গাংনীতে স্বামীর পর স্ত্রীসহ একমাসের শিশুও আক্রান্ত

চুয়াডাঙ্গায় আসেনি নতুন রিপোর্ট : নতুন ৫ জনসহ ১৮৯ জন সুস্থ
স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গার নমুনা পরীক্ষার নতুন কোনো ফল পাওয়া যায়নি। গতকাল শনিবার নতুন রিপোর্ট না এলেও শুক্রবারের রিপোর্ট অনুযায়ী জেলায় সুস্থ হয়েছেন আরও ৫ জন। করোনার উপস্থিতি পরীক্ষার জন্য গতকাল আরও ৩৪ জনের নমুনা সংগ্রহ করে কুষ্টিয়া পিসিআর ল্যাবে পাঠানো হয়েছে। নতুন রিপোর্ট না আসায় চুয়াডাঙ্গা জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা ২৯২ জনেই রয়েছে। তবে নতুন পাঁচজনসহ সুস্থ হয়েছেন মোট ১৮৯ জন। এদিকে, একশ’ ছাড়িয়েছে মেহেপুরের করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। গতকাল শনিবার গাংনীর একই পরিবারের দুজন শনাক্তের পর জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ায় ১০১ জনে।
গাংনী প্রতিনিধি জানিয়েছেন, গাংনীর সাহেবনগর গ্রামে মা ও এক মাস বয়সী শিশুর করোনা শনাক্ত হয়েছে। করোনাভাইরাস আক্রান্ত স্বামীর সংস্পর্শে থেকে তার স্ত্রী ও এক মাসের শিশুপুত্র করোনা ভাইরাস সংক্রমিত হয়েছেন। গতকাল শনিবার বিকেল পূর্ব ২৪ ঘন্টায় মেহেরপুর জেলার ৪টি নমুনা পরীক্ষায় একই পরিবারের এ দু’জন কোভিড-১৯ পজিটিভ বলে সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা গেছে। এ নিয়ে জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা একশ’ ছাড়ালো। মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১০১। সুস্থ হয়েছেন ৫৭ জন।
সিভিল সার্জন অফিস সুত্রে জানা গেছে, গেল ৭ জুলাই গাংনী উপজেলার চরগোয়ালগ্রামের এক ব্যক্তি কোভিড-১৯ পজিটিভ হন। তিনি একটি ওষুধ কোম্পানীর প্রতিনিধি। আক্রান্ত অবস্থায় তিনি স্বপরিবারে সাহেবনগর গ্রামের শ্বশুরবাড়িতে অবস্থান করছিলেন। সেখানে তার সংস্পর্শে আসা পরিবারের লোকজনের নমুনা সংগ্রহ করে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে ওই ব্যক্তির শিশু পুত্র আর স্ত্রী কোভিড-১৯ পজিটিভ। তবে আক্রান্ত মা ও তার শিশুপুত্র সুস্থ আছেন বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ। এদিকে আজ পর্যন্ত জেলায় মোট আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে ১০১ আর সুস্থ ৫২ জন। আক্রান্তের মধ্যে সদরে ৫২, গাংনী ৪১ ও মুজিবনগরে ৮। সুস্থদের মধ্যে সদরে ৩৫, গাংনী ১৯ ও মুজিবনগরে ৩ জন। এ পর্যন্ত মৃত্যুবরণ করেছেন ৬ জন। আক্রান্ত অবস্থায় একজন আর বাকিরা মৃত্যুর পর কোভিড-১৯ পজিটিভ হন।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More