ইংল্যান্ড সফরে পাকিস্তান দলে দুই টিনএজ ক্রিকেটার

মাথাভাঙ্গা মনিটর: গুরুত্বপূর্ণ সফরে কম বয়সী ক্রিকেটার দলে অন্তর্ভুক্ত করার রেওয়াজ এবারও ধরে রাখলো পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। দুই টিনএজ ক্রিকেটারকে নিয়ে ইংল্যান্ড সফর উপলক্ষে গতকাল শুক্রবার ২৯ সদস্যের দল ঘোষণা করেছেন তারা। আগস্ট-সেপ্টেম্বরে ইংল্যান্ড সফরে স্বাগতিকদের সঙ্গে তিনটি করে টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে পাকিস্তান। প্রথমবারের মতো জাতীয় দলে ডাক পেয়েছেন অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স দেখানো হায়দার আলি। উনিশ বছর বয়সী এ ব্যাটসম্যানের পাশাপাশি দলে রাখা হয়েছে ১৭ বছর বয়সী পেসার নাঈম শাহকে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নাঈমের অভিষেক অবশ্য গত বছরই হয়েছে। সবচেয়ে কম বয়সী বোলার হিসেবে টেস্ট ক্রিকেটে হ্যাটট্রিকের রেকর্ডও গড়েছেন পাকিস্তান ক্রিকেটের এই নতুন মুখ। চারটি টেস্ট খেলা নাঈম ছিলেন বাংলাদেশের বিপক্ষে রাওয়ালপিন্ডি টেস্টেও। দীর্ঘদিন পর দলে ডাক পেয়েছেন ৩৬ বছর বয়সী পেসার সোহেল খান। পাকিস্তানের জার্সিতে ৯ টেস্ট ও ৫ টি-টোয়েন্টি খেলা এ ক্রিকেটার সবশেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছিলেন তিন বছর আগে। বাংলাদেশের বিপক্ষে টেস্ট খেলা দলের বেশির ভাগ ক্রিকেটারকে রেখে দিয়েছেন নির্বাচকেরা। বাদ পড়েছেন কেবল হারিস সোহেল। পারিবারিক কারণে সফর থেকে নিজেকে অবশ্য প্রত্যাহার করে নিয়েছেন এ ব্যাটসম্যান।
কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে বাদ পড়লেও দলে ফিরেছেন পেসার ওয়াহাব রিয়াজ। আমিরের মতো তিনিও টেস্ট থেকে অবসর নিয়েছেন গত বছর। টেস্ট থেকে অবসর নিলেও টি-টোয়েন্টি সিরিজে খেলতে পারতেন মোহাম্মদ আমির। কিন্তু আগস্টে দ্বিতীয় সন্তানকে পৃথিবীতে স্বাগত জানাবেন। তাই এ সফরে যাচ্ছেন না এই তারকা পেসার। জানুয়ারিতে বাংলাদেশের বিপক্ষে খেললেও টি-টোয়েন্টি দল থেকে ছিটকে গেছেন আহসান আলি, আমাদ বাট ও উসমান কাদির। নির্বাচকরা রিজার্ভ বেঞ্চে রেখেছেন চার জনকে। সফরের আগে যদি কেউ করোনা ভাইরাস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে না পারেন তখন এ তালিকা থেকে খেলোয়াড় বদলি নেয়া হবে। ইংল্যান্ডে গিয়ে দুই সপ্তাহ কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে পাকিস্তান দলকে। এরপর তারা নেবে প্রস্তুতি। এ জন্য মূল সিরিজ শুরুর প্রায় পাঁচ সপ্তাহ আগেই দল রওনা হবে ইংল্যান্ডে। প্রথমে বার্মিংহামে পৌঁছুবে তারা। পাকিস্তানের আগে আগামী মাসে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলবে ইংল্যান্ড।
২৯ সদস্যের পাকিস্তান স্কোয়াড ওপেনার: আবিদ আলী, ফখর জামান, ইমাম উল হক ও শান মাসুদ। মিডল অর্ডার: আজহার আলী (টেস্ট অধিনায়ক), বাবর আজম (টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক), আসাদ শফিক, ফাওয়াদ আলম, হায়দার আলী, ইফতিখার আহমেদ, খুশদিল শাহ, মোহাম্মদ হাফিজ, শোয়েব মালিক। উইকেটকিপার: মোহাম্মদ রিজওয়ান, সরফরাজ আহমেদ। ফাস্ট বোলার: ফাহিম আশরাফ, হারিস রউফ, ইমরান খান, মোহাম্মদ আব্বাস, মোহাম্মদ হাসনাইন, নাসিম শাহ, শাহীন আফ্রিদি, সোহেল খান, উসমান শিনওয়ারি, ওয়াহাব রিয়াজ। স্পিনার: ইমাদ ওয়াসিম, কাশিফ ভাট্টি, শাদাব খান ও ইয়াসির শাহ।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More