মেহেরপুরে ফেনসিডিল রাখার দায়ে ৩ ব্যক্তির ৭ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড ও জরিমানা

মেহেরপুর অফিস: মেহেরপুর আদালতে ফেনসিডিল রাখার অভিযোগ প্রমাণ হওয়ায় সামিরুল ইসলাম, এনামুল হক ও পাপ্পু কুমার বিশ্বাস নামের ৩ ব্যক্তিকে ৭ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড ও ৫ হাজার টাকা করে জরিমানা; অনাদায়ে আরো ৬ মাসের কারাদ-াদেশ দেয়া হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলের দিকে মেহেরপুরে স্পেশাল ট্রাইবুনাল-২’র বিজ্ঞ বিচারক রিপতি কুমার বিশ্বাস এ রায় দেন। সাজাপ্রাপ্ত সামিরুল ইসলাম কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী উপজেলার উত্তর কয়া গ্রামের বিশু শেখের ছেলে। এনামুল হক মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার বাউট গ্রামের মনসুর আলীর ছেলে ও পাপ্পু কুমার বিশ্বাস কুষ্টিয়ার বাড়াদি গ্রামের মাধব বিশ্বাসের ছেলে। রায় ঘোষণার সময় পাপ্পু বিশ্বাস আদালতে উপস্থিত ছিলেন না। আটক হওয়ার দিন থেকে তার সাজার কাজ শুরু হবে।
মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা যায়, ২০১২ সালের ২৮ জুন সকালের দিকে গোপন সূত্রে খবর পেয়ে র‌্যাব-৬ গাংনীর সুবেদার আব্দুল্লাহিল ওয়াফি’র নেতৃত্বে র‌্যাব-৬ এর একটি দল গাংনী পৌরসভার সাবেক মেয়র আশরাফুল ইসলামের বাড়ির সামনে মেহেরপুর থেকে ছেড়ে যাওয়া শ্যামলী পরিবহনের একটি গাড়ি তল্লাশি করে ৪শ’ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করেন। ওই সময় র‌্যাব-৬ এর সদস্যরা শ্যামলী পরিবহনের চালক সামিরুল ইসলাম, সুপারভাইজার মোঃ এনামুল হক, হেলপার পাপ্পু কুমার বিশ্বাস, তোফাজ্জল হোসেন লিটন, মোঃ সোহরাব হোসেন, চালক মোঃ একরামুল ইসলাম, রুবেল, বাবু এবং গোলাম কিবরিয়া নামের ৯ জনকে আটক করেন। ওই ঘটনায় স্পেশল পাওয়ার অ্যাক্ট ১৯৭৪ এর ৩৫ বি (২) ধারায় গাংনী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। যার কেস নং ৪৭০/১২। পরে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা প্রাথমিক তদন্ত শেষে আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করেন। মামলায় মোট ১৪ জন সাক্ষী তাদের সাক্ষ্য প্রদান করেন। এতে সামিরুল ইসলাম, এনামুল হক ও পাপ্পু কুমার বিশ্বাসের বিরুদ্ধে অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় বিজ্ঞ আদালত তাদের ৩ ব্যক্তিকে ওই সাজা প্রদান করেন।
মামলায় তোফাজ্জল হোসেন লিটন, মোঃ সোহরাব হোসেন, চালক মোঃ একরামুল ইসলাম, রুবেল, বাবু এবং গোলাম কিবরিয়ার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় আদালত তাদের বেকসুর খালাস প্রদান করেন।
মামলার রাষ্ট্র পক্ষে অতিরিক্ত পিপি কাজী শহীদ এবং আসামি পক্ষে অ্যাড. মিয়াজান আলী, অ্যাড. ইয়ারুল ইসলাম, অ্যাড. কামরুল হাসান ও অ্যাড. রমজান আলী কৌশুলী ছিলেন।

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More