচনাসভা শেষে সন্ধ্যার পরে জেলা শিল্পকলা একাডেমি ও স্থানীয় সাংস্কৃতিক সংগঠনসমূহের আয়োজনে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More