চলে গেলেন চুয়াডাঙ্গার দ্রোহের কবি অমিতাভ মীর

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গার খ্যাতিমান সাহিত্যিক দ্রোহের কবি অমিতাভ মীর আর নেই (ইন্নালিল্লাহে …. রাজেউন)। গত রোববার দিনগত রাত পৌনে ৩টার দিকে ঢাকার আহসানিয়া মিশন ক্যান্সার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। গতকাল সোমবার বাদ জোহর রাজধানীর মিরপুরস্থ কালসি গোরস্তানে তাকে দাফন করা হয়েছে। কবি অমিতাভ মীর ছিলেন চুয়াডাঙ্গা শেখপাড়ার প্রয়াত আবুল হোসেন মোল্লার ছেলে এবং চুয়াডাঙ্গা সাহিত্য পরিষদের সহ-সাধারণ সম্পাদক। তার মৃত্যুতে চুয়াডাঙ্গা সাহিত্য পরিষদ গভীর শোক প্রকাশ করেছে।
সাম্যবাদী জীবন দর্শন ও দ্রোহের কবি হিসেবে পরিচিত ছিলেন অমিতাভ মীর। এপার বাংলা ওপার বাংলার অসংখ্য কবি-সাহিত্যিকের সঙ্গে তার নিবিড় সম্পর্ক ছিলো। বছরখানেক আগে কবি অমিতাভ মীরের শরীরে ক্যান্সার ধরা পড়ে। সেই থেকে তিনি চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। শারীরিক অবস্থা যা-ই থাকুক মনোবলে তিনি ছিলেন অটুট। তিনি রাজধানী ঢাকায় জন্মগ্রহণ করলেও চুয়াডাঙ্গায় বসবাস করতেন। সম্প্রতি তার সম্পাদনায় প্রকাশিত হয় ১৪ কবির যৌথ কাব্যসংকলন ‘লকডাউন’। এই কাব্যগ্রন্থে প্রতি কবির জীবনবৃত্তান্তসহ ১০টি করে কবিতা সংকলিত হয়েছে। ওই কাব্যগ্রন্থের ১৪ কবির মধ্যে চুয়াডাঙ্গারই আছেন ৮ কবি। একজন ভারতের কবি ও বাকি ৫ জন দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বসবাসরত বরেণ্য কবি।
কবি অমিতাভ মীরের আকস্মিক ও অকাল মৃত্যুর খবর চুয়াডাঙ্গায় ছড়িয়ে পড়লে জেলার কবি-সাহিত্যিকদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। তার অকালপ্রয়াণে চুয়াডাঙ্গা সাহিত্য পরিষদের সভাপতি কবি নজমুল হেলাল ও সাধারণ সম্পাদক নজির আহমেদ যুক্তস্বাক্ষরিত এক শোকবার্তায় জানিয়েছেন, কবি অমিতাভ মীরের মৃত্যুতে চুয়াডাঙ্গা সাহিত্য পরিষদ পরিবার গভীরভাবে শোকাহত। আমরা তার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনাসহ শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।’ একই রকম শোক জানিয়েছেন দৈনিক মাথাভাঙ্গার বার্তা সম্পাদক আহাদ আলী মোল্লা।

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More