চুয়াডাঙ্গার বিভিন্ন স্থানে করোনা ভ্যাকসিন কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনের জন্য প্রস্তুতিমূলকসভা

সুরক্ষা অ্যাপসে গিয়ে টিকা গ্রহণকারীকে আগে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে

স্টাফ রিপোর্টার: করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন প্রদান কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনের লক্ষ্যে উপজেলা পর্যায়ে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বুধবার চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদায়, আলমডাঙ্গা ও জীবননগরে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে জানানো হয়; চুয়াডাঙ্গা জেলায় ৩৬ হাজার ডোজ টিকা এসেছে। জেলার ৪টি উপজেলায় এ টিকা বণ্ঠন করা হবে। জীবননগর উপজেলা থেকে এখন পর্যন্ত ১ হাজার জনের তালিকা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। তবে নিয়ম অনুযায়ী স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা অ্যাপসে গিয়ে টিকা গ্রহণকারীকে আগে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। সামনের সারির করোনাযোদ্ধা হিসেবে সরকারি হাসপাতাল ও প্রাইভেট ক্লিনিক ও নার্সিং হোমের স্বাস্থ্যকর্মী, প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারী, পুলিশ, সাংবাদিকসহ ১৫টি ক্যাটাগরির মানুষ অগ্রাধিকার ভিত্তিতে করোনা ভাইরাসের টিকা পাবেন। স্বাস্থ্য বিভাগের সুরুক্ষা অ্যাপসে গিয়ে সকলকে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। িি.িংঁৎড়শশযধ.মড়া.নফ এ ওয়েব সাইটে গিয়ে রেজিস্ট্রেশন রেজিস্ট্রেশন নিশ্চিত করতে হবে। তবে রেজিস্ট্রেশন করতে গিয়ে কোন প্রকার অসুবিধা হলে টোল ফ্রি ১৬২৬৩ অথবা ৩৩৩ নম্বর মোবাইলে ফোন করে সহযোগিতা চাইলে এ ব্যাপারে সহযোগিতা পাওয়া যাবে।

দামুড়হুদায় করোনা ভ্যাকসিন প্রদান কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনের জন্য উপজেলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বুধবার বেলা ১১টার দিকে দামুড়হুদা উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে এলআর ফান্ডের আওতায় উপজেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগের আয়োজনে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভাপতিত্ব করেন দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী অফিসার দিলারা রহমান। প্রধান অতিথি ছিলেন কমিটির উপদেষ্টা উপজেলা চেয়ারম্যান আলি মুনছুর বাবু। উপস্থিত ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সাহিদা খাতুন, আব্দুল ওদুদ শাহ ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ কামাল উদ্দীন, দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. ফারহানা ওয়াহিদ, দর্শনা থানার অফিসার ইনচার্জ মাহবুবুর রহমান কাজল, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আশরাফ হোসেন, উপজেলা সমাজসেবা অফিসার ছানোয়ার হোসেন, উপজেলা একাডেমিক সুপার ভাইজার রাফিজুল ইসলাম, সহকারী প্রোগ্রামার (আইসিটি) আরিফুল ইসলাম, দর্শনা পৌরসভার প্যানেল মেয়র রবিউল হক সুমন, সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার নাসির উদ্দীন, ইমপ্যাক্ট ম্যানেজার হাবিবুর রহমান, দামুড়হুদা মডেল থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক আরিফুজ্জামান, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) হোসনে মোবারক, উপজেলা প্রশাসনিক কর্মকর্তা জিন্নাত আলী, উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা আশরাফুল ইসলাম, দামুড়হুদা প্রেসক্লাব সভাপতি এম নুরুন্নবী, সিনিয়র সহসভাপতি মোজাম্মেল শিশির, সাধারণ সম্পাদক বখতিয়ার হোসেন বকুল প্রমুখ। সভায় দামুড়হুদা উপজেলায় করোনা পরিস্থিতির সার্বিক চিত্র তুলে ধরেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. ফারহানা ওয়াহিদ। কমিটির উপদেষ্টা উপজেলা চেয়ারম্যান জানান, করোনা ভ্যাকসিন কার্যক্রম সেবা নিশ্চিত করতে বহুল প্রচারের ব্যবস্থা করার পাশাপাশি ইউপি চেয়ারম্যানদের মাধ্যমে স্ব স্ব ইউনিয়নে নাম রেজিস্ট্রেশনের ব্যবস্থা করা।

অপরদিকে, আলমডাঙ্গায় করোনা ভাইরাস ভ্যাকসিন প্রদান কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনের জন্য প্রস্তুতিমূলকসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা ভ্যাকসিন প্রদান সহায়ক কমিটির আয়োজনে বুধবার সকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. লিটন আলীর সভাপতিত্বে ভ্যাকসিন প্রদান সম্পর্কে পরামর্শমূলক বক্তব্য রাখেন কমিটির উপদেষ্টা ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আইয়ুব হোসেন। সরকারি নির্দেশনাসহ অপ্রাধিকার ভিত্তিতে ভ্যাকসিন কারা পাবে এবং তাদের করনীয় সম্পর্কে বিস্তারিত বক্তব্য রাখেন ভ্যাকসিন প্রদান সহায়ক কমিটির সদস্য সচিব ও উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা. হাদী জিয়াউদ্দিন আহমেদ সাঈদ। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী মারজাহান নিতু, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা হাসানুজ্জামান খান, আলমডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ আলমগীর কবীর, সমাজসেবা অফিসার আফাজ উদ্দিন, উপজেলা শিক্ষা অফিসার সামসুজ্জোহা, কাজী  মাওলানা ওমর ফারুক, আনসার ও ভিডিপি অফিসার সাইদুর রহমান প্রমুখ।

এদিকে, জীবননগর উপজেলায় আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি হতে কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন প্রদান শুরু করা হবে। গতকাল বুধবার উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সভাকক্ষে কোভিড-১৯ উপজেলা প্রতিরোধ কমিটির এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম মুনিম লিংকনের সভাপতিত্বে এ তথ্য জানান কমিটির সদস্য সচিব উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সেলিমা আখতার। ডা. সেলিমা আখতার জানান, জীবননগর উপজেলায় মোট ১১টি ইউনিটে টিকাদান কার্যক্রম চলবে। এ মুহূর্তে জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৩টি ইউনিট প্রস্তুত করা হয়েছে এবং উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে আরও ৮টি ইউনিট চালু করা হবে। কেভিড-১৯ প্রতিরোধ কমিটির এ সভায় জীবননগর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ অমল, জীবননগর থানার অফিসার ইনচার্জ সাইফুল ইসলাম, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সেলিমা আখতার, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মাহমুদা খাতুন, উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান, উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার জাকির উদ্দিন মোড়ল, জীবননগর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এম আর বাবু প্রমুখ বক্তব্য রখেন।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More