বিয়ে করতে ইউপি চেয়ারম্যানের কাছ থেকে প্রত্যয়ন নেয়ার দাবি

জীবননগরে বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে করণীয় সংক্রান্ত আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত
জীবননগর ব্যুরো: জীবননগর উপজেলায় বিয়ে করতে ইউপি চেয়ারম্যানের কাছ থেকে প্রত্যয়নপত্র নেয়ার দাবি উঠেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে আয়োজিত এক আলোচনাসভায় উপস্থিত সকলেই এ দাবি তুললে জীবননগর উপজেলা প্রশাসন বিষয়টি ভেবে দেখার কথা জানিয়েছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার এনজিও সংস্থা ওয়েভ ফাউন্ডেশন ও বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে কাজ করা জীবননগর উপজেলা লোকমোর্চার আয়োজনে বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে করণীয় সংক্রান্ত এক মতবিনিময়সভা অনুষ্ঠিত হয়।
জীবননগর উপজেলা লোকমোর্চার সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে এবং উপজেলা লোকমোর্চার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল লতিফ অমলের সঞ্চালনায় জীবননগর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে বেলা সাড়ে ১০ টায় অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন জীবননগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম মুনিম লিংকন, জীবননগর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আয়েশা সুলতানা লাকি, জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. মো. মেহেদী আল মাসুম, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শ্রী দিনেশ চন্দ্র, জীবননগর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মুন্সী মাহবুবুর রহমান বাবু, সাংবাদিক সমিতির সভাপতি জিএ জাহিদুল ইসলাম, উথলী মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্যদের সভাপতি সালাউদ্দীন কাজল, সাংবাদিক কাজী সামসুর রহমান চঞ্চল, আকিমুল ইসলাম, আতিয়ার রহমান, সেনেরহুদা জান্নাতুল খাদরা দাখিল মাদরাসার সভাপতি আবু জাফর, উথলী মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লুৎফর রহমান, হাসাদাহ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহিনুর রহমান, রায়পুর ইউনিয়ন লোকমোর্চার সভাপতি সাজ্জাদ হোসেন, সীমান্ত ইউনিয়ন লোকমোর্চার সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক, উথলী ইউনিয়ন লোকমোর্চার সাধারণ সম্পাদক সেলিম হোসেন, ওয়েভ ফাউন্ডেশনের কামরুজ্জামান যুদ্ধ, সজল আহম্মেদ প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, জীবননগর উপজেলাকে বাল্যবিয়ে মুক্ত করতে বাল্যবিয়ে দেয়ার কাজে সহযোগিতাকারী, কাজী এবং অভিভাবকদেরকে আইনের আওতায় আনতে হবে। এছাড়া মতবিনিময়সভায় উপস্থিত সকলেই জোর দাবি তোলেন বিয়ের আগে বয়স প্রমাণের জন্য সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের কাছ থেকে প্রত্যয়নপত্র নিতে হবে। বক্তাদের দাবি, জন্ম নিবন্ধন সনদ অনেকে জাল করছে। আবার অনেকের নামে দুটি জন্ম নিবন্ধন সনদ আছে। আবার অনেকে অন্যের জন্ম নিবন্ধন সনদ ফটোকপি করে সেটাতে ফ্লুট লাগিয়ে নিজের নাম ঠিকানা লিখে পুনরায় ফটোকপি করে বিয়ের সময় ব্যাবহার করছে। এজন্য দাবি উঠেছে বিয়ের আগে সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানের কাছ থেকে প্রত্যয়নপত্র নিতে হবে। চেয়ারম্যান জন্ম নিবন্ধন রেজিস্টার খাতা দেখে প্রকৃত জন্ম তারিখ লিখে একটা প্রত্যয়নপত্র দেবেন। অল্প সময়ের ভেতর ওই প্রত্যয়নপত্র জাল করা সম্ভব হবে না। এজন্য মতবিনিময় সভায় সাংবাদিক, শিক্ষক, বিদ্যালয় পরিচালনা পর্যদের সভাপতিবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, সুধী, লোকমোর্চার সদস্যসহ সবার পক্ষ থেকে এ দাবি তোলা হয়েছে। ইউপি চেয়ারম্যানের প্রত্যয়নপত্র ছাড়া কোনো কাজী বিয়ে পড়ালে ওই কাজির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ারও দাবি উঠেছে। মতবিনিময় সভায় উপজেলার ৩০টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মাদরাসা পরিচালনা পর্যদের সভাপতি এবং প্রধান শিক্ষক, লোকমোর্চার সদস্য, সাংবাদিক, সুধীবৃন্দসহ শতাধিক মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More