চুয়াডাঙ্গার গড়াইটুপি ইউপি নির্বাচন : চেয়ারম্যান পদে ৫ জন প্রতিদ্বন্দ্বীতা করলেও লড়াই হবে ত্রিমুখী

নজরুল ইসলাম: নির্বাচন মানেই ভোটারদের কাছে উৎসব। আর এ উৎসব যে যার সামর্থ মতো পালন করে থাকে। নবগঠিত গড়াইটুপি ইউনিয়নে ভোটের কারণে পালিত হচ্ছে উৎসব। ভোটের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে প্রার্থীদের মধ্যে ততই বাড়ছে ব্যস্ততা। নাওয়া খাওয়া ছেড়ে রাতের ঘুম হারাম করে ছুটছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। করছেন কুশল বিনিময়, চাইছেন দোয়া, প্রার্থনা করছেন ভোট। ভোটারদের মন জয় করতে প্রার্থীরা অবলম্বন করেছেন নানা কৌশল। সেই সাথে ইউনিয়ন জুড়ে লক্ষ্য করা যাচ্ছে নির্বাচনমুখী মানুষের ভীড়। কাকে বসাবেন ক্ষমতার সিংহাসনে তা নিয়েও যোগ বিয়োগ কষছেন ভোটাররা। তবে ভোটের মাঠে জোর গুঞ্জন রয়েছে চেয়ারম্যান পদে ৫ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করলেও মূলত লড়াই হবে ত্রিমুখী। আবার ভোটের মাঠের হিসাব নিকাশ সবসময় মেলেনা বলেও অনেকেই মন্তব্য করেছেন। তবে প্রত্যেক প্রার্থীই নিজের জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী।

২০ অক্টোবর চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার নবগঠিত গড়াইটুপি ইউপি নির্বাচন। এ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ইউনিয়ন এলাকায় চলছে উৎসব। সে উৎসবের চুড়ান্ত রূপ নিতে আর মাত্র বাকি আছে ৩ দিন। ভোটের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে প্রার্থীদের মধ্যে ততই বাড়ছে ব্যস্ততা। নাওয়া খাওয়া ছেড়ে রাতের ঘুম হারাম করে ছুটছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। করছেন কুশল বিনিময়, চাইছেন দোয়া, প্রার্থনা করছেন ভোট। ভোটারদের মন জয় করতে প্রার্থীরা অবলম্বন করেছেন নানা কৌশল। খুঁজে বের করা হচ্ছে নিকট ও দূরের আত্মীয়দের। কারণে অকারণে খোঁজখবর নেয়ার সুযোগে চাইছেন দোয়া ও ভোট। আর ইউনিয়নের চায়ের দোকনগুলোতে বিকেল হতে না হতেই ভীড় জমাচ্ছে ভোটাররা। প্রার্থী কিংবা তাদের প্রতিনিধিদের আসার অপেক্ষায় কানখাড়া করে প্রতিক্ষার প্রহর গুনছে তারা। স্থানীয় নির্বাচন দলীয় আদলে হওয়ায় দলীয় প্রতীক দিয়ে প্রার্থী নির্ধারণ করেছে দলগুলো। সেক্ষেত্রে ভোটারদের মধ্যে দলীয় একটি হিসাব-নিকাশ তো থেকেই যায়। কারণ এর সাথে দলীয় রাজনীতি ওতোপ্রোতভাবে জড়িত। তাই দলীয় নেতা কর্মী এবং সমর্থকদের ভোট দলের প্রার্থীরা পেয়ে থাকেন। নির্বাচনের মাঠে শুধু দলীয় প্রার্থীই থাকে তা নয় স্বতন্ত্র কিংবা বিদ্রোহী প্রার্থীরাও থাকে। সেক্ষেত্রে ভোটারদের পড়তে হয় বেকায়দায়। তবে স্থানীয় নির্বাচনে প্রার্থীর অনেক কিছু বিশ্লেষণ করে ভোট দিয়ে থাকেন ভোটাররা। এরই ধারাবাহিকতায় গড়াইটুপি ইউপি নির্বাচনে ৫ চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। তারা হলেন বিএনপি মনোনীত আকতার হোসেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত শফিকুর রহমান রাজু, জামায়াত সমর্থিত রেজাউল করিম, আ.লীগ নেতা আব্দুল মতিন ও আ.লীগ নেতা আব্দুল ওয়াহেদ মিয়া। ভোটের মাঠে জোর গুঞ্জণ রয়েছে চেয়ারম্যান পদে ৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও মূলত লড়াই হবে ত্রিমুখী। প্রত্যেক প্রার্থীই জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী বলে জানিয়েছেন। অপরদিকে ভোটাররা মনে করছেন নির্বাচনের দিন যতোই ঘনিয়ে আসছে ততই ভোটের হিসাব নিকাশ পাল্টে যাচ্ছে। সক্রিয় দল না করা এবং নতুন ভোটাররা যেদিকে গড়াবে ফলাফল সেদিকেই যাবে এমটাই মনে করছেন ইউনিয়নবাসী। তবে ভোটের মাঠের সমীকরণ সবসময় মেলে না বলে অনেকেই মন্তব্য করেছেন। সব প্রশ্নের উত্তর পেতে প্রার্থী এবং ভোটারদের অপেক্ষা করতে হবে ২০ অক্টোবর ভোটগ্রহণ পরবর্তী ফলাফল জানা পর্যন্ত।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More