খুলনায় এক সপ্তাহের কঠোর লকডাউন

খুলনায় এক সপ্তাহের কঠোর লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। আগামী মঙ্গলবার থেকে পরবর্তী সাতদিন জেলা ও মহানগরে এ কঠোর লকডাউন পালন করা হবে। শনিবার দুপুরে খুলনা জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এসময় নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য, কাঁচামাল ওষুধ বহনকারী যানবাহন ব্যতীত কোনো গণপরিবহণ খুলনায় প্রবেশ করতে বা বের হতে পারবে না।
করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যু হার আশঙ্কাজনকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। আগামীকাল রোববার ও সোমবার পূর্বনির্ধারিত কঠোর বিধিনিষেধ অব্যাহত থাকবে। করোনাভাইরাস প্রতিরোধ সংক্রান্ত জেলা ও মহানগর কমিটির সভায় সভাপতির বক্তৃতায় জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন এ সিদ্ধান্ত জানান। জেলা প্রশাসক আরও জানান, খুলনা জেনারেল হাসপাতালকে ৭০ শয্যার করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে রূপান্তর করা হয়েছে। এটি আগামীকাল থেকে চালু হবে। করোনা শনাক্তে নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা বৃদ্ধি করা হবে। সপ্তাহব্যাপী কঠোর বিধিনিষেধ চলাকালে নগরীতে জনপ্রতিনিধিদের সমন্বয়ে ওয়ার্ড ভিত্তিক কমিটির মাধ্যমে বিধিনিষেধ বাস্তবায়ন নিশ্চিত করা হবে। কঠোর লকডাউন বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য শিগগিরই গণবিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে সবাই অবহিত করা হবে। মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করতে মোবাইলকোর্টের মাধ্যমে জরিমানা আদায়, স্বাস্থ্যবিধি পালনে মনিটরিং জোরদার করা এবং প্রয়োজন ছাড়া বাইরে বের না হতে প্রচার-প্রচারণা চলমান থাকবে। সভায় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব (সমন্বয় ও সংস্কার) মো. কামাল হোসেন এবং খুলনার বিভাগীয় কমিশনার মো. ইসমাইল হোসেন, বিভাগীয় স্বাস্থ্য দপ্তরের পরিচালক ডা. রাশেদা সুলতানা ও সিভিল সার্জন ডা. নিয়াজ মোহাম্মদ অনলাইনে যুক্ত ছিলেন।
সভায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে খুলনার অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম) এসএম ফজলুর রহমান, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাহবুব হাসান, খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. রবিউল হাসান, মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ ডা. মেহেদী নেওয়াজ, জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক মো. ইকবাল হোসেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. ইউসুপ আলী, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পদক এমডিএ বাবুল রানা, ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. শেখ মোহাম্মদ কামাল হোসেন, খুলনা প্রেসক্লাবের সভাপতি এসএম জাহিদ হোসেন, সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মুন্সি মো. মাহবুব আলাম সোহাগ, সরকারি কর্মকর্তা, কমিটির সদস্যসহ গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More