মাস্ক না পরায় চুয়াডাঙ্গায় ১৪ মেহেরপুরে ১৩ জনের জরিমানা

মাথাভাঙ্গা ডেস্ক: করোনার প্রকোপ কমাতে সর্বসাধারণের জন্য মাস্ক বাধ্যতামূলক করেছে সরকার। এ নিয়ম কার্যকর করতে চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুরের বিভিন্ন স্থানে মাস্ক না পরা ও স্বাস্থ্যবিধি না মানায় জরিমানা আদায় করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। গতকাল বৃহস্পতিবার ভ্রাম্যমাণ আদালতে চুয়াডাঙ্গায় ১৪ জন ও মেহেরপুরে ১৩ জনকে জরিমানা করা হয়েছে। এসময় পথচারীদের মধ্যে প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাস্ক বিতরণ করা হয়।
পাঁচমাইল প্রতিনিধি জানিয়েছেন, স্বাস্থ্যবিধি না মানার অপরাধে চুয়াডাঙ্গার ডিঙ্গেদহ বাজারে ১৪ জনকে জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইনে ৫টি মামলায় ১৪ জনের কাছ থেকে ৩ হাজার ৭৫০ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। গতকাল বেলা ১১টার দিকে অভিযান পরিচালনা করেন চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ সাদিকুর রহমান। সহযোগিতায় ছিলেন পেশকার সোহবান আলী, অফিস সহায়ক আরমান আলী ও সরোজগঞ্জ ফাঁড়ি পুলিশের চৌকস দল।
জীবননগর ব্যুরো জানিয়েছে, গতকাল বৃহস্পতিবার জীবননগরে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেট এসএম মুনিম লিংকন এ মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন। মোবাইল কোর্ট পরিচালনাকালে মাথায় হেলমেট না পরা ও কাগজপত্র সঠিক না থাকায় মোটর যান আইনে ৫ মোটরাসাইকেল আরোহীকে ১ হাজার ৮শ’ টাকা জরিমানা ও করোনা ভাইসার প্রতিরোধে স্বাস্থ্য সচেতনতা বৃদ্ধি করতে বাস যাত্রীসহ পথচারীদের মাঝে মাস্ক বিতরণ করা হয়।
সংশ্লিষ্টসূত্রে জানা যায়, গতকাল জীবননগর বাসস্ট্যান্ডসহ শহরে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। এসময় সড়কে চলাচলকারী মোটরসাইকেলের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র না থাকার অভিযোগে আদালত ৫ জনকে মোটরযান আইনে ১ হাজার ৮শ’ টাকা জরিমানা করেন। একই সাথে আদালতের বিচারক সড়কে চলাচলকারী যানবাহনের যাত্রী ও পথচারীদের স্বাস্থ্য সচেতনতা বৃদ্ধিতে মাস্ক বিতরণ করা হয়।
মেহেরপুর অফিস জানিয়েছে, মেহেরপুরে ১৩ জনের কাছ থেকে ২ হাজার ৬শ’ টাকা জরিমানা আদায় করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। জেলার বিভিন্ন স্থানে পৃথক অভিযান চালিয়ে এ জরিমানা করা হয়। মাস্ক পরিধান না করা এবং স্বাস্থ্যবিধি না মানার অপরাধে জেলা প্রশাসনের একাধিক টিম ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে মেহেরপুর শহরের বড়বাজার, হোটেল বাজার, কলেজ মোড়, ওয়াপদা মোড়সহ গাংনী ও মুজিবনগরে পৃথক সাতটি স্থানে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। মুখে মাস্ক না থাকায় মেহেরপুর সদরে ৬ জনকে এক হাজার ৫০ টাকা, গাংনীতে দুজনকে এক হাজার টাকা ও মুজিবনগরে ৫ জনকে ৫৫০ টাকা জরিমানা করা হয়। এসময় অসহায় মানুষদের মাঝে প্রায় মাস্ক বিতরণ করা হয়। পৃথক এ অভিযান পরিচালনা করেন মেহেরপুর জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাজী মোহাম্মদ অনিক ইসলাম, নিরুপমা রায়, মাহমুদুল হাসান ও মাশতুরা আমিনা। গাংনী উপজেলায় সহকারী কমিশনার (ভূমি) নূরে আলম সিদ্দিকী এবং মুজিবনগরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুজন সরকার।
মুজিবনগর প্রতিনিধি জানিয়েছেন, গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে মুজিবনগর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে জরিমানা আদায় ও মাস্ক বিতরণ করা হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা ও মাস্ক বিতরণ করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুজন সরকার। ভ্রাম্যমাণ আদালতসূত্রে জানা যায়, মুজিবনগর ও কেদারগঞ্জ বাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালানো হয়। এসময় করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবরোধে সরকারি নির্দেশ অমান্য করে মুখে মাস্ক ব্যবহার না করে ঘুরে বেড়ানোর অপরাধে চারজনকে ৫৫০ টাকা জরিমানা করা হয়। ওই সময় গরীব অসহায় পথচারীদের মাঝে মাস্ক বিতরণ করা হয়।
হরিণাকু-ু প্রতিনিধি জানিয়েছেন, মাস্ক পরিধান না করা, স্বাস্থ্যবিধি না মানা, ক্রেতাদের মাস্ক বিহীন সেবা প্রদান করাসহ ডিলিং লাইসেন্স না থাকার দায়ে ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে জরিমানা আদায় করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। গতকাল বৃহস্পতিবার হরিণাকু-ু বাজার ও উপজেলা মোড় এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দা নাফিস সুলতানা এবং সহকারী কমিশনার (ভূমি) রাজিয়া আক্তার চৌধুরী। হরিণাকু-ু বাজার ও উপজেলা মোড় এলাকায় রড সিমেন্ট বিক্রেতা কাজী ট্রেডার্সকে ডিলিং লাইসেন্স না থাকার দায়ে ৫ হাজার টাকা জরিমানাসহ মাস্ক পরিধান না করায় অপরাধে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার সাধারণ মানুষকে সচেতনতার জন্য বিশেষ নির্দেশনা প্রদান করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এসময় হাট ও বাজারে কাঁচামালসহ নিত্য প্রয়োজনীয় মালামালের মূল্য ঊর্ধগতি রোধে বাজার নিয়ন্ত্রণ মনিটরিংসহ মাছ বিক্রেতাদের ওজনের বাটখারা পরীক্ষা করা হয়। এসময় কয়েকজনের বাটখারা জব্দ করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More