ছাড় নেই ঈদেও ॥ মাদকদ্রব্যসহ চারদিনে দর্শনায় ৬৩ জন গ্রেফতার

কেরুজ বাংলা মদসহ বিপুল পরিমাণ মাদক উদ্ধার : আতঙ্কে মাদককারবারীরা

দর্শনা অফিস: মাদককে শূন্যের কোটায় নামিয়ে আনতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ মোতাবেক মাদকের বিরুদ্ধে জিহাদ ঘোষণা করেছে চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশ। জেলার প্রতিটি থানা, পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র ও ফাঁড়ি ইনচার্জকে কড়া নির্দেশনা দিয়েছেন পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম। ফলে ইতোমধ্যেই থানাগুলোর পক্ষ থেকে মাদককারবারীদের হুশিয়ারি করা হয়েছে। পুলিশি মহড়ায় হ্যান্ড মাইকের মাধ্যমে বলা হয়েছে ‘থানা-ফাঁড়ি এলাকায়, মাদক কারবারীদের ঠাই নাই’, ‘হয় মাদক ছাড়তে হবে, নইলে ছাড়তে হবে এলাকা’ পুলিশ হুশিয়ারি মহড়ার পরপরই শুরু হয় মাদকবিরোধী ঝটিকা অভিযান।

দর্শনা থানার অফিসার ইনচার্জ মাহাব্বুর রহমান কাজলের নেতৃত্বে ইন্সপেক্টর (তদন্ত) শেখ মাহবুবুর রহমানসহ থানার সকল অফিসার ও ফোর্স মাদকের বিরুদ্ধে উঠেপড়ে মাঠে নামেন। যেকোন মূল্যের বিনিময়ে দর্শনা থানা এলাকাকে মাদক মুক্ত করণের শপথ নিয়েই এবারের মাদকবিরোধী ঝটিকা অভিযান পরিচালনা করছেন ওসি মাহাব্বুর রহমান কাজল। ফলে গত ৭ দিনের ব্যবধানে প্রায় ১শ’ অভিযুক্ত মাদক কারবারীকে গ্রেফতার ও প্রচুর পরিমাণ মাদকদ্রব্য উদ্ধার করেছে দর্শনা থানা পুলিশ। মুসলিম ধর্মাবলম্বিদের বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল আযহার আনন্দকে বিসর্জন দিয়ে পুলিশি অভিযান চলমান রাখা হয়। ফলে ঈদুল আযহার দিন থেকে গতকাল পর্যন্ত দর্শনা থানা পুলিশ গ্রেফতার করেছে অভিযুক্ত ৬৩ জন মাদককারবারীকে। উদ্ধার করেছে প্রচুর পরিমাণ ফেনসিডিল, ইয়াবা ট্যাবলেট, মদ ও গাঁজা। থানায় দায়ের করেছেন পৃথক পৃথকভাবে একাধিক মামলা।

দর্শনা থানার ওসি মাহাব্বুর রহমান কাজল জানান, বিভিন্ন স্থানে পৃথক পৃথক মাদকবিরোধী অভিযানে মাদকের সাথে সম্পৃক্ত ৬৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে ১৪৯ বোতল ফেনসিডিল, ৯৪ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, ৮ কেজি গাঁজা ও ২০ লিটার কেরুজ বাংলা মদ। গ্রেফতারকৃতরা হলেন চন্ডিপুরের শুকুর আলীর ছেলে মুবিন (২১), সুলতানপুরের নজরুল ইসলামের ছেলে জসিম উদ্দিন শুভ (২৫), ঈশ্বরচন্দ্রপুর ঈদগাপাড়ার জাফর মিস্ত্রীর ছেলে মিজানুর (২৪), বদর উদ্দিনের ছেলে খোকন ওরফে কালু (৩৫), আজমপুরের জোহর হোসেনের ছেলে শফিউল উদ্দিন ওরফে টেপা (৪০), বেগমপুরের আক্তার হোসেনের ছেলে জসিম উদ্দিন (২৮), আ. মালেকের ছেলে শফিকুল ইসলাম (৩৮), ফুলবাড়ীর নুহু নবীর ছেলে ফরিদুল (২২), চাকুরিয়ার রেজাউল করিমের ছেলে মিঠুন আলী (৩০), জয়নগরের হাসমত আলীর ছেলে জাফর (২২), আব্দুস সামাদ জাম্বুর ছেলে মারুফ (২০), মোক্তারপুরের শুকুর আলীর ছেলে সুজ্জল (২০), আসাদুল হকের ছেলে ইদ্রিস আলী (২২), আইনুল হকের ছেলে জাহিদ (১৯), নতুন ভান্ডারদাহের আকছেদ আলীর ছেলে সেলিম (২২), শুকদিয়ার রুহুল আমীনের ছেলে আকিদুল ইসলাম সজিব (২৫), আকন্দবাড়িয়া আবাসনের আলতাফ হোসেনের ছেলে মিলন (৩৫), দক্ষিণচাঁদপুরের তোফাজ্জেল ম-লের ছেলে রেজাউল (৪৫), কুড়–লগাছি আনন্দবাজারপাড়ার নুহু নবী মোল্যার ছেলে আলমগীর (৩৫), সদাবরি পুরাতন মসজিদপাড়ার আ. ওহাবের ছেলে আ. বারিক (৫৫), আকন্দবাড়িয়া রায়পাড়ার মতিয়ার রহমানের ছেলে রাকিব (১৫), দর্শনা কলেজপাড়ার সাদেক শরীফের ছেলে স্বপন শরীফ (৩৫), আকন্দবাড়িয়া স্কুলপাড়ার ইসমাইল ওরফে পাচু ম-লের ছেলে রুস্তম আলী (২৭), আজমপুরের জোহর হোসেনের ছেলে আলমগীর হোসেন (৩৫), ঠাকুরপুরের নজির আহমেদের ছেলে আসমাইল হুসাইন (২৫), দর্শনা ঈশ্বরচন্দ্রপুরের সানিরুল ইসলামের ছেলে কথিত সাংবাদিক রাশেদ (২৪), কুন্দিপুরের সিরাজুল ইসলামের ছেলে আলামিন (২০), বোয়ালমারির জয়নাল ম-লের চেলে মোজাম আলী, উথলী পশ্চিমপাড়ার আশরাফ আলীর ছেলে শাহবুল ইসলাম টোটন (২৩), সেনেরহুদার জহিরুল ইসলামের মেয়ে শান্তনা, দোস্তগ্রামের বাবলুর ছেলে রবিউল ইসলাম, আকন্দবাড়িয়া ফার্মপাড়ার রবিউল মোল্যার স্ত্রী রশিদা (৫০)সহ ৬৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে ১৪৯ বোতল ফেনসিডিল, ৯৪ পিচ ইয়াবা ট্যাবলেট, ৮ কেজি গাঁজা ও ২০ লিটার কেরুজ বাংলা মদ। এ ঘটনাগুলোতে পুলিশ বাদি হয়ে দর্শনা থানায় পৃথক পৃথক একাধিক মামলা দায়ের করা হয়েছে। তবে মাদক মুক্তকরণে এ অভিযান চলমান থাকবে বলেও জানান ওসি মাহাব্বুর রহমান কাজল। এদিকে পুলিশের মাদকবিরোধী ঝটিকা অভিযানে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে মাদককারবারীদের মধ্যে। বাড়ি ছাড়তে শুরু করেছে অনেকেই।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More