চুয়াডাঙ্গার কুলপালাস্থ জাকিরের হাঁস খামার পরিদর্শনে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব

স্টাফ রিপোর্টার: মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সুবোল বোস মনি বলেছেন, আমাদের দেশে কৃষি পর্যটনের বিকাশ ঘটেছে। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ও এদিক থেকে পিছিয়ে নেই। চুয়াডাঙ্গার হাঁস খামারি জাকির হোসেন প্রাণিসম্পদের যে প্রসার ঘটিয়েছেন তা অনুসরণযোগ্য। গত শুক্রবার দিনব্যাপী চুয়াডাঙ্গার কুলপালাস্থ জাকির অ্যান্ড ব্রাদার্স মিক্সড এগ্রো ফার্ম অ্যান্ড হ্যাচারি পরিদর্শনের সময় তিনি এ মন্তব্য করেন।

চুয়াডাঙ্গার সফল হাঁস খামারি জাকির হোসেন আজ সারাদেশে এক সাফল্যের নাম। তার সাফল্য নিজে চোখে দেখতে গত ৫ মার্চ শুক্রবার কুলপালাস্থ জাকিরের মিক্সড এগ্রো ফার্ম অ্যান্ড হ্যাচারিতে কয়েক ঘণ্টা সময় কাটান মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সুবোল বোস মনি, চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার, পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম, জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. গোলাম মোস্তফা, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা দীপক কুমার পাল, পরিবেশ অধিদফতর (কুষ্টিয়া জোন) এর উপ-পরিচালক মো. আতাউর রহমানসহ প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দ।

মিক্সড এগ্রো ফার্ম পরিদর্শন শেষে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার এর ভুয়সী প্রশংসা করে বলেন, জাকির হোসেনের এ প্রকল্প বেকার যুবকদের কৃষি উদ্যোক্তা হতে উৎসাহী করবে। অতিথিরা প্রকল্পের হাঁসের বাচ্চা ফুটানোর হ্যাচারি, মাছচাষ, মাচায় ছাগল ও ভেড়া পালন, বিভিন্ন প্রজাতির গৃহপালিত পাখির খামার ঘুরে দেখেন।

খামারের চেয়ারম্যান মো. আব্দুল কাদের ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক জাকির হোসেন জানান, প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আগ্রহী খামারি ও দর্শনার্থী জাকির অ্যান্ড ব্রাদার্স মিক্সড এগ্রো ফার্ম অ্যান্ড হ্যাচারিতে আসেন। কিন্তু সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তাদের এ সফর আমাদের জন্য অবশ্যই প্রেরণার। এভাবেই একদিন সারাদেশে এ খামারের নাম ও সাফল্য ছড়িয়ে পড়বে।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More