চুয়াডাঙ্গার দিগড়ী গ্রামে অরক্ষিত হেলিপ্যাড মাঠ পূর্ণাঙ্গ তৈরির দাবি

প্রধানমন্ত্রী ও চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য বরাবর স্বারকলিপি প্রদান

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার ৭নং ওয়ার্ডের দিগড়ী গ্রামে অধিগ্রহণকৃত অরক্ষিত হেলিপ্যাডটি পূর্ণাঙ্গভাবে তৈরি ও চালুর দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুনের বরাবর স্মারকলিপি দেন দিগড়ী গ্রামের সর্বস্তরের জনগণ। এমপি ছেলুন জোয়ার্দ্দারের পক্ষে স্মারকলিপি গ্রহণ করেন জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক সাবেক মেয়র রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার টোটন। পরে জেলা প্রশাসকের মাধমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দেন। এ সময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সাজিয়া আফরীন স্মারকলিপি গ্রহণ করেন। তিনি জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর নিকট পৌঁছে দেয়ার আশ্বাস দেন।
স্মাকরলিপিতে বলা হয়, চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার ৭নং ওয়ার্ডের দিগড়ী গ্রাম। এই গ্রামে ১৯৮৯ সালে সরকারিভাবে একটি হেলিপ্যাড তৈরির জন্য কিছু জমি কিনে উঁচু নিচু জায়গা কেটে সমতল করা হয়। পরবর্তীতে ১৯৯০ সালের পর থেকে আজ পর্যন্ত সেখানে সরকারিভাবে কোনো অগ্রগতি হয়নি। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’র জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে হেলিপ্যাডটি নির্মাণ করার দাবি জানিয়েছে এলাকার সাধারণ মানুষ।
এ সময় জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার টোটন বলেন, আজ থেকে ৩৫ বছর আগে দিগড়ী বিলের ধারে সরকারিভাবে একটি হেলিপ্যাড করা হয়েছিল। অযতেœ-অবহেলায় এবং নজর না দেয়ার কারণে হেলিপ্যাডটি মৃতপ্রায়। এলাকার সাধারণ মানুষে দীর্ঘদিনের একটা লালিত স্বপ্ন যে হেলিপ্যাডটি চালু হোক। জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আমি কথা দিচ্ছি আপনাদের চাওয়া যাতে পূরণ হয় সেদিকে সঠিকভাবে নজর দেয়া হবে।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন, দিগড়ী হেলিপ্যাড বাস্তবায়ন কমিটির আহ্বায়ক শরিফ উদ্দিন জোয়ার্দ্দার, যুগ্মআহ্বায়ক রকিবুল আলম রতনসহ এলাকার সর্বস্তরের জনগণ।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More