রোজ সকালে নিয়ম করে আর ডেকে দেবে না কেউ

স্টাফ রিপোর্টার: করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের জীবন বাঁচাতে যিনি আপ্রাণ চেষ্টা করেছেন তিনিও হেরে গেলেন করোনার কাছে। কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এস এম নুর উদ্দিন আবু আল বাকী রুমী (৪৮) করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। গতকাল শুক্রবার (১৭ জুলাই) ভোররাতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। তাকে হারিয়ে দিশেহারা স্বজনরা। অধ্যাপক রুমী মেহেরপুরের মুজিবনগর উপজেলার দারিয়াপুরের বাসিন্দা ও কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক।

ডা. রুমীর বড় ছেলে আহনাজ নাহিয়ান মাহি বলেন, বাবার আঙুল ধরে পৃথিবীতে পথ চলতে শিখেছি। বাবার হাত ধরে হাঁটতে শিখেছি। বাবা পড়তে বসার জন্য, স্কুলে যাওয়ার জন্য রোজ সকালে নিয়ম করে ডেকে দিতেন। এমন নিয়ম করে সকালে স্কুলে যাওয়ার জন্য ডেকে দেবে না আর কেউ। ডা. রুমীর ভাই দারিয়াপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কারিগরি শাখার শিক্ষক শেখ সাদী বলেন, রুমী মানুষের সেবা দিতে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। আজ তার সন্তান ও পরিবার অভিভাবকহীন। সরকারের কাছে তার সন্তান ও পরিবারের দায়িত্ব নেয়ার দাবি জানাই। ডা. রুমীর তিন ছেলে আহনাজ নাহিয়ান মাহি (১৬), রাফসান রাইয়ান রাহি (১২) ও আরাফ আরিয়ান জাহি (৪)। এদের মধ্যে মাহি ১০ম শ্রেণিতে ও রাহি সপ্তম শ্রেণিতে পড়ে।

ডা. রুমীর বন্ধু মুজিবনগর উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান কামরুল হাসান চান্দু বলেন, কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে করোনার চিকিৎসা দিতে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন রুমী। তার মৃত্যুতে তিন সন্তানের ভবিষ্যত অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। জেলাবাসী আজ এক এমন সম্পদকে হারিয়েছে যা কখনও পূরণ হওয়ার নয়। সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. অলোক কুমার দাস জানান, ডা. রুমী করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। তাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে তাকে দাফন করা হবে। তার পরিবারের অন্য সদস্যরা করোনায় আক্রান্ত কি-না তা জানা নেই।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More