ঝিনাইদহের মহেশপুরে ছেলের বউকে কুপিয়ে শ্বশুরের আত্মহত্যা

মহেশপুর প্রতিনিধি: ঝিনাইদহের মহেশকুরে পাওনা টাকা নিয়ে বাকবিত-ায় জড়িয়েছিলেন শ্বশুর ও পুত্রবধূ। একপর্যায়ে শ্বশুর আবদুল গণি উত্তেজিত হয়ে হাতের কাছে থাকা ধারালো অস্ত্র দিয়ে পুত্রবধূকে কুপিয়ে আহত করেন। সবাই যখন পুত্রবধূকে নিয়ে হাসপাতালে ছোটাছুটিতে ব্যস্ত, তখন বাড়িতে কীটনাশক পান করেন আবদুল গণি। হাসপাতালে নেয়ার পর তিনি মারা যান। ঘটনাটি ঘটেছে ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার রামচন্দ্রপুর গ্রামে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তির পর মঙ্গলবার ভোর ৪টার দিকে তার মৃত্যু হয়। আবদুল গণি (৬০) ওই গ্রামের মৃত হুজুর আলীর ছেলে। তার পুত্রবধূর নাম নয়নতারা। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকায় নেয়া হয়েছে। মহেশপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুল ইসলাম এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, আবদুল গণি ও তার ছেলে বিপুল হোসেন (৩৮) আলাদা বাড়িতে থাকতেন। প্রায় এক বছর হলো আবদুল গণি তার পুরোনো ভিটা বিক্রি করে ছেলের হাতে টাকা তুলে দেন। এরপর তিনি স্ত্রীকে নিয়ে ছেলের বাড়িতে বসবাস শুরু করেন। তবে ভিটা বিক্রির টাকা নিয়ে পুত্রবধূ নয়নতারার সঙ্গে প্রায়ই আবদুল গণির বচসা হতো। শ্বশুরের কাছে জমি বিক্রির আরও টাকা রয়েছে বলে অভিযোগ করতেন নয়নতারা। একপর্যায়ে সোমবার বিকেলে শ্বশুরের দেয়া টাকাগুলো ফেরত দিয়ে পুত্রবধূ তাদের বাড়ি থেকে নেমে যেতে বলেন। তখনই শ্বশুর ক্ষিপ্ত হয়ে হাতের কাছে থাকা ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে নয়নতারাকে গুরুতর আহত করেন। এই অবস্থায় প্রতিবেশীরা নয়নতারাকে উদ্ধার করে প্রথমে মহেশপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। পরে যশোর সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। অবস্থা খারাপ হওয়ায় মঙ্গলবার সকালে ঢাকায় নেয়া হয়। এদিকে পুত্রবধূকে কুপিয়ে আহত করার পর রাতে শ্বশুর আবদুল গণি নিজ ঘরে থাকা কীটনাশক পান করেন। বিষয়টি প্রতিবেশীরা বুঝতে পেরে রাতেই তাকে মহেশপুর হাসপাতালে নিয়ে যান। মঙ্গলবার ভোররাত সাড়ে ৪টার দিকে তার মৃত্যু হয়।
মহেশপুর থানার ওসি সাইফুল ইসলাম জানান, উপজেলার রামচন্দ্রপুর গ্রামের মৃত হুজুর আলীর ছেলে আব্দুল গনি নিজের জমি বিক্রি করে কিছু টাকা ছেলেকে দেন এবং অবশিষ্ট টাকা নিজের কাছে রাখেন। এ নিয়ে ছেলের বউ নয়নতারার সঙ্গে সোমবার সন্ধ্যায় পারিবারিকভাবে কথাকাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে শ্বশুর আব্দুল গণি ক্ষিপ্ত হয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে ছেলের বউ নয়ন তারাকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। এ সময় তাকে উদ্ধার করে প্রথমে মহেশপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। পরে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য যশোর জেনারেল হাসপাতালে রেফার করেন। সেখান থেকে নয়নতারাকে মঙ্গলবার সকালে ঢাকায় পাঠানো হয়।
তিনি আরও জানান, এ ঘটনার পর সোমবার রাতে শ্বশুর আব্দুল গনি নিজবাড়িতে বিষপান করেন। বিষয়টি পরিবারের লোকজন টের পেয়ে তাকে উদ্ধার করে মহেশপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার ভোরে তার মৃত্যু হয়।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More