আজকের পত্রিকার আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু

মাথাভাঙ্গা মনিটর: সারাদেশের স্থানীয় দৈনিক সেøাগান নিয়ে মাঠে আসা ‘আজকের পত্রিকা’ বস্তুনিষ্ঠ ও দায়িত্বশীল সাংবাদিকতার মধ্যে দিয়ে মানুষকে তথ্যসমৃদ্ধ করবে। এমন প্রত্যাশা জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর। গতকাল সকালে আজকের পত্রিকার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এমনই মন্তব্য করেন তিনি। স্পিকার বলেন, এই মহামারিকালে আজকের পত্রিকা যে যাত্রা শুরু করেছে, তা অবশ্যই সাহসী পদক্ষেপ। ‘সারা দেশের স্থানীয় দৈনিক’ স্লোগান নিয়ে পাঠকের কাছে সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে গতকাল থেকে যাত্রা শুরু করেছে আজকের পত্রিকা। গতকাল সকালে ছিলো তার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন। করোনা পরিস্থিতির কারণে ঘরোয়া আয়োজনের সঙ্গে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়েছিলেন অতিথিরা। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন আজকের পত্রিকার সম্পাদক ড. মো. গোলাম রহমান। ভার্চুয়ালি শুভেচ্ছা জানান তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, ‘আমার একটা জিনিস খুব ভালো লেগেছে যে আপনারা বাংলাদেশের বিভিন্ন বিভাগে গিয়ে জানার চেষ্টা করলেন পাঠক পত্রিকার কাছে কী প্রত্যাশা করে। আমি মনে করি, একটা নতুন পত্রিকা উদ্বোধনের ক্ষেত্রে এটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আমি আরও জেনে অত্যন্ত আনন্দিত যে ২৭ জুন পত্রিকাটি সারাদেশের পাঠকদের কাছে পৌঁছে গেছে। আজকের পত্রিকা যেনো গণমানুষের সমস্যার কথাগুলো তাদের মুখপাত্র হয়ে প্রকাশ করে, সেটাই প্রত্যাশা।’
অনুষ্ঠানে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আমি আশা করবো, আজকের পত্রিকা সমাজের দর্পণ হিসেবে সঠিকভাবে কাজ করবে। একটি পত্রিকা মানুষের মনন তৈরি করার ক্ষেত্রে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পূরণ করতে পারে। আজকের পত্রিকা সমাজের ত্রুটি এবং অসংগতি যেভাবে পরিবেশন করবে, একই সঙ্গে যেন জাতির এগিয়ে চলার গল্পটাও জনগণকে জানাতে সমর্থ হয়।’ আজকের পত্রিকার সম্পাদক ড. মো. গোলাম রহমান বলেন, ‘আমরা এমন একটি সন্ধিক্ষণে আজকের পত্রিকাকে বাজারে নিয়ে আসছি, যখন সারাদেশ করোনায় স্তব্ধ হয়ে যাওয়ার মতো অবস্থা। যখন সারা বিশ্ব¦ তাকিয়ে আছে স্থবিরভাবে। এমন একটি পরিস্থিতিতে আমরা চাই তথ্যের প্রবাহ অবারিত করতে। আমরা সবার ঘরে ঘরে খবর পৌঁছে দিতে চাই। আজকের পত্রিকা বারোটি ভিন্ন সংস্করণে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে প্রকাশিত হচ্ছে। আমাদের অবহেলিত জনপদ, অবহেলিত জনগণ, তাদের কথা, তাদের চাওয়া আজকের পত্রিকায় প্রতিফলিত হবে।’ বেলা ঠিক সাড়ে এগারটায় শুরু হওয়া অনুষ্ঠানের শুরুতে সঞ্চালক জাহীদ রেজা নূর রবিঠাকুরকে উদ্ধৃত করে বলেন, ‘সংসার মাঝে কয়েকটি সুর, রেখে দিয়ে যাবে করিয়া মধুর, দুএকটি কাঁটা করি দেব দূর, তারপর ছুটি নেব। সেই সত্য ও সুন্দরকে সঙ্গে নিয়ে আজকের পত্রিকার যাত্রা। অনুষ্ঠানে আজকের পত্রিকার কর্মীদের অংশগ্রহণে ধারণকৃত রবীন্দ্রসংগীত এবং একটি প্রামাণ্যচিত্র উপস্থাপন করা হয়। অনুষ্ঠানের একটি অংশে নানা শ্রেণিপেশার মানুষের ধারণকৃত বক্তব্য তুলে ধরা হয়। আজকের পত্রিকার কাছে তাঁদের প্রত্যাশার কথা জানান দেশের আটটি বিভাগের আটজন মানুষ। অনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের দিনে আজকের পত্রিকা কার্যালয়ে আসেন বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাংবাদিকেরা। জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদেরসহ রাজনৈতিক এবং সাংস্কৃতিক অঙ্গনের সঙ্গে যুক্ত বিভিন্ন ব্যক্তিও এই অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা জানাতে আসেন।

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More