মেহেরপুরে আরও ৬৮জনের করোনা শনাক্ত : একজনের মৃত্যু

মেহেরপুর অফিস: গেল ২৪ ঘণ্টায় মেহেরপুরে এক ব্যক্তি মারা গেছেন। নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৬৮জন। আক্রান্তের হার শতকরা প্রায় ৩২ ভাগ। এ পর্যন্ত মৃত্যুর সংখ্যা ৭৬ জন। আর আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন ৭৬৪ জন। প্রতিদিন মেহেরপুরে মৃত্যুর মিছিলে যোগ হচ্ছে নতুন নতুন মুখ। করোনা সংক্রমণে লম্বা হচ্ছে মৃত্যুর মিছিল। দিনেদিনে করোনা রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। এতে মেহেরপুরে সচেতন মানুষের মাঝে বাড়ছে উদ্বেগ উৎকণ্ঠা। মেহেরপুরের লকডাউন কঠোরভাবে পালনে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে। সাথে যোগ হয়েছে র‌্যাব, সেনা সদস্য ও বিজিবি। তবে গতকাল বৃহস্পতিবার মেহেরপুর শহরে লকডাউন পালিত হয়েছে চোর পুলিশের খেলার মতো। আর গ্রামে লকডাউন পালিত হচ্ছে না বলে অনেকে মন্তব্য করেছেন।
গত ২৪ ঘণ্টায় মেহেরপুর জেলায় নতুন করে ৬৮ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে মেহেরপুর সদর উপজেলায় ৪০ জন, গাংনী উপজেলায় ২৪জন ও মুজিবনগর উপজেলায় ৪জন রয়েছেন। এনিয়ে বর্তমানে জেলায় মোট করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৭৬৪ জন। গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে সিভিল সার্জন ডা. মো. নাসির উদ্দিন এ তথ্য নিশ্চিত করেন।
মেহেরপুর সিভিল সার্জন অফিস থেকে আরো জানা যায়, কুষ্টিয়া ল্যাব থেকে ২১৩টি নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট পাওয়া যায়। এর মধ্যে ৬৮ জন করোনা রোগী চিহ্নিত হয়েছেন। বর্তমানে চিকিৎসাধীন মোট ৭৬৪ জন করোনা রোগীর মধ্যে সদর উপজেলার বাসিন্দা ২৭২জন, গাংনী উপজেলার বাসিন্দা ৩৯০ জন ও মুজিবনগর উপজেলার বাসিন্দা ১০২ জন। এছাড়া রেফার্ড হয়েছেন ১১৯ জন। এদের মধ্যে সদর উপজেলার ৭৬ জন, গাংনী উপজেলার ১৮ জন ও মুজিবনগর উপজেলার ২৫ জন রয়েছেন। এ ছাড়া এ পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন এক হাজার ৫২২ জন। যার মধ্যে সদর উপজেলায় ৮৫২ জন, গাংনী উপজেলায় ৪৬৬ জন ও মুজিবনগর উপজেলায় ২০৪জন রয়েছেন। এছাড়া এ পর্যন্ত জেলায় মারা গেছেন ৭৬ জন। যার মধ্যে সদর উপজেলায় ৩২ জন, গাংনী উপজেলার ২৮ জন ও মুজিবনগর উপজেলার ১৬ জন রয়েছেন। এদিকে করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় দফায় উদ্বেগজনক হারে সংক্রমণ বৃদ্ধিতে মেহেরপুর জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে প্রচার-প্রচারণা অব্যাহত রেখেছে। মাঠে নেমেছে র‌্যাব, সেনা বাহিনী ও বিজিবি সদস্যরা।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More