জিম্বাবুয়ের সঙ্গে এভাবে হারবো কেউ আশা করেনি

 

স্টাফ রিপোর্টার: জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে ২-১ ব্যবধানে হারে বাংলাদেশ। মঙ্গলবার হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠে অঘোষিত ফাইনালে নাসুম আহমেদের করা এক ওভারেই ৩৪ রান তুলে নেন জিম্বাবুয়ের ব্যাটসম্যান রায়ান বার্ল। তার ব্যাটিং তা-বে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৫৬ রান করে স্বাগতিকরা। টার্গেট তাড়ায় ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে ৮ উইকেটে ১৪৬ রান করা বাংলাদেশ ম্যাচ হারে ১০ রানে। এর আগে সিরিজের প্রথম ম্যাচে ২০৬ রান তাড়ায় টাইগাররা হারে ১৭ রানে। তবে দ্বিতীয় ম্যাচে জিতে সিরিজে সমতায় ফিরেছিলো। শেষ ম্যাচে হেরে ২-১ ব্যবধানে সিরিজ হারে বাংলাদেশ। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথমবার টি-টোয়েন্টি সিরিজ হার প্রসঙ্গে জাতীয় দলের টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদু সুজন বলেন, নিশ্চিতভাবে হতাশা। জিম্বাবুয়ের সঙ্গে আমরা হারবো এটা তো কেউ আশা করিনি।

নিশ্চিতভাবে আমাদের দল যে রকমই থাকুক না কেন, তারপরও যে আমরা ওদের চেয়ে ভালো ছিলাম। এক কথায় বললে আমার জন্য অসম্মানের। সত্যি কথা বলতে গেলে কোনো দিনও আশা করিনি যে আমরা ওভাবে হারবো। সুজন আরও বলেন, আমি খুবই হতাশ এবং আমি এটা সম্পূর্ণ খেলোয়াড়দের দোষ দেবো। আমরা জানি যে আমাদের ১০-১২ করে লাগবে তারপরও ওভারে ৬-৭ করে নিচ্ছি। কাউকে দেখলাম না যে চেষ্টা করেছে ৬ মারার। সবাই ২-১ করে….। নিজের জায়গা ধরে রাখার জন্য একটা মোটামুটি রান করে নিজেকে নিরাপদ রাখলাম। আপনি যদি ১০০, ৯০ কিংবা ১১০ স্ট্রাইক রেটে ব্যাটিং করেন তাহলে আপনি এখানে জিততে পারবেন না। জাতীয় দলের সাবেক এই অধিনায়ক আরও বলেন, এখন খেলোয়াড়দের এসব ব্যর্থতার জায়গা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। জানি ওদের সে সক্ষমতা আছে। আপনি কোচিং স্টাফ বা বিসিবিকে দোষ দিয়ে লাভ হবে না, বিসিবি তো সেরাটাই দিতে চেষ্টা করছে। তারা না পারলে আমরা বলবো তাদের সক্ষমতা নেই। এখন তাদেরই বের হয়ে আসতে হবে এখান থেকে।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More