আনারকলি কাণ্ড : সেই কথিত গৃহকর্মীর ভিসা প্রত্যাখ্যান করেছিলো যুক্তরাষ্ট্র

 

স্টাফ রিপোর্টার: বাসায় নিষিদ্ধ মাদক মারিজুয়ানা রাখার অভিযোগে জাকার্তা থেকে প্রত্যাহার হওয়া উপ-রাষ্ট্রদূত কাজী আনারকলির অতীত রেকর্ড পর্যালোচনা করছে সরকারি তদন্ত কমিটি। যদিও ইন্দোনেশিয়ার ঘটনার বিষয়ে আত্মপক্ষ সমর্থন করে তিনি গতকাল তদন্ত কমিটির কাছে দীর্ঘ বক্তব্য দিয়েছেন। তার বক্তব্য আমলে নেয়া হলেও অতীতের অন্য অপরাধের বিষয়গুলো রেফারেন্স হিসেবে গ্রহণের সিদ্ধান্ত হয়েছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (পূর্ব) মাশফি বিনতে শামসের নেতৃত্বাধীন কমিটির সামনে বৃহস্পতিবার বিকালে সশরীরে হাজির হয়ে আনারকলি মারিজুয়ানা কা- নিয়ে তার প্রাথমিক বক্তব্য দিয়েছেন। সেখানে তিনি কি বলেছেন তা তাৎক্ষণিকভাবে জানা সম্ভব হয়নি। তবে এটা নিশ্চিত হওয়া গেছে যে, অতীতের অপরাধের বিষয়গুলোও খতিয়ে দেখছে তদন্ত কমিটি। সূত্র মতে, আনারকলি ২০১৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের লসঅ্যানজেলেস-এ পোস্টিংয়ে যাওয়ার সময় ৩৯ বছর বয়সী সাব্বির নামের যে যুবককে তার ‘কথিত’ গৃহকর্মী পরিচয়ে সঙ্গে নিয়েছিলেন তার ব্যাপারে মন্ত্রণালয়ের সেই সময়ের কর্মকর্তারা আগাগোড়ায় সন্দিহান ছিলেন। এমনকি ঢাকাস্থ মার্কিন দূতাবাসও তাকে সন্দেহ করেছিল এবং সাব্বিরের ভিসা আবেদন প্রত্যাখ্যান করেছিল। কিন্তু সেই সময়ে মন্ত্রণালয় প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে বর্তমান থাকা (ডিরেক্টর পারসোনাল) কাজী আনারকলি সাব্বিরের ভিসার জন্য পাগলপ্রায় হয়ে ছোটাছুটি করছিলেন। তিনি আমেরিকাস অনুবিভাগের মহাপরিচালকে অনুরোধ করা ছাড়াও ডিরেক্টর এমনকি আমেরিকাস অনুবিভাগের দু’জন ডেস্ক অফিসারের ওপর অব্যাহত চাপ তৈরি করেছিলেন সেই ভিসা নিশ্চিতে তদবির করতে। তার চাপেই মূলত তারা দিনের পর দিন তদবির এবং ফলোআপে বাধ্য হয়েছিলেন।

অবশ্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিশেষ অনুরোধে মার্কিন দূতাবাস অবশেষে সাব্বিরের ভিসা ইস্যু করে। এ নিয়ে গতকাল আলাপে এক কর্মকর্তা বলেন, কাজী আনারকলি যুক্তরাষ্ট্রের লসঅ্যানজেলেসে ডেপুটি কনসাল জেনারেল হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার পর তিনি তার সন্তান এবং একজন যুবক বয়সী পুরুষকে কাজের লোক হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে নিয়ে যেতে ভিসা আবেদন করেন। তখন অনেকেই সেই কথিত গৃহকর্মীকে তার ঘরের কাজের জন্য নিয়ে যাওয়া এবং এক বাড়িতে থাকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন। কিন্তু পরবর্তীতে এটা তার ব্যক্তিগত বিষয় ধরে নিয়ে মন্ত্রণালয় তাকে আটকায়নি বরং ভিসা পেতে সর্বাত্মক সহায়তা করে। ওই কর্মকর্তা এ-ও বলেন যে, কাছাকাছি সময়ে লসঅ্যানজেলেসস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেটে উচ্চ পদে নিয়োগ পাওয়া প্রশাসন ক্যাডারের এক কর্মকর্তার কথিত বাবুর্চির ভিসা আবেদনও প্রত্যাখ্যান করেছিল মার্কিন দূতাবাস। সেই ‘বাবুর্চি’র কাছে বিরিয়ানি রেসিপি সম্পর্কে জানতে চেয়েছিলেন ভিসা অফিসার। তিনি সেটি বলতে পারেননি বলে তার ভিসা প্রত্যাখ্যাত হয়েছে মর্মে নিজেই মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছিলেন ওই বাবুর্চি। অবশ্য আনারকলির কথিত গৃহকর্মীর ভিসা দেয়ার পর সেই বাবুর্চির ভিসার অনুরোধ আমলেও নিয়েছিল দূতাবাস। মন্ত্রণালয়ের কাছে থাকা রিপোর্ট বলছে, আনারকলির কথিত গৃহকর্মী সাব্বির এবং সেই বাবুর্চি দু’জনই একই পথে হেঁটেছেন। তারা আমেরিকায় অবৈধভাবে থেকে গেছেন, যা মন্ত্রণালয়ের ভাবমূর্তিকে চরমভাবে ক্ষুণœ করেছে।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More