বিনোদপুরের মামুনের লাশ বাড়িতে দাফন

আলমডাঙ্গা ব্যুরো: প্রায় দুই মাস পূর্বে কুয়েতে খুন হওয়া বিনোদপুর গ্রামের মামুনের লাশ তার নিজ এলাকায় দাফন করা হয়েছে। গতকাল বাদ জোহর লাশ দাফন করা হয়েছে। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি কুয়েত প্রবাসী মামুন আলীকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর লাশ ৮ তলা থেকে নিচে ছুঁড়ে ফেলা হয়। এ ঘটনায় আলমডাঙ্গার ডম্বলপুর, মুন্সিগঞ্জ ও ঢাকার ৫ কুয়েত প্রবাসি যুবককে আটক করেছে পুলিশ।
একাধিক প্রবাসিসূত্রে জানা যায়, আলমডাঙ্গা উপজেলার বিনোদপুর গ্রামের মিঠু আলীর ছেলে মামুন আলী (২২) গত ৪ বছর আগে কুয়েতে যান। তিনি কুয়েতের ফরনিয়া অঞ্চলে অন্যান্যের সাথে ৮তলা বিল্ডিংয়ে (ব্যারাকে) অবস্থান করে গাড়ি চালাতেন। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি সকালে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর লাশ ৮ তলা বিল্ডিংয়ের ছাদ থেকে নীচে ছুঁড়ে ফেলে দেয়া হয়। এ ঘটনায় ওই বিল্ডিংয়ে অবস্থানরত সাড়ে ৩শ বাংলাদেশি ও ইন্ডিয়ানকে কুয়েত পুলিশ আটক করে। পরে তাদের মধ্যে ৫ জন বাদে সকলের ফিঙ্গারিং সংগ্রহ করে ছেড়ে দিয়েছে। পুলিশের হাতে আটক আছেন ডম্বলপুর গ্রামের মোহাম্মদ নূরসহ মুন্সিগঞ্জ ও ঢাকার আরও ৪ যুবক।
এ নৃশংস হত্যাকান্ডের কারণ সম্পর্কে প্রবাসিরা কেউ স্পষ্ট করে কোনো কারণ বলতে পারেননি। বেশ কয়েকদিন আগে মামুনের খোঁজ না পাওয়ায় নূরের বাড়িতে খোঁজ নিতে যায় মামুনের মা। সেখানে গেলে মামুনের মায়ের সাথে খারাপ ব্যবহার করে নূর। মামুনের মোবাইলও নূর কেড়ে নেয় বলে দাবি করেন মামুনের পরিবারের।
এদিকে, এ হত্যাকান্ডের পর দাফতরিক সব ঝামেলা শেষে গত ১২ এপ্রিল মামুনের লাশ ঢাকায় পৌঁছে। পরদিন ১৩ এপ্রিল লাশ বিনোদপুরে নিজ বাড়িতে পৌঁছে। ওই দিনই বাদ জোহর জানাজা শেষে পারিবারিক গোরস্থানে লাশ দাফন করা হয়েছে।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More